প্রতিকী ছবি

গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে সংসদে ক্ষোভ

পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে তিনি এমন ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ সময় ডেপুটি স্পিকার মো.ফজলে রাব্বি মিয়া বলেন, ‘বিষয়টি স্পিকারের বিবেচনাধীন রয়েছে। আলোচনা হয়নি বলে যে হবে না তা কিন্তু নয়।’

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১ জুলাই ২০১৯, ২২:৩৭ আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯, ১৬:২৭
প্রকাশিত: ১১ জুলাই ২০১৯, ২২:৩৭ আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯, ১৬:২৭


প্রতিকী ছবি

(প্রিয়.কম) গ্যাসের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়ে জাতীয় সংসদে আলোচনা না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন

১১ জুলাই, বৃহস্পতিবার সংসদ অধিবেশনে পয়েন্ট অব অর্ডারে দাঁড়িয়ে তিনি এমন ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ সময় ডেপুটি স্পিকার মো.ফজলে রাব্বি মিয়া বলেন, ‘বিষয়টি স্পিকারের বিবেচনাধীন রয়েছে। আলোচনা হয়নি বলে যে হবে না তা কিন্তু নয়।’

মেনন বলেন, ‘আমরা বকাউল্লা, আর উনারা শুনাউল্লা। আর এই সংসদ হচ্ছে গরিবউল্লাহ। এই নোটিশ যদি আলোচনা না হয় সংসদ আরও গরিবউল্লাহ হবে বলে আমার ধারণা। আমি এর আগে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে সংসদে ৬৮ বিধিতে একটি নোটিশ দিয়েছিলাম। সেদিন আপনি (ডেপুটি স্পিকার) বলেছিলেন নোটিশটি স্পিকারের বিবেচনাধীন রয়েছে। আজকে সংসদের শেষ দিন, এটি কার্য তালিকায় আসেনি। এটা কি বাতিল করা হয়েছে সেটাও জানতে পারিনি। কার্যপ্রণালী বিধির ৬৮ বিধি অনুযায়ী বিলটি জানার অধিকার আমার রয়েছে।’

গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির ঘোষণা

গত ৩০ জুন গ্যাসের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন(বিইআরসি)। ১ লা জুলাই থেকে নতুন দাম কার্যকর হয়। আবাসিক খাতে দুই চুলার খরচ ৮০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৯৭৫ টাকা, আর এক চুলার খরচ ৭৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৯২৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়।

প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের দাম ৭.৩৮ টাকা থেকে ২.৪২ টাকা বাড়িয়ে ৯.৪০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। গড়ে দাম বেড়েছে ৩২.০৮ শতাংশ। সিএনজি গ্যাসের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি ঘনমিটার ৪৩টাকা এবং বিদ্যুৎ ও সারের জন্য ৪.৪৫ টাকা। হোটেল রেস্তোরাঁয় প্রতি ঘনমিটার ২৩ টাকা, ক্যাপটিভ পাওয়ারে ১৩.৮৫ টাকা, শিল্প ও চা বাগানে ১০.৭০ টাকা, ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পে ১৭.০৪ টাকা।

মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে বিইআরসির সংবাদ সম্মেলন। ফাইল ছবি

এর আগের গ্যাসের দাম বাড়ানোর বিষয়ে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সেই গণশুনানির সিদ্ধান্তই জানানো হয়। এ বছর ফেব্রুয়ারি মাসে গ্যাসের দাম সমন্বয়ের জন্য প্রস্তাব করেছিল পেট্রোবাংলা ও গ্যাস বিতরণকারী কোম্পানিগুলো। এসব সংস্থা গ্যাসের দাম গড়ে ১০২ শতাংশ বৃদ্ধির প্রস্তাব করেছিল। আমদানি করা তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস বা এলএনজি জাতীয় গ্রিডে যোগ হওয়ার পর গ্যাসের ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে বলে তারা জানিয়েছিলেন।

বিইআরসির পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, গণশুনানি ও যৌক্তিকতা বিবেচনায় গ্যাসের দামের বিষয়টি নির্ধারণ করা হবে। তবে গ্যাসের দামের বিষয়টি অনেকাংশে নির্ভর করে এর ওপর সরকারের দেওয়া ভর্তুকির ওপরেও। এরপর গত ১১ থেকে ১৪ই মার্চ ওই প্রস্তাবের ওপর গণশুনানি করে বিইআরসি।

গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে বাম দলের হরতাল

গত ৭ জুলাই গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে সারা দেশে আধা-বেলা হরতালের কর্মসূচি পালন করে বাম গণতান্ত্রিক জোট (এলডিএ)। হরতাল কর্মসূচি পালন করতে জোটের নেতাকর্মীদের রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় পিকেটিং করতে দেখ যায়। আটটি বাম ঘরনার রাজনৈতিক দলের জোট এডিএর কর্মীদের সকাল ৯টার দিকে রাজধানীর পুরানা পল্টন মোড়ে একটি বাস থামিয়ে ভাঙচুর করতে দেখা যায়। ফলে সেই এলাকায় পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠে। পুলিশ দুইজন বিক্ষোভকারীকে আটক করলেও মিনিট দশেক পর তাদের ছেড়ে দেয়।

বামদলের হরতালে রাজধানী শাহবাগের চিত্র। ফাইল ছবি

আধা-বেলা হরতাল চলাকালে রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে যান চলাচল থামিয়ে অবস্থান নেয় হরতালকারীরা। সরকার গ্যাসের দাম অবৈধভাবে বাড়িয়ে দিয়েছে উল্লেখ করে জোটের নেতারা বলেন, এই মূল্যবৃদ্ধি সাধারণ মানুষের প্রতিদিনকার খরচ বাড়িয়ে দিবে এবং জনজীবনে দুর্ভোগ সৃষ্টি করবে। সারা দেশে ভোর ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত এই হরতাল কর্মসূচি পালন করেন তারা।

গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রজ্ঞাপন চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিট খারিজ

৯ জুলাই, মঙ্গলবার বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের বেঞ্চ গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রজ্ঞাপন চ্যালেঞ্জ করে দায়ের করা রিট খারিজ করে দেন।

রিটকারীর আইনজীবী ইউনুস আলী আকন্দ সাংবাদিকদের জানান, আদালত বলেছেন, রিটটি যথাযথভাবে আদালতে উপস্থাপন করা হয়নি মর্মে খারিজ করে দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ইকরামুল হক টুটুল বলেন, যথাযথ আইন মেনেই গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এখানে কোনো প্রকার আইন লঙ্ঘন করা হয়নি। আদালত আরও বলেছে, রিটটি যথাযথ হয়নি। এ কারণে রিট আবেদনটি খারিজ করে দেওয়া হয়েছে।

গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রজ্ঞাপন চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইউনুস আলী আকন্দ গত ৪ জুলাই রিটটি দায়ের করেন। আবেদনে বলা হয়, এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন আইনের ২২ ও ৩৪ ধারা লঙ্ঘন করে এ মূল্যবৃদ্ধি করেছে। এটা আইনের পরিপন্থী।

প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে যা বললেন

৮ জুলাই গণভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে সরকার উচ্চমূল্যে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানি করছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য গ্যাসের সাম্প্রতিক মূল্যবৃদ্ধি জনগণকে মেনে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। সরকারপ্রধান বলেন, প্রতি ঘনমিটার এলএনজি আমদানিতে ৬১.১২ টাকা ব্যয় হয়। কিন্তু ব্যাপক ভর্তুকি দিয়ে তা প্রতি ঘনমিটার মাত্র ৯.৮ টাকায় সরবরাহ করা হচ্ছে। গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির পরও ১০ হাজার কোটি টাকারও বেশি ভর্তুকি দিতে হচ্ছে।

গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে হরতালের আহ্বান জানিয়ে বামদলের মিছিল। ফাইল ছবি

 প্রিয় সংবাদ/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...