রাজধানীর উত্তরখানের মৈনারটেক এলাকায় বৃদ্ধাশ্রমে পূর্ণিমা। ছবি: সংগৃহীত

বৃদ্ধাশ্রমে অসহায়দের সঙ্গে পূর্ণিমার এক দুপুর

একেকজনের জীবনের গতিপথ ছিল একেকরকম। স্বপ্নগুলোও ঠিকমতো হাতের মুঠোয় ধরা দেয়নি; জীবনের শেষ বেলাতে। যার কারণেই ঠাঁই হয়েছে তাদের বৃদ্ধাশ্রমে।

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিয়.কম
প্রকাশিত: ২৫ মে ২০১৯, ১৪:৪৩ আপডেট: ২৫ মে ২০১৯, ১৪:৪৩
প্রকাশিত: ২৫ মে ২০১৯, ১৪:৪৩ আপডেট: ২৫ মে ২০১৯, ১৪:৪৩


রাজধানীর উত্তরখানের মৈনারটেক এলাকায় বৃদ্ধাশ্রমে পূর্ণিমা। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) একেকজনের জীবনের গতিপথ ছিল একেকরকম। স্বপ্নগুলো ঠিকমতো হাতের মুঠোয় ধরা দেয়নি জীবনের শেষ বেলাতে। যার কারণেই ঠাঁই হয়েছে তাদের বৃদ্ধাশ্রমে। কেউ রাস্তায় পড়ে ছিলেন, কেউ বা মাজারে। আবার কেউ কেউ ভিক্ষা করে দিন চলতেন। অসহায় সেই বৃদ্ধাদের আপন করে নিয়েই গড়ে উঠেছে ‘আপন নিবাস’ নামের বৃদ্ধাশ্রমটি।

সেই আপন নিবাসে গিয়েই বৃদ্ধ মায়েদের সঙ্গে সামাজিক দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে সময় কাটিয়েছেন চিত্রনায়িকা পূর্ণিমা

২৫ মে, শনিবার পূর্ণিমা তার ফেসবুকের ভ্যারিফায়েড পেজ থেকে আপন নিবাসে কাটানো সময়ের বেশকিছু ছবি শেয়ার করেছেন।

সেখানে কাটানো মুহূর্তগুলোর ছবি ফেসবুকে পোস্ট করার পর থেকেই কমেন্টের ঘরে গিয়ে পূর্ণিমাকে এমন একটি কাজ করার জন্য সাধুবাদ জানিয়েছেন তার ফ্যান-ফলোয়ার ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের অনেকে। জানা গেছে, সামাজিক দায়বদ্ধতার জায়গা থেকেই তিনি সেখানে গিয়ে তাদের সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন।

রাজধানীর উত্তরখান ইউনিয়ন পরিষদের মৈনারটেক এলাকায় অসহায় ও দুস্থ নারীদের জন্য নির্মাণ করা হয় বৃদ্ধাশ্রম ‘আপন নিবাস’। সেখানে প্রায় ৫০ জন নারী বসবাস করছেন। যাদের বয়স ৬০ থেকে ৭০ বছরের বেশি। তাদের কারও কারও শারীরিক সামর্থ্য নেই। আশ্রমই তাদের ভরসা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পূর্ণিমা তাদের জন্য নিজ হাতে খাবার রান্না করে নিয়ে গিয়েছেন। এরপর তাদের সঙ্গে খোশ গল্পে কাটিয়েছেন দারুণ কিছু সময়। তাদের সঙ্গে সুর মিলিয়ে গানও গেয়েছেন। খাবারও খেয়েছেন।

এ বিষেয়ে একটি সংবাদমাধ্যমকে পূর্ণিমা বলেছেন, ‘তাদের সঙ্গে সময়টা কাটিয়ে এবং একবেলা খাওয়াতে পেরে আমার নিজের মধ্যে একটি তৃপ্তি পেয়েছি। মনের মধ্যে একটা শান্তি অনুভব করছি।’

পূর্ণিমাকে কাছে পেয়ে খোশ-গল্পে মেতে উঠেছিলেন বৃদ্ধাশ্রমের কেউ কেউ। ছবি: সংগৃহীত

এ আনন্দ যেন ভাষায় বর্ণনা করার মতো নয়! ছবি: সংগৃহীত

প্রিয় বিনোদন/রুহুল