রিংয়ে নেমে এভাবেই ভীতি ছড়াতেন আন্ডারটেকার। ছবি: সংগৃহীত

ভক্তদের কাছে হাত পেতে বাঁচতে হচ্ছে বিশ্বখ্যাত রেসলারকে!

দুঃসময় দরজায় কড়া নাড়লে অনেক বড় মানুষও পথ ভুলে যায়। ভুলে যায় ফেলে আসা সোনালি দিনের কথা। এমনই হয়েছে আমেরিকার বিখ্যাত এই রেসলারের বেলায়।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ২৬ মে ২০১৯, ২১:৫৯ আপডেট: ২৮ মে ২০১৯, ১৭:৫১
প্রকাশিত: ২৬ মে ২০১৯, ২১:৫৯ আপডেট: ২৮ মে ২০১৯, ১৭:৫১


রিংয়ে নেমে এভাবেই ভীতি ছড়াতেন আন্ডারটেকার। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) দুঃসময় দরজায় কড়া নাড়লে অনেক বড় মানুষও পথ ভুলে যায়। ভুলে যায় ফেলে আসা সোনালি দিনের কথা। মানুষের কাছে নুতন করে দিতে হয় নিজের পরিচয়। এমনই হয়েছে ডব্লিউডব্লিউ সুপারস্টার আন্ডারটেকারের বেলায়। এমন দুর্দিন এসেছে যে, আন্ডারটেকার ভুলেই গেছেন কতটা প্রতাপ আর আভিজাত্য ছিল তার। সব ভুলে জীবন বাঁচানোর তাগিদে রাস্তায় নেমে গেছেন জনপ্রিয় এই রেসলার।

আমেরিকার এই রেসলারকে হাত পাততে হচ্ছে ভক্তদের কাছে। না, কোনো গল্প নয়। রাজ্য হারিয়ে এভাবেই রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছেন আন্ডারটেকার। নিউইয়র্কের সাবওয়ে স্টেশনে প্রতিনিয়তই দেখা মিলছে সাবেক এই রেসলারের। যেখানে আন্ডারটেকারের আবদার মেটাতে হচ্ছে ভক্তদের। সেলফি বিক্রি করছেন তিনি। তার সঙ্গে সেলফি তুলতে গেলে টাকা দিতে হবে! এমনই দাবি করছেন আন্ডারটেকার। এমন দাবিতে বেজায় চটেছেন তারই অনেক ভক্ত।

ভক্তদের সঙ্গে ছবি তুলে টাকা দাবি করছেন আন্ডারটেকার। ছবি: সংগৃহীত

নিউইয়র্ক সাবওয়ে স্টেশনে আন্ডারটেকারের ব্যবহারে খুব বিরক্ত হয়েছেন একজন। সেই প্রত্যক্ষদর্শীর বলেছেন, ‘নগদ টাকা চেয়ে সাবওয়ের ভিতরে চিৎকার করছিলেন আন্ডারটেকার। তিনি নিজেই সেলফি বিক্রি করছিলেন। আর সেলফি তোলা এবং তার সঙ্গে কথা বলার জন্য ২০ ডলার দাবি করছিলেন।’

আন্ডারটেকারের জন্য অবশ্য দুঃখপ্রকাশও করেছেন সেই প্রত্যক্ষদর্শী। তিনি বলেন, ‘এটা খুবই দুঃখের কথা। লোকটাকে দেখে আমার নব্বই দশকের আন্ডারটেকারের কথা মনে হচ্ছিল। কী তার প্রতাপ! ম্যাকমোহনকে কীভাবে উনি হারিয়েছেন। আর এখন তিনি নিজেকে সবার মাঝে এভাবে উপস্থাপন করছেন। নিজে হতাশ হচ্ছেন এবং ভক্তদের মন ভেঙে দিচ্ছেন।’

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...