ফাগুনের হত্যাকারীদের দ্রুত শনাক্ত ও শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেন সাংবাদিকরা। ছবি: সংগৃহীত

সাংবাদিক ফাগুনের হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি

সাংবাদিক নেতারা বলেন, ফাগুন হত্যা একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। দ্রুত হত্যাকারীদের বিচারের আওতায় এনে শাস্তি দিতে হবে।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ২৫ মে ২০১৯, ১৮:১৪ আপডেট: ২৫ মে ২০১৯, ১৯:৫১
প্রকাশিত: ২৫ মে ২০১৯, ১৮:১৪ আপডেট: ২৫ মে ২০১৯, ১৯:৫১


ফাগুনের হত্যাকারীদের দ্রুত শনাক্ত ও শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেন সাংবাদিকরা। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) সাংবাদিক ইহসান ইবনে রেজা ফাগুন হত্যার সঙ্গে জড়িতদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন শেরপুর জেলার সাংবাদিকরা। তারা বলছেন, এটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। দ্রুত হত্যাকারীদের বিচারের আওতায় এনে শাস্তি দিতে হবে।

২৫ মে, শনিবার সকালে জেলা প্রেসক্লাবের আয়োজনে শহরের থানা মোড়ে মানববন্ধন থেকে এ দাবি জানানো হয়। মানববন্ধনে প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক, অনলাইনের সাংবাদিক, মানবাধিকার কর্মী ও বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীসহ বিভিন্ন পেশার লোকজন অংশ নেন।

ফাগুন প্রিয়.কমের সাবেক সহ-সম্পাদক। তেজগাঁও কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। ২১ মে ঢাকা থেকে বাড়ি যাওয়ার পথে নিখোঁজ হন। পরবর্তী সময়ে তার মরদেহ জামালপুরের নান্দিনা মধ্যপাড়া এলাকায় রেললাইনের পাশে তার মৃতদেহ পাওয়া যায়। তার মাথা ও গলায় আঘাতের চিহ্ন ছিল।

পুলিশ ধারণা করছে, তাকে অপহরণের পর হত্যা করা হয়েছে। ফাগুনের হত্যাকারীদের শনাক্ত ও বিচারের দাবিতে সাংবাদিকরা বিক্ষোভ ও মানববন্ধনের আয়োজন করেন।

আরও পড়ুন: ইংরেজি পত্রিকায় ভুল কেন, প্রশ্ন করেছিল ফাগুন

মানববন্ধনে ফাগুন রেজার বাবা জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক ও কলাম লেখক কাকন রেজা বলেন, ‘আমি পিতা হিসেবে সন্তানের বিচার দাবিতে মানববন্ধনে আসিনি। একজন সাংবাদিক হত্যার প্রতিবাদ ও তার বিচার দাবিতে কথা বলছি। ফাগুন হত্যার বিচারের মধ্য দিয়ে আর যেন কোনো গণমাধ্যমকর্মী এমন নির্মম হত্যার শিকার না হয়, সন্তানরা যেন নির্বিঘ্নে তাদের মা-বাবার কোলে ফিরতে পারে সে দাবিই জানাচ্ছি।’

সাংবাদিক ছাড়াও স্থানীয় শিক্ষার্থী ও বিভিন্ন পেশার লোকজন মানববন্ধনে অংশ নেন। ছবি: সংগৃহীত

মানববন্ধন থেকে তরুণ সাংবাদিক ফাগুন হত্যায় উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে তার হত্যাকারীদের শনাক্ত ও গ্রেফতারসহ দ্রুত বিচারের মুখোমুখি করার দাবি জানানো হয়। অন্যথায় সাংবাদিকদের তরফ থেকে বৃহত্তর ও কঠিন আন্দোলন কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে এবং সেই কর্মসূচিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে নানা-শ্রেণিপেশার মানুষও যুক্ত থাকবেন।

ফাগুনের মরদেহ উদ্ধারের ১২ ঘণ্টা যেতে-না-যেতেই দাফনের প্রক্রিয়া শুরু করে জামালপুর রেলওয়ে পুলিশ। তড়িঘড়ি করে বেওয়ারিশ হিসেবে ফাগুনের মরদেহ কেন দাফন করা হচ্ছিল, সেই প্রশ্নও তোলেন সাংবাদিকরা। জামালপুর রেলওয়ে পুলিশের এই গাফিলতিতে বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানানো হয়।

প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের কাছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইজিপি বরাবর স্মাারকলিপি পেশসহ উপজেলা পর্যায়ে মানববন্ধনসহ ৭ দিনব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।

আরও পড়ুন: ফাগুন রেজার দাফন সম্পন্ন

শেরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শরিফুর রহমানের সভাপতিত্বে ওই মানববন্ধনে সাংবাদিক নেতাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি রফিকুল ইসলাম আঁধার, সাধারণ সম্পাদক মেরাজ উদ্দিন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাবিহা জামান শাপলা, সহ-সভাপতি জিএম আজফার বাবুল ও এসএম শহীদুল ইসলাম, সিনিয়র সাংবাদিক সঞ্জীব চন্দ বিল্টু প্রমুখ।

একাত্মতা পোষণ করে বক্তব্য রাখেন জেলা জাসদ সভাপতি মনিরুল ইসলাম লিটন, জেলা মহিলা পরিষদের সভানেত্রী জয়শ্রী দাস লক্ষ্মী, জেলা মানবাধিকার কমিশনের সভাপতি রাজিয়া সামাদ ডালিয়া, জেলা খেলাঘর আসরের সভাপতি অ্যাডভোকেট ইমাম হোসেন ঠান্ডু, জেলা উদীচী সভাপতি অধ্যাপক তপন সারওয়ার, নাগরিক সংগঠন জনউদ্যোগ আহবায়ক আবুল কালাম আজাদসহ আরও অনেকে।

আরও পড়ুন: তেজগাঁও কলেজছাত্র ও সাংবাদিক ফাগুনের মরদেহ উদ্ধার

প্রিয় সংবাদ/রিমন