সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এবং প্রিয়.কমের সিইও জাকারিয়া স্বপন।

বঙ্গবন্ধুকে নানাভাবে আবিষ্কার করা প্রয়োজন: আসাদুজ্জামান নূর

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রিয়.কমের সিইও জাকারিয়া স্বপন। তিনি জানান, ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত এই কুইজে অংশ নেওয়ার জন্য ১০ লাখ মানুষ রেজিস্ট্রেশন করেছেন। ১০ লাখের মধ্যে চার লাখ ৭৫ হাজার মানুষ কুইজটি খেলেছেন। কুইজগুলো খেলা হয়েছে ৩৫ লাখ বার। সামাজিক মাধ্যমে ৯৫ লাখ মানুষ মুজিব কুইজ সম্পর্কিত তথ্য দেখেছেন। প্রতিদিন প্রায় একলাখ মানুষ কুইজে অংশ নেন।

রাকিবুল হাসান
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারি ২০২১, ১৬:২৬ আপডেট: ১৫ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:৪৯
প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারি ২০২১, ১৬:২৬ আপডেট: ১৫ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:৪৯


সংসদ সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এবং প্রিয়.কমের সিইও জাকারিয়া স্বপন।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সুদূরপ্রসারী চিন্তা ও পরিকল্পনার অধিকারী যা বাঙালির জন্য অনুসরণীয়। এরজন্য বঙ্গবন্ধুকে পরিপূর্ণরূপে জানার মাধ্যমে আরও নানাভাবে আবিষ্কার করা প্রয়োজন বলে উল্লেখ করেছেন নীলফামারী-০২ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্রী অভিনেতা আসাদুজ্জামান নূর।

১৩ জানুয়ারি, বুধবার রাতে মুজিব কুইজের ‘শেয়ার করেও জিতুন’ লাইভ লটারির ৬ষ্ঠ পর্বে অতিথি হয়ে উপস্থিত থেকে এ মন্তব্য করেন তিনি। অনুষ্ঠানটি লাইভ হয় প্রিয়.কমের ফেসবুক ও ইউটিউব চ্যানেলে।

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, “বঙ্গবন্ধু একটি যুগের স্রষ্টা, দেশের জন্মদাতা। তার ধ্যান ধারণাগুলোকে আমাদের সঠিকভাবে ধারণ করতে হবে। বঙ্গবন্ধু আমাদের কাছে এখনো অনেকটাই অজানা রয়ে গেছে। তার প্রকাশিত গ্রন্থগুলো, পাকিস্তান আমলের গোপনীয় ডকুমেন্টসগুলো, তার সম্পর্কে বিভিন্ন দেশের আর্কাইভে বিভিন্ন তথ্য রয়েছে। আমাদের জন্য এই তথ্যগুলো পাওয়া খুব জরুরি। বঙ্গবন্ধুকে পরিপূর্ণভাবে আবিষ্কার করা আমাদের জাতির জন্য অবশ্য কর্তব্য।”

তিনি আরও বলেন, “নানান দিক থেকে নানান আলোকে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উপলক্ষ্যে তাকে আবিষ্কার করার প্রয়োজন রয়েছে। জন্মশতবর্ষ উপলক্ষ্যে অনেক ধরনের কাজ হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর উপরে অনেকভাবে আলোকপাত করা উচিত, তাকে আবিষ্কার করা উচিত, এতে আমরা তথা দেশের মানুষ উপকৃত হবে।”

অনুষ্ঠানে শিক্ষা জীবনের শুরু অর্থাৎ প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শিক্ষা ও সংস্কৃতির সমন্বয় ঘটাতে অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানান দেশবরেণ্য এই সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব।

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, “শিক্ষা জীবনের শুরু অর্থাৎ প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শিক্ষা ও সংস্কৃতির সমন্বয় ঘটাতে হবে। একটি শিশুকে বাংলা, ইংরেজি, অংকসহ অন্যান্য বিষয় শেখানো হচ্ছে, ঠিক সেভাবেই তাকে গান, নাঁচ, কবিতা আবৃতি, ছবি আঁকার পাশাপাশি খেলাধুলার সঙ্গে যুক্ত করতে হবে।”

“তারা যদি এসব কাজ করতে পারে তাদের মস্তিষ্ক অনেক বেশি শাণিত হবে। শুধুমাত্র ক্লাসের বইয়ের পাতার মধ্যে আটকে রাখলে একটি শিশুর মস্তিষ্ক ভোঁতা হয়ে যাবে। তাদের মস্তিষ্কে বাতাস লাগার সুযোগ দিতে হবে, তাকে খোলামেলা জীবন দিতে হবে। শিশুদের বিকশিত করার সুযোগ দিন, তাদের পছন্দের জীবনকে অগ্রাধিকার দেন।”, যোগ করেন তিনি।

সন্তানদের পছন্দ নয় কিন্তু অভিভাবকদের চাপে পড়ে অনেক ছেলেমেয়ের জীবন নষ্ট হয়ে গেছে বলেও মন্তব্য করেন সাবেক এই মন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে ‘শেয়ার করেও জিতুন’ লাইভ লটারির ৬ষ্ঠ পর্বে বিজয়ীদের সরাসরি তিনি ফোন করেন এবং তাদের সঙ্গে কথা বলেন।

৬০ হাজার ৮১৩ জন অংশগ্রহণকারী এক লাখ ২১ হাজার ৩৩ বার মুজিব কুইজ সংক্রান্ত পোস্ট শেয়ার করে এ পর্বে অংশ নেন। এদের মধ্যে ৭ জন বিজয়ী হন।

তারা হলেন- নেত্রকোনা থেকে অভি আহম্মেদ, টাঙ্গাইল থেকে শারমিন নীপা, ঢাকার সাভার থেকে সাহিদুর রহমান মিয়াজি, কুমিল্লা থেকে তৌফিক ওমর খান নাহিয়ান, নেত্রকোনা সদর থেকে মিজানুর রহমান মিজান, ঢাকার মোহাম্মদপুর থেকে ফাহাদ হোসাইন এবং কুমিল্লা থেকে আকাশ চৌধুরী।

ছবি: ‘শেয়ার করেও জিতুন’-এর ৬ষ্ঠ পর্বে বিজয়ীদের সঙ্গে ‘লাইভ লটারি’তে সাংসদ আসাদুজ্জামান নূর এবং প্রিয়.কমের সিইও জাকারিয়া স্বপন।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রিয়.কমের সিইও জাকারিয়া স্বপন। তিনি জানান, ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত এই কুইজে অংশ নেওয়ার জন্য ১০ লাখ মানুষ রেজিস্ট্রেশন করেছেন। ১০ লাখের মধ্যে চার লাখ ৭৫ হাজার মানুষ কুইজটি খেলেছেন। কুইজগুলো খেলা হয়েছে ৩৫ লাখ বার। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ৯৫ লাখ মানুষ মুজিব কুইজ সম্পর্কিত তথ্য দেখেছেন। প্রতিদিন প্রায় একলাখ মানুষ কুইজে অংশ নেন।

উল্লেখ্য, প্রতিদিনের কুইজের বিজয়ীর পাশাপাশি কুইজটি যারা ফেসবুকে শেয়ার (https://quiz.priyo.com/share-n-win/) করছেন, তাদেরকে নিয়ে প্রতি সপ্তাহের শেষে লটারি করে ৭ জন বিজয়ী নির্বাচিত করা হয়। যারা প্রতিদিনের কুইজ বা কুইজ সংশ্লিষ্ট যেকোনো কিছু ফেসবুকে শেয়ার করবেন, তাদেরকে নিয়েই সপ্তাহ শেষে এ লটারি হয়। বিজয়ীদের জন্য প্রতি সপ্তাহেই থাকে বিভিন্ন ধরনের আকর্ষণীয় উপহার।

কুইজে অংশ নিতে https://mujib100.gov.bd অথবা https://quiz.priyo.com ওয়েবসাইট অথবা প্রিয় অ্যাপ (ডাউনলোড লিংক https://dl.priyo.com) এর যেকোনো একটি মাধ্যমে নিবন্ধন করে অংশ নিতে হবে। একজন প্রতিযোগী একটি আইডি দিয়ে প্রতিটি কুইজে একবার অংশগ্রহণ করতে পারবেন। প্রত্যেক প্রতিযোগীকে নাম, ঠিকানা, ছবি, ফোন নাম্বার, ইমেইল/সোশ্যাল মিডিয়া আইডি ব্যবহার করতে হবে, যা বিজয়ীদের ক্ষেত্রে তাদের জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্মনিবন্ধন সনদের সঙ্গে যাচাই করা হবে। একজন প্রতিযোগীকে একবার নিবন্ধন করলেই চলবে। পূর্বে নিবন্ধন করে থাকলে নতুন করে নিবন্ধনের প্রয়োজন নেই। ভুল তথ্য দিয়ে অংশগ্রহণ করলে তাকে পরবর্তীতে অযোগ্য বিবেচনা করা হবে। প্রতিযোগিতায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্মের উপর এমসিকিউ পদ্ধতিতে প্রশ্ন থাকছে।

প্রতিদিন একটি নতুন কুইজ দেওয়া হয় এবং কুইজের মেয়াদ ২৪ ঘণ্টা (০০:০১ মিনিট হতে ২৩:৫৯ মিনিট পর্যন্ত)। প্রতিদিন সঠিক উত্তরদাতাদের মধ্যে থেকে লটারির মাধ্যমে ১০০ জন বিজয়ীর সবাই পাবেন ১০০ জিবি করে মোবাইল ডাটা এবং তাদের মধ্যে প্রথম ৫ জন পাবেন স্মার্টফোন। এ ছাড়া পুরো প্রতিযোগিতায় গ্রান্ড প্রাইজ হিসেবে থাকবে মোট ১০০টি ল্যাপটপ।বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় এ অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে- জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদ্‌যাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি। সহায়তা করছে- শিক্ষা মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন। কুইজটির স্ট্র্যাটেজিক পার্টনার- তথ্য মন্ত্রণালয়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। আর এটির বাস্তবায়ন সহযোগী প্রিয়.কম।

এছাড়াও এ আয়োজনে সার্বিকভাবে আছে দারাজ বাংলাদেশ, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনাইটেড গ্রুপ ও টেলিটক বাংলাদেশ।