প্রতীকী ছবি

খতনা করাতে গিয়ে শিশুর পুরুষাঙ্গ কেটে ফেললেন চিকিৎসক!

‘শিশুটির অবস্থা গুরুতর। পুরুষাঙ্গের কেটে ফেলা অংশটুকু সংরক্ষণ করে মাইক্রোসার্জারি করানোর জন্য দ্রুত শিশুটিকে ঢাকায় নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছি।’

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৬ জুন ২০১৯, ২১:১২ আপডেট: ২৬ জুন ২০১৯, ২১:১২
প্রকাশিত: ২৬ জুন ২০১৯, ২১:১২ আপডেট: ২৬ জুন ২০১৯, ২১:১২


প্রতীকী ছবি

(প্রিয়.কম) গোপালগঞ্জে সুন্নতে খতনা করতে গিয়ে তামিম মাহমুদ নামের এক শিশুর পুরুষাঙ্গের কিছু অংশ কেটে ফেলেছেন এক ডাক্তার।

২৬ জুন, বুধবার সকালে শহরের ডা. হাফেজ মাহফুজুর রহমানের মালিকানাধীন জিম ক্লিনিকে এই ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহত অবস্থায় প্রথমে তামিমকে গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে হেলিকপ্টারে ঢাকায় পাঠানো হয়। তামিম শহরের আরামবাগ এলাকার তারেক মাহমুদের ছেলে।

গোপালগঞ্জ শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. অনুপ কুমার বলেন, ‘শিশুটির অবস্থা গুরুতর। পুরুষাঙ্গের কেটে ফেলা অংশটুকু সংরক্ষণ করে মাইক্রোসার্জারি করানোর জন্য দ্রুত শিশুটিকে ঢাকায় নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছি।’

তামিমের বাবা তারেক মাহমুদ বলেন, ‘বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আমার ছেলে তামিমের সুন্নতে খতনা করাতে জিম ক্লিনিকে নিয়ে যাই। এরপর ক্লিনিকের ডা. হাফেজ মাহফুজুর রহমান প্রাথমিক পর্যবেক্ষণের পর তাকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যান। একপর্যায়ে তিনি খতনা করতে গিয়ে আমার ছেলের পুরুষাঙ্গ কেটে ফেলেন। এতে তামিমের শরীর থেকে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হতে থাকে। অবস্থা খারাপ দেখে তামিমকে তাৎক্ষণিক গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার কথা বলেন চিকিৎসক। সেখানে শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে হেলিকপ্টারে তাকে দ্রুত ঢাকায় নেওয়া হয়।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জিম ক্লিনিকের চিকিৎসক মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘এটি নিছক একটি দুর্ঘটনা। এজন্য আমি দুঃখ প্রকাশ করছি।’

প্রিয় সংবাদ/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...