মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি: সংগৃহীত

মমতা কী বলবেন, নজর পর্যালোচনা বৈঠকে

ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) কাছে কেন এতো বেশি আসন হারাতে হলো, ত্রুটি কোথায় ছিল ও এই ক্ষয় মেরামত হবে কীভাবে, সব মিলিয়ে এই বৈঠকে পর্যালোচনা হতে পারে।

আশরাফ ইসলাম
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২৫ মে ২০১৯, ০৯:২৯ আপডেট: ২৫ মে ২০১৯, ০৯:২৯
প্রকাশিত: ২৫ মে ২০১৯, ০৯:২৯ আপডেট: ২৫ মে ২০১৯, ০৯:২৯


মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নির্বাচনের ফল ঘেষণা হওয়ার কিছুক্ষণ পরেই টুইট করে জানিয়েছিলেন, পূর্ণাঙ্গ পর্যালোচনা করে তবেই যা বলার বলবেন। পর্যালোচনায় আজ সেই জরুরি বৈঠক।

২৫ মে, শনিবার বিকেল ৪টার দিকে মমতার কালীঘাটের বাসভবনে এই বৈঠক হবে। এ বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন সব জেলার দলীয় সভাপতি এবং পর্যবেক্ষকরা। থাকবেন জোড়াফুলে জেতা ২২ সাংসদের পাশাপাশি পরাজিত প্রার্থীরাও।

দলীয় সূত্রে খবর, ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) কাছে কেন এতো বেশি আসন হারাতে হলো, ত্রুটি কোথায় ছিল ও এই ক্ষয় মেরামত হবে কীভাবে, সব মিলিয়ে এই বৈঠকে পর্যালোচনা হতে পারে।

ফল প্রকাশের পরদিন শুক্রবার আড়াল থেকে তিন ভাষায় কবিতা লিখে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করেছেন মমতা। সেটি হলো বাংলা, ইংরাজি ও হিন্দিতে লেখা কবিতা— ‘সাম্প্রদায়িকতার রঙ আমি বিশ্বাস করি না…।’

এসব দেখে দলের ভেতরের অনেকের ধারণা, রাজ্যে তৃণমূলের আসন-ক্ষয় এবং বিজেপির বিপুল অগ্রগতির পেছনে তৃণমূলনেত্রী হয়তো ধর্মীয় মেরুকরণকেই বড় করে দেখছেন। কিন্তু দলীয় অন্তর্ঘাত, পঞ্চায়েতে ভোট দিতে না পারা মানুষের ক্ষোভ থেকে শুরু করে দলে ‘নব্য’ এবং ‘আদি’, দুই শ্রেণির তৃণমূল নেতা-কর্মীদের মধ্যে বিভাজনের মতো বিষয়গুলিও যে ভোটের মেশিনে ছাপ ফেলেছে, তা আলোচনায় আসবে কি না, এখনো সেটা খুব স্পষ্ট নয়।

এর আগে ফল প্রকাশের দিন মমতা একটি টুইটে মোটামুটি ধারণা দেন নিজের বক্তব্য। সে টুইটে তিনি লিখেছিলেন, ‘জয়ীদের শুভেচ্ছা। যারা হেরেছেন তারা প্রকৃতপক্ষে পরাজিত নন। আমাদের সম্পূর্ণ পর্যালোচনা করতে হবে। তারপরই আমরা মানুষের রায় নিয়ে নিজেদের দৃষ্টিভঙ্গি ভাগ করে নেব। কিন্তু আগে গণনা সম্পূর্ণ হোক ও প্রদত্ত ভোটের সঙ্গে ভোটার ভেরিফায়েড পেপার অডিট ট্রেইলিং (ভিভিপ্যাট) মিলিয়ে দেখার পক্রিয়া শেষ হোক।’

প্রিয় সংবাদ/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...