সংবাদ সম্মেলনে পদবঞ্চিত ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। ছবি: সংগৃহীত

‘মাদক ব্যবসায়ী ও হত্যা মামলার আসামিরা স্থান পেয়েছেন ছাত্রলীগের কমিটিতে’

কমিটিতে থাকা ৯৯ জনকে ‘বিতর্কিত’ উল্লেখ করে নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৬ মে ২০১৯, ২১:২৯ আপডেট: ১৬ মে ২০১৯, ২১:২৯
প্রকাশিত: ১৬ মে ২০১৯, ২১:২৯ আপডেট: ১৬ মে ২০১৯, ২১:২৯


সংবাদ সম্মেলনে পদবঞ্চিত ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) ছাত্রলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক সাইফ বাবু বলেন, ‘বয়স শেষ, মাদক ব্যবসায়ী, হত্যা মামলার আসামি, বিএনপি-জামায়াতের সমর্থক, বিবাহিত ও চাকরিজীবীরা রয়েছেন ছাত্রলীগের কমিটিতে।’

১৬ মে, বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন কথা বলেন তিনি। কমিটিতে থাকা ৯৯ জনকে ‘বিতর্কিত’ উল্লেখ করে নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সাইফ বাবু বলেন, ‘ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক মাত্র ১৭ জনের কথা বলেছেন। কিন্তু এতে বয়স শেষ, মাদক ব্যবসায়ী, হত্যা মামলার আসামি, বিএনপি-জামায়াতের সমর্থক, বিবাহিত ও চাকরিজীবী রয়েছেন শতাধিক। তাদের খুঁজে বের করতে হবে। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার পাশাপাশি অর্থবহুল, সুন্দর ও সুষ্ঠু কমিটি গঠন করতে হবে। বিতর্কিতরা টিউমারের মতো। পরে তারা ক্যানসারে পরিণত হবে। তাদের কমিটি থেকে বাদ দিতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতোমধ্যে কমিটি পুনর্গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন উল্লেখ করে সাইফ বাবু বলেন, ‘এতে আমরা আনন্দিত হয়ে এখানে উপস্থিত হয়েছি। প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে হবে। নির্দেশ অমান্য করলে শক্ত জবাব দেওয়া হয়। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন সৈনিক বেঁচে থাকতেও ছাত্রলীগের কেউ ক্ষতি করতে পারবে না।’

এ সময় আন্দোলনরত পদবঞ্চিত নেতাদের নানাভাবে ভয়-ভীতি দেখানো হচ্ছে এবং প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। এ ছাড়া মধুর ক্যান্টিনে নেত্রীদের ওপর হামলাকারীদের শাস্তির দাবি জানান বাবু।

সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ পদবঞ্চিতরা উপস্থিত ছিলেন। লিখিত বক্তব্যের পর পদবঞ্চিত অন্যান্য নেতা বক্তব্য রাখেন। এতে তারা বলেন, গতকাল (বুধবার) ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সংবাদ সম্মেলন করে বিতর্কিত ১৭ জনের কথা উল্লেখ করেছেন। তাতেই প্রমাণিত হয়, আমাদের দাবি যৌক্তিক। তবে তারা ১৭ জন বললেও এই কমিটিতে ৯৯ জনই বিতর্কিত।

এ সময় তারা পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদ দেওয়ার আগে নেতাদের ‘ডোপ টেস্ট’ করানোরও দাবি জানান। বক্তারা বলেন, ছাত্রলীগ কিংবা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান নয়; আমাদের অবস্থান বিতর্কিতদের বিরুদ্ধে।

গত সোমবার ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। কমিটি ঘোষণার পরপরই ছাত্রলীগের একাংশ এই কমিটির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরু করেন। তাদের অভিযোগ, যোগ্য ও ত্যাগীদের মূল্যায়ন না করে নিষ্ক্রিয়সহ ‘বিতর্কিত’দের পদ-পদবি দেওয়া হয়েছে। এ অভিযোগে তারা কমিটি পুনর্গঠনের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেন। মিছিল শেষে ওই দিন সন্ধ্যায় মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করতে গেলে মারধরের শিকার হন তারা।

পরদিন মঙ্গলবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে কমিটি থেকে অযোগ্যদের বাদ দিয়ে যোগ্যদের মূল্যায়ন করতে ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম দেন পদবঞ্চিতরা।

প্রিয় সংবাদ/আজাদ চৌধুরী

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...