মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ছবি: সংগৃহীত

মাথা ব্যাথার কারণ সাইফউদ্দিনের চোট!

সাইফউদ্দিনে যে ধরনের চোটে ভুগছে সেটাকে বলা হয় লাম্বার স্পাইনের ফ্যাসেট জয়েন্ট সিনড্রোম।

সৌরভ মাহমুদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২২ জুলাই ২০১৯, ১০:১৭ আপডেট: ২২ জুলাই ২০১৯, ১০:১৭
প্রকাশিত: ২২ জুলাই ২০১৯, ১০:১৭ আপডেট: ২২ জুলাই ২০১৯, ১০:১৭


মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) বাংলাদেশ ক্রিকেটের ভবিষ্যত তারকাদের মধ্যে অন্যতম মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ওয়ানডে বিশ্বকাপের ১২তম আসরে ব্যাটে-বলে নিজের সামর্থ্যের প্রমাণ দিয়েছেন তরুণ এই পেস বোলিং অলরাউন্ডার। ছিলেন চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে হতে যাওয়া শ্রীলঙ্কা সফরের স্কোয়াডেও।

তবে চোটের কারণে শেষ মুহূর্তে শ্রীলঙ্কা সফরের দল থেকে ছিটকে গেছেন সাইফউদ্দিন। পিঠের চোটের কারণে শ্রীলঙ্কা সফরের দল থেকে ছিটকে পড়া এই পেসারকে প্রাথমিকভাবে তিন সপ্তাহ বিশ্রামে থাকতে হবে বলে জানিয়েছেন বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী।

তিন সপ্তাহ পর সাইফের অবস্থা বুঝে তারা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন। পাশাপাশি সাইফের জন্য তিন ধরনের চিকিৎসার কথা ভাবছেন বলেও জানিয়েছেন বিসিবির প্রধান চিকিৎসক।

আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজ থেকেই পিঠের চোটে ভুগছেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ওই সিরিজ ও  বিশ্বকাপে তিনি খেলেছেন ইনজেকশন নিয়ে। কথা ছিল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজেও খেলবেন। কিন্তু অনুশীলনে বোলিং করার সময় ব্যথা বেড়ে যাওয়ায় সেটা সম্ভব হয়নি।

সাইফউদ্দিনে যে ধরনের চোটে ভুগছে সেটাকে বলা হয় লাম্বার স্পাইনের ফ্যাসেট জয়েন্ট সিনড্রোম। বিসিবির চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরীর মতে, বোলারদের খুব সাধারণ চোট এটা। তবে  অস্ত্রোপচারে এই চোট ভালো হবে না। তবে  এই ইনজুরি সারানোর ৩টি উপায় জানিয়েছেন দেবাশীষ চৌধুরী।

বিসিবি চিকিৎসকের ভাষায়, ‘প্রথম উপায় হলো টেকনিক্যাল কারেকশন। এক্ষেত্রে বোলিং অ্যাকশনে পরিবর্তন আনতে হয়। কিন্তু একজন বোলারের পক্ষে এটা বেশ কঠিন। দ্বিতীয় উপায় হলো ইনজেকশন দেওয়া। এটাও ঝুঁকিপূর্ণ। কারণ বারবার ইনজেকশন দেয়াটা ক্ষতিকর।’

এ ছাড়া তৃতীয় চিকিৎসা হিসেবে রেডিওফ্রিকোয়েন্সি অ্যাব্লেশনের কথা বলেছেন দেবাশীষ চৌধুরী। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা রেডিওফ্রিকোয়েন্সি অ্যাব্লেশনের কথা ভাবছি। আমরা তার জন্য এমন একটা চিকিৎসার কথা চিন্তা করছি যেটাতে ক্ষতি কম হবে। আর দীর্ঘদিন ধরে ব্যথামুক্ত থাকা যাবে।’

চোটকে তোয়াক্কা না করে টানা ক্রিকেট খেলে যাওয়াই কাল হয়েছে সাইফউদ্দিনের জন্য বলে মনে করেন দেবাশীষ চৌধুরি। এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘১৩-১৪ বছরের কিশোর দ্রুতগতিতে বল করতে পারলে সবাই তার প্রশংসা করে, উৎসাহ দেয়। কিন্তু সেই সময়ে পেশিগুলো পরিণত হয় না, তাই এত জোরে বল করাও উচিৎ নয়। ইনজেকশন দিয়ে খেলা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব। তবে দীর্ঘদিন ধরে এটি প্রয়োগ করা উচিৎ নয়। এভাবে তার সেরে উঠতে সাত দিন লাগবে নাকি সাত মাস- আমরা জানি না। বিশ্বকাপের সময় দেওয়া ঠিক ছিল, কারণ তখন ব্যথা কমাটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল।’

চোটের কারণে শ্রীলঙ্কা সফরের দল থেকে বাদ পড়া সাইফউদ্দিন আপাতত তিন সপ্তাহের বিশ্রামে রয়েছেন। তার এই বিশ্রামের সময়েই নেওয়া হবে চোট সারানোর ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত।

প্রিয় খেলা/আশরাফ