প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। ফাইল ছবি

মামলাজট কমাতে বিচারপতিদের নিয়ে বসব: প্রধান বিচারপতি

দেশের সব আদালতে মামলার আধিক্যের জন্য জনসংখ্যা বৃদ্ধি প্রাথমিকভাবে দায়ী বলেও মনে করেন তিনি।

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৭ এপ্রিল ২০১৯, ২০:২৬ আপডেট: ২৭ এপ্রিল ২০১৯, ২০:২৬
প্রকাশিত: ২৭ এপ্রিল ২০১৯, ২০:২৬ আপডেট: ২৭ এপ্রিল ২০১৯, ২০:২৬


প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। ফাইল ছবি

(প্রিয়.কম) মামলাজট নিরসনে বিচারপতিদের নিয়ে আগামী এক মাসের মধ্যেই বসবেন বলে জানিয়েছেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। দেশের সব আদালতে মামলার আধিক্যের জন্য জনসংখ্যা বৃদ্ধি প্রাথমিকভাবে দায়ী বলেও মনে করেন তিনি।

২৭ এপ্রিল, শনিবার সুপ্রিম কোর্ট মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘বিচারাধীন মামলার তুলনায় বিচারক সংখ্যা অপ্রতুল। তাই দিন দিন মামলাজট দ্রুত বাড়ছে।’

সুপ্রিম কোর্টের জুডিশিয়াল রিফর্ম কমিটি ও জার্মান ডেভেলপমেন্ট কো-অপারেশন (জিআইজেড) যৌথভাবে ‘ন্যাশনাল জাস্টিস অডিটের ফলাফল উপস্থাপন’ বিষয়ক ওই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেন, ‘দেশে ১০ লাখ মানুষের বিপরীতে ১০ জন বিচারক; যেখানে যুক্তরাষ্ট্রে ১০৭, কানাডায় ৭৫, ইংল্যান্ডে ৫১, অস্ট্রেলিয়ায় ৪১ ও ভারতে ১৮ জন। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা ও অস্ট্রেলিয়ার মতো উন্নত দেশে ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ মামলা বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি পদ্ধতির মাধ্যমে নিষ্পত্তি হয়, কেবল ১০ থেকে ১৫ শতাংশ মামলা বিচারের জন্য যায়।’

‘অন্যদিকে বাংলাদেশে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ মামলা বিচার-পূর্ব সময়ে নিষ্পত্তি হয় এবং ৮৫ থেকে ৯০ শতাংশ মামলা বিচারের জন্য যায়, যা বড় ধরনের মামলাজট তৈরি করে। মামলা নিষ্পত্তি বাড়াতে মামলা ব্যবস্থাপনা ও আদালত প্রশাসনের ভূমিকা অপরিহার্য।’

প্রধান বিচারপতি আরও বলেন, ‘মূলত বিচারাধীন বন্দীতে দেশের কারাগারগুলো অতিমাত্রায় পূর্ণ ও সেখানে সংখ্যাতিরিক্ত বন্দী। ব্যবহার ও কর্মপরিকল্পনাগত কারাসংক্রান্ত সমস্যা সমাধানে জিআইজেডের আর্থিক সহায়তায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং কারা অধিদফতর একসঙ্গে কাজ করছে।’

জুডিশিয়াল রিফর্ম কমিটির সভাপতি ও আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অডিটের ফলাফল উপস্থাপন করেন আন্তর্জাতিক পরামর্শক এরিক ক্যাডোরা। অন্যদের মধ্যে জিআইজেড বাংলাদেশের হেড অব প্রোগ্রাম (রুল অব ল’) প্রমিতা সেনগুপ্ত ও জুডিথ হারবার্টসন বক্তব্য দেন।

সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমানের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, শুরুতে আইন মন্ত্রণালয় সম্পাদিত ন্যাশনাল জাস্টিস অডিটের তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করা হয়। অডিটের তথ্য মতে, ৬৮ শতাংশ মানুষ আনুষ্ঠানিক বিচারব্যবস্থায় ন্যায়বিচার পাবেন বলে বিশ্বাস করেন। তবে বিচারব্যবস্থার প্রতি আস্থাশীল হওয়া সত্ত্বেও তাদের মধ্যে ৮৭ শতাংশ স্থানীয় পর্যায়ে বিরোধ নিষ্পত্তিতে আগ্রহী। অর্থাৎ মাত্র ১৩ শতাংশ বিচারপ্রার্থীর প্রাতিষ্ঠানিক বিচারব্যবস্থায় দ্বারস্থ হওয়ার প্রেক্ষিতে আদালতে ৩৪ লাখ মামলার জট তৈরি হয়েছে। আরও বেশি বিচারপ্রার্থী প্রাতিষ্ঠানিক বিচারব্যবস্থার দ্বারস্থ হলে পরিস্থিতি আরও ভিন্ন হতে পারত।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ফলাফল উপস্থাপনায় ২০১৬ থেকে ২০১৭ সালে মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে বিচারাধীন মামলার প্রবৃদ্ধির হার ছিল ১৪ শতাংশ, দায়রা আদালতে এই হার ১৬ শতাংশ এবং হাইকোর্ট বিভাগে এই প্রবৃদ্ধির হার ৯ শতাংশ। এভাবে চলতে থাকলে ২০২২ সালে মুখ্য বিচারিক হাকিমের আদালত, দায়রা আদালত ও হাইকোর্ট বিভাগে আগের বছরগুলো থেকে আগত মামলার পরিমাণ হবে যথাক্রমে ৭২ শতাংশ, ৮০ শতাংশ এবং ৯০ শতাংশ।

এ অবস্থা থেকে উত্তরণে মামলা ব্যবস্থাপনায় বিশেষ পদক্ষেপ নিতে ওই উপস্থাপনায় উল্লেখ করা হয়। উপস্থাপনায় দেখা যায়, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে নিরাপত্তা ও সুরক্ষা খাতে সরকারের বরাদ্দকৃত ১০ হাজার কোটি টাকার ৭ শতাংশ আদালতগুলোর জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে যথাযথ বাজেট বরাদ্দেও উপস্থাপনায় সুপারিশ করা হয়। জার্মান সরকারের কারিগরি সহায়তায় বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে বাংলাদেশের ফৌজদারি বিচারব্যবস্থার গুণগত মানোন্নয়নের লক্ষ্যে ওই পদ্ধতিগত নিরীক্ষণ ও সমীক্ষাটি সম্পন্ন হয়েছে।

সূত্র: প্রথম আলো

প্রিয় সংবাদ/আজাদ চৌধুরী

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...