একটি সেতুর অংশ বিশেষ, যার ওজন ৫৬ টন তা রাতারাতি উধাও হয়ে গেছে। ছবি: সংগৃহীত

৫৬ টন ওজনের সেতু চুরি!

পানির নিচে থাকা সেতুর ভাঙা অংশগুলো নেই। এর মধ্যে কোনো প্রাকৃতিক বিপর্যয়ও ঘটেনি কিংবা ঘটলেও এরকমটা হওয়ার কথা নয়।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ০৭ জুন ২০১৯, ১৩:৫৪ আপডেট: ০৭ জুন ২০১৯, ১৩:৫৪
প্রকাশিত: ০৭ জুন ২০১৯, ১৩:৫৪ আপডেট: ০৭ জুন ২০১৯, ১৩:৫৪


একটি সেতুর অংশ বিশেষ, যার ওজন ৫৬ টন তা রাতারাতি উধাও হয়ে গেছে। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) ছোটখাটো বস্তু হলেও একটা কথা, তাই বলে একটি সেতুর অংশ বিশেষ, যার ওজন ৫৬ টন তা রাতারাতি উধাও হয়ে যাবে! এমনই একটি অবিশ্বাস্য ঘটনা ঘটেছে রাশিয়ায়। আর এ নিয়ে রীতিমতো শোরগোল পড়ে গেছে রাশিয়ার আর্কটিক অঞ্চলের বাসিন্দাদের মধ্যে।

ডেইলি মেলের বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, রাশিয়ার মুর্মানস্ক অঞ্চলের উম্বা নদীর ওপর তৈরি এই সেতুটির মাঝের ৭৫ ফিট লম্বা অংশ সম্প্রতি খোয়া গেছে।

এনডিটিভি জানিয়েছে, গত মে মাসে সেতু উধাও হওয়ার বিষয়টি প্রথমে নজরে আসে। এরপরই সেটি প্রকাশিত হয় ভিকে (VK) নামের রাশিয়ার একটি সামাজিক মাধ্যমে। ১৬ মে ঘটনাস্থলের ছবি শেয়ার হয় ভিকে-র পেজে। সেখানে দেখা যায়, সেতুর বেশ বড় একটা অংশ ভেঙে পানির নিচে পড়ে আছে।

তারও ১০দিন পর ভিকে অনুসন্ধান করে আরও কিছু ছবি প্রকাশ করে। তাতে দেখা যায়, সেতুর ভাঙা অংশটি যেন পুরোপুরি উধাও! পানির নিচে পড়ে থাকা ভাঙা অংশগুলোর আর কোনো চিহ্ন নেই! কীভাবে এই অবিশ্বাস্য ঘটনা ঘটলো তা উদঘাটন সম্ভব হয়নি।

সেতুর এরিয়াল শট নিয়ে সেই ছবি পোস্ট করে তার ক্যাপশনে লেখা হয়, পানির নিচে থাকা সেতুর ভাঙা অংশগুলো নেই। এর মধ্যে কোনো প্রাকৃতিক বিপর্যয়ও ঘটেনি কিংবা ঘটলেও এরকমটা হওয়ার কথা নয়।

স্থানীয়রা ধারণা করছেন, সম্ভবত প্রথমে সেতুটিকে ভেঙে নামিয়ে আনা হয়েছে। তারপর চুরি করেছে চোরেরা। বিষয়টি তারা কিরোভস্ক থানায় জানিয়েছেন। 

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দি ইন্ডিপেনডেন্ট পত্রিকা জানিয়েছে, কিরোভস্ক প্রশাসন ইতিমধ্য এই ঘটনার তদন্তে নেমেছে। প্রাথমিক তদন্তের পর ধারণা করা হচ্ছে, সম্ভবত পুরানো লোহা বিক্রির উদ্দেশ্য চুরি করা হয়েছে সেতুটি। তবে কারা, কীভাবে এতো ভারী সেতু চুরি করল তা উদঘাটন করা এখনো সম্ভব হয়নি।

প্রিয় সংবাদ/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


loading ...