মোহাম্মদ শামি ও তার সাবেক স্ত্রী হাসিন জাহান। ছবি: সংগৃহীত

স্ত্রীর ‘কারণে’ বিশ্বকাপ খেলতে পারছেন ভারতীয় এই ক্রিকেটার!

পারিবারিক ঝামেলা ও দাম্পত্য কলহ পেছনে ফেলে ভারতের বিশ্বকাপ দলে জায়গা করে নিয়েছেন ডানহাতি এই পেসার।

মুশাহিদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২৪ মে ২০১৯, ১৭:২৯ আপডেট: ২৪ মে ২০১৯, ১৭:৩৬
প্রকাশিত: ২৪ মে ২০১৯, ১৭:২৯ আপডেট: ২৪ মে ২০১৯, ১৭:৩৬


মোহাম্মদ শামি ও তার সাবেক স্ত্রী হাসিন জাহান। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) গত বছরের মার্চ থেকে সংবাদের শিরোনামে নিয়মিতভাবে জায়গা করে নিচ্ছেন মোহাম্মদ শামি-হাসিন জাহান। পাঁচ বছর আগে ভালোবেসে বিয়ে করা ভারতীয় ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে হাসিনের একগাদা অভিযোগ। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল—বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক, মারধর থেকে শুরু করে ম্যাচ গড়াপেটার মতো গুরুতর অভিযোগ।

এ জন্য অবশ্য বেশ বিপাকে পড়তে হয়েছে শামিকে। শেষ পর্যন্ত মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে তার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ। তবে এসব পারিবারিক ঝামেলা ও দাম্পত্য কলহ পেছনে ফেলে বিশ্বকাপ দলে জায়গা করে নিয়েছেন ভারতের ডানহাতি এই পেসার। কিন্তু তার স্ত্রীর দাবি, তিনি আইনিব্যবস্থা নিলে বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পেতেন না শামি।

এ প্রসঙ্গে ভারতের মডেল ও অভিনেত্রী হাসিন বলেন, ‘আমি যদি আইনিব্যবস্থা নিতাম, তাহলে মোহাম্মদ শামি কোনোভাবে বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পেত না। বিশ্বকাপের জন্য আমি তাকে ছেড়ে দিয়েছি। চার্জশিট বেরিয়ে গেছে। আমি আইনিব্যবস্থা নিলে শামিকে পাসপোর্ট জমা রাখতে হতো। তখন শামি বিশ্বকাপে খেলতে যেতে পারত না। সে বিশ্বকাপে খেলতে যাবে বলেই আমি বাড়াবাড়ি করিনি। শামি যেন এটা ভুলে না যায়।’

বুধবার সন্ধ্যায় ভারতের উত্তরপ্রদেশে সংবাদমাধ্যমকে হাসিন বলেন, ‘আমি কখনোই ক্রিকেটের খুব একটা ভক্ত ছিলাম না। ভালো লাগত না। হয়তো এটা কেউই বিশ্বাস করবেন না। আমি সত্যি বলছি, শামির সঙ্গে বিয়ে হওয়ার পরেও আমি ক্রিকেট দেখতে চাইতাম না।’

সাবেক স্বামীর জোরাজুরিতে মাঠে যেতে বাধ্য হতেন জানিয়ে হাসিন বলেন, ‘শামি জোর করে মাঠে যেতে বলত। ইডেনে (ইডেন গার্ডেন্স) কয়েকবার খেলা দেখতে গিয়েছিলাম। তাও একদম শেষ মুহূর্তে। বিদেশেও কয়েকবার গিয়েছি। তবে আমার মাঠে যেতে ইচ্ছে করত না। আমার ক্রিকেটের প্রতি কোনো আগ্রহ নেই।’

বিশ্বকাপে শামির খেলা দেখবেন কি না জানতে চাইলে হাসিন বলেন, ‘না, খেলা দেখব না। তবে ভারতীয় হিসেবে বিশ্বকাপের মঞ্চে কোহলিদের জয় দেখতে চাই। ভারত জিতলে ভালো লাগবে। সেখানে শামি ভালো কিছু করলে আমার ভেতরে কোনো আলাদা অনুভূতি হবে না।’

প্রিয় খেলা/আজাদ চৌধুরী