কনসাস কনজ্যুমার্স সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক পলাশ মাহমুদ। ছবি: সংগৃহীত

ভেজাল পণ্য নির্মূলের রায়: যা বললেন রিটকারী (ভিডিও)

আদালত বলেছে ভেজালের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করে একটি যুদ্ধ ঘোষণা করতে হবে।

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২ মে ২০১৯, ২০:১৪ আপডেট: ১৩ মে ২০১৯, ১৬:২৫
প্রকাশিত: ১২ মে ২০১৯, ২০:১৪ আপডেট: ১৩ মে ২০১৯, ১৬:২৫


কনসাস কনজ্যুমার্স সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক পলাশ মাহমুদ। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) ৫২টি ভেজাল পণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহারের রায় ঘোষণার পর আদালতসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন কনসাস কনজ্যুমার্স সোসাইটির নির্বাহী পরিচালক পলাশ মাহমুদ।

তিনি বলেন, ‘রায়ে আদালত বলেছে মাদক নির্মূলের মতো ভেজাল খাদ্য পণ্যের বিরুদ্ধেও যুদ্ধ, প্রয়োজনে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করতে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে হাইকোর্ট। আদালত বলেছে ভেজালের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করে একটি যুদ্ধ ঘোষণা করতে হবে।’

পলাশ মাহমুদ বলেন, ‘১৬ কোটি মানুষ যে ভেজাল খাদ্য গ্রহণ করছে, দুষ্ট চক্রের মধ্যে আবদ্ধ হয়ে আছে। এখান থেকে বের করে আনার জন্য আমরা ভোক্তা অধিকার নিয়ে কাজ করছি। বড় বড় ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা করে টিকে থাকা কঠিন। এদের বিরুদ্ধে ছোট ছোট ভোক্তাদের তেমন কিছুই করার থাকে না।’

গত ৯ মে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্স অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই) পরীক্ষায় প্রমাণিত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৫২টি ভেজাল ও নিম্নমাণের পণ্য জব্দ এবং এসব পণ্য বাজার থেকে প্রত্যাহার ও উৎপাদন বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়। কনসাস কনজ্যুমার্স সোসাইটির (সিসিএস) পক্ষে ব্যারিস্টার শিহাব উদ্দিন খান জনস্বার্থে রিটটি দায়ের করেন।

প্রসঙ্গত, গত ৩ ও ৪ মে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে উল্লেখ করা হয়েছে, বিএসটিআই সম্প্রতি ২৭ ধরনের ৪০৬টি খাদ্যপণ্যের নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা করে। এর মধ্যে ৩১৩টি পণ্যের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে, যেখানে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৫২টি পণ্য নিম্নমানের ও ভেজাল রয়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ রিপোর্ট প্রকাশ করে বিএসটিআই।

পলাশ মাহমুদের বক্তব্য শুনুন ভিডিওতে।

প্রিয় সংবাদ/আজাদ চৌধুরী