পাকিস্তানি সৈন্যদের আত্মসমর্পণ। ফাইল ছবি

যুদ্ধাপরাধী ২৬১ পাকিস্তানি সৈন্যের তালিকা প্রকাশ

৩ আগস্ট ঢাকা রিপোর্টোস ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে একটি কমিটি এই তালিকা প্রকাশ করেছে। ওই তালিকায় পাকিস্তানের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের নামও রয়েছে।

জাহিদুল ইসলাম জন
জ্যেষ্ঠ সহ-সম্পাদক, নিউজ এন্ড কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স
প্রকাশিত: ০৩ আগস্ট ২০১৭, ১৬:৪৩ আপডেট: ১৭ আগস্ট ২০১৮, ০৪:৪৮
প্রকাশিত: ০৩ আগস্ট ২০১৭, ১৬:৪৩ আপডেট: ১৭ আগস্ট ২০১৮, ০৪:৪৮


পাকিস্তানি সৈন্যদের আত্মসমর্পণ। ফাইল ছবি

(প্রিয়.কম) ১৯৭১ সালে মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীর ২৬১ জন কর্মকর্তার নামের তালিকা প্রকাশ করেছে বাংলাদেশের একটি নাগরিক কমিটি। 

৩ আগস্ট ঢাকা রিপোর্টোস ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে ‘আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ গণবিচার আন্দোলন’ নামে একটি কমিটি এই তালিকা প্রকাশ করেছে। ওই তালিকায় পাকিস্তানের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের নামও রয়েছে। তবে এই তালিকায় আারও নাম যোগ হতে পারে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

‘পাকিস্তানি যুদ্ধাপরাধী সেনা কর্মকর্তাদের অপরাধের তথ্য-উপাত্তের প্রাথমিক রিপোর্ট প্রকাশ’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন অনুসন্ধান কমিটির আহ্বায়ক মাহবুব উদ্দিন আহমদ (বীর বিক্রম)। 

তিনি বলেন, ‘পাকিস্তান সরকার গঠিত হামুদুর রহমান কমিশনের রিপোর্টেই এই ২৬১ জনের বিরুদ্ধে ব্যাপক অপরাধের প্রমাণ পাওয়া যায়। এদের মধ্যে ৪৩ জন রয়েছেন সিনিয়র পাকিস্তানি কর্মকর্তা। এদরে মধ্যে জেনারেল, মেজর জেনারেল, ব্রিগেডিয়ার, লেফটেন্যান্ট কর্নেল ছাড়াও দু’জন বেসমারিক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাও রয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে নৌমন্ত্রী শাজাহান খান।

সংবাদ সম্মেলনে নৌমন্ত্রী শাজাহান খান। ছবি: ফোকাস বাংলা  

‘যুদ্ধাপরাধ গণবিচার আন্দোলন’ নামের ওই নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক নৌমন্ত্রী শাহজাহান খান। তিনি বলেন, ‘এই কমিটির মাধ্যমে আমরা ২১ দফা কর্মপরিকল্পনা পেশ করেছিলাম। এর মধ্যে তিনটি বাস্তবায়ন করতে পেরেছি।’ 

তিনি জানান, এই তালিকা এখন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থার কাছে হস্তান্তর করা হবে। তারা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন।

তালিকায় থাকা উল্লেখযোগ্য নাম

জেনারেল আগা মোহাম্মদ ইয়াহিয়া খান, জেনারেল আব্দুল হামিদ খান, লে. জেনারেল পীরজাদা, লে. জেনারেল আমির আবদুল্লাহ খান নিয়াজি, লে. জে টিক্কা খান, লে. জেনারেল গুল হাসান খান, মেজর জেনারেল রাও ফরমান আলী, মেজর জেনারেল আবু বকর ওসমান আলী, মেজর জেনারেল খুদাদাদ খান, মেজর জেনারেল খাদিম হোসেন রাজা, আবদুল রহিম খান, মেজর জেনারেল নজর হুসেইন শাহ, মেজর জেনারেল শওকত রেজা, মেজর জেনারেল মোহাম্মদ হুসেইন আনসারি, মেজর জেনারেল মোহাম্মদ জামশেদ, মেজর জেনারেল, কাজী আবদুল মজিদ খান, মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আকবর, মেজর জেনারেল ইফতিখার জানজুয়া, মেজর জেনারেল গোলাম উমর, ব্রিগেডিয়ার গোলাম জিরলানি খান, ব্রিগেডিয়ার জাহানজেব আরবাব, ব্রিগেডিয়ার রহীম আহমদ, ব্রিগেডিয়ার মোহাম্মদ সফি, ব্রিগেডিয়ার ইকবাল শফি, ব্রিগেডিয়ার আবদুল কাদির খান, ব্রিগেডিয়ার আরিফ রাজা, ব্রিগেডিয়ার আতা মুহাম্মদ খান মালিক, ব্রিগেডিয়ার বশির আহমেদ, ব্রিগেডিয়ার ফাহিম আহমেদ খান, ব্রিগেডিয়ার ইফতেখার আহমেদ রানা, ব্রিগেডিয়ার মনজুর আহমেদ, ব্রিগেডিয়ার শেখ মঞ্জুর হোসাইন আতিক, ব্রিগেডিয়ার মিয়া মনসুর মুহাম্মদ, ব্রিগেডিয়ার মিয়া তাসকিন উদ্দিন, ব্রিগেডিয়ার মীর আবদুল নাইম, ব্রিগেডিয়ার মুহম্মাদ আসলাম নিয়াজি, ব্রিগেডিয়ার মোহাম্মদ হায়াত এস জে, ব্রিগেডিয়ার এন এ আশরাফ, ব্রিগেডিয়ার এস এ আনসারি, ব্রিগেডিয়ার সাদুল্লাহ খান এস জে, ব্রিগেডিয়ার সৈয়দ আসগর হাসান, ব্রিগেডিয়ার সৈয়দ শাহ আবদুল কাসিম, ব্রিগেডিয়ার তাজমাল হুসেইন মালিক, ব্রিগেডিয়ার জি এম বাকির সিদ্দিকী, ব্রিগেডিয়ার আবদুল্লাহ মালিক, ব্রিগেডিয়ার শেরুল্লাহ বেগ, ব্রিগেডিয়ার হেসকি বেগ ও ব্রিগেডিয়ার গোলাম মোহাম্মদ প্রমুখ।

প্রিয় সংবাদ/শান্ত   

 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...