রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে মানবপাচার চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন। ছবি: সংগৃহীত

ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবি: পাচারকারী চক্রের তিন সদস্য রাজধানীতে গ্রেফতার

গ্রেফতারকৃত তিনজন হলেন—শরীয়তপুরের মো. আক্কাস মাতুব্বর (৩৯), সিলেটের এনামুল হক তালুকদার (৪৬) ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মো. আবদুর রাজ্জাক ভূইয়া (৩৪)।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ১৭ মে ২০১৯, ১৬:৩৪ আপডেট: ১৭ মে ২০১৯, ১৬:৩৮
প্রকাশিত: ১৭ মে ২০১৯, ১৬:৩৪ আপডেট: ১৭ মে ২০১৯, ১৬:৩৮


রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে মানবপাচার চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) লিবিয়া থেকে ইউরোপে যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে বাংলাদেশি নিহতের ঘটনায় ১৭ মে, শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে মানবপাচার চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-১।

গ্রেফতারকৃত তিনজন হলেন—শরীয়তপুরের মো. আক্কাস মাতুব্বর (৩৯), সিলেটের এনামুল হক তালুকদার (৪৬) ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মো. আবদুর রাজ্জাক ভূইয়া (৩৪)।

বৃহস্পতিবার রাত ৩টা থেকে শুক্রবার সকাল ৬টা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে রাজধানীর আবদুল্লাহপুর থেকে আক্কাসকে, খিলক্ষেত থেকে এনামুলকে এবং বিমানবন্দর এলাকা থেকে রাজ্জাককে গ্রেফতার করা হয় বলে র‌্যাব সদর দফতরের সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান ভূঞা জানান।

সংঘাতময় লিবিয়ার জুয়ারা থেকে অবৈধভাবে ইতালিতে যাওয়ার পথে গত ১০ মে তিউনিসিয়া উপকূলে নৌকা ডুবে বহু মানুষের মৃত্যু হয়।

ওই নৌকাডুবির ঘটনায় নিখোঁজ ৩৯ বাংলাদেশির একটি তালিকা সরকারের পক্ষ থেকে প্রকাশ করা হয়েছে। তাদের লাশ উদ্ধারের সম্ভাবনা ফিকে হয়ে এসেছে অনেকটাই।

জীবন বদলের আশা নিয়ে দালালদের আট থেকে ১০ লাখ টাকা দিয়ে লিবিয়া হয়ে ইউরোপের পথে যাত্রা করেছিলেন এই বাংলাদেশিরা।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে এ মোমেন গত বুধবার এক ব্রিফিংয়ে জানান, যে মানবপাচার চক্র এ ঘটনায় জড়িত তার হোতাসহ পাঁচ জনের বিষয়ে তথ্য পেয়েছে সরকার।

তিন জনকে গ্রেফতারের পর ‍শুক্রবার কারওয়ানবাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ বাহিনীর আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান বলেন, ‘সিলেটের জিন্দাবাজারে ইয়াহিয়া ওভারসিজ নামে একটি এজেন্সি আছে এনামুলের। তিনি ১০/১২ বছর ধরে মানবপাচারে জড়িত।’

‘আবদুর রাজ্জাক গত চার-পাঁচ বছর ধরে এনামুলের দালাল হিসেবে কাজ করছিলেন। আক্কাসও দুই-তিন বছর ধরে মানবপাচার চক্রের দালাল হিসেবে কাজ করছেন।’

মুফতি মাহমুদ বলেন, ‘তারা মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে বিদেশে কর্মসংস্থানের প্রলোভন দেখিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ এই অপরাধের সাথে সম্পৃক্ত আছে। এই সংঘবদ্ধ চক্রটি বিদেশি চক্রের যোগসাজশে অবৈধভাবে ইউরোপে লোক পাঠিয়ে আসছে।’

এই ‘মানবপাচার চক্রটি’ বাংলাদেশ থেকে ইউরোপে লোক পাঠানোর ক্ষেত্রে তিনটি রুট ব্যবহার করে থাকে বলে জানানো হয় র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলনে।

এর আগে গত ৯ মে নৌকাডুবির ঘটনায় নিখোঁজ ৩৯ বাংলাদেশির পরিচয় বুধবার প্রকাশ করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। 

পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন নিজ কার্যালয়ে বুধবার (১৫ মে) সংবাদ সম্মেলনে জানান, নৌকাডুবি থেকে বেঁচে যাওয়া ১৪ বাংলাদেশি নাগরিকের সঙ্গে লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তারা কথা বলেছেন এবং তাদের সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করেছেন। দুটি নৌকায় থাকা মোট ১৫০ অভিবাসীর মধ্যে ১৩০ জন ছিলেন বাংলাদেশি। একটি নৌকা নিরাপদে ইতালি পৌঁছালেও আরেকটি নৌকা ৭০-৮০ জন যাত্রী নিয়ে সাগরে ডুবে যায়। এসব বাংলাদেশিরা চার মাস আগে লিবিয়া যান। তারা দুবাই, শারজা ও আলেকজান্দ্রিয়া হয়ে ত্রিপলি পৌঁছান। মানবপাচারকারীরা ত্রিপলিতে তাদের ওপর নির্যাতন চালায় এবং পরিবারের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায় করে।

প্রিয় সংবাদ/কামরুল/আজাদ চৌধুরী