মা-বাবা ও বোনদের সঙ্গে ব্রুক ডেভিস। ছবি: সংগৃহীত

সন্তান প্রসবে মাকে সাহায্য করল ৮ বছরের শিশু

তিন বছর বয়স থেকেই মাকে অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় দেখে আসছে সে। কিন্তু তিনবার মায়ের গর্ভপাত হওয়ার কারণে ভাই বা বোনের দেখা সে পায়নি। এবার মায়ের প্রসবে সাহায্য করে অভূতপূর্ব নজির সৃষ্টি করল ছোট্ট ব্রুক।

শামীমা সীমা
সহ সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৮:১৪ আপডেট: ১৮ আগস্ট ২০১৮, ০৯:০০
প্রকাশিত: ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৮:১৪ আপডেট: ১৮ আগস্ট ২০১৮, ০৯:০০


মা-বাবা ও বোনদের সঙ্গে ব্রুক ডেভিস। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) বড় বোন হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে বেড়ে উঠছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্রুক ডেভিস। তিন বছর বয়স থেকেই মাকে অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় দেখে আসছে সে। কিন্তু তিনবার মায়ের গর্ভপাত হওয়ার কারণে ভাই বা বোনের দেখা সে পায়নি। এবার সন্তান প্রসবে মাকে সাহায্য করেছে ছোট্ট ব্রুক।

ব্রুকের মা ২৯ বছর বয়সী কেলসি ডেভিস তিন সন্তানের জননী। তিনবার সন্তান নেওয়ার চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার পর আট বছর বয়সী মেয়ে ব্রুকের সাহায্যে তিনি একটি কন্যা সন্তান জন্ম দেন সম্প্রতি। ব্রুকের এই অভূতপূর্ব উদ্যোগের কথা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেছেন কেলসি।

কেলসি জানিয়েছেন, পাঁচ বছর আগে তিনি ও তার স্বামী স্টেফান প্রথমবার ব্রুককে বলেন, তার একটি ভাই বা বোন আসতে চলেছে। কিন্তু কেলসির গর্ভপাত হয় এবং এরপর আরও দুটি সন্তান নষ্ট হয়ে যায়। এবার কেলসি অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর ব্রুককে সে তথ্য জানানো হয়নি। কারণ আবারও সন্তান নষ্ট হলে সে কষ্ট পাবে ভেবে কথাটি মেয়ের কাছ থেকে লুকিয়ে রাখা হয়।

২০১৬ সালে ব্রুকের বোন এলির জন্ম হয়। এলির জন্মের সময় ব্রুক বেশ উচ্ছ্বসিত হয়ে আবদার করে, সে তার মায়ের সঙ্গে অপারেশন থিয়েটারে থাকতে চায়।

একবছর পর কেলসি জানতে পারেন, তিনি আবারও অন্তঃসত্ত্বা। আগ্রহ নিয়ে এ কথা কেলসি তার কন্যা ব্রুককে জানান। কিন্তু সংবাদটি শুনে আনন্দে কাঁদতে শুরু করে ব্রুক। ব্রুকের কান্নার কারণ জিজ্ঞেস করতেই সে জানায়, ভয় কিংবা আতঙ্কে নয় বরং আনন্দে কেঁদে ফেলেছে সে। এরপর সে মায়ের যত্ন নেওয়া শুরু করে। আসন্ন শিশুকে জন্ম দিতে মাকে সাহায্য করতে চায় সে।

ব্রুক তার বোনের নাম রাখে সামার। সামার জন্মের ৩৬ ঘণ্টা আগে থেকে সে মায়ের সঙ্গেই ছিল ব্রুক। কেলসি যখন প্রসব যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছিলেন, তখন তার পা ও মাথা টিপে দিয়ে যন্ত্রণা লাঘবের চেষ্টা করে যাচ্ছিল ব্রুক। মাকে পানি দিচ্ছিল। পুরোটা সময় মায়ের পাশে থাকে। সামারের জন্মের পর সে আবেগপ্রবণ হয়ে বাবার কোলে কান্নায় ভেঙে পড়ে।

কেলসি জানান, ব্রুক এখন স্বাভাবিক। তার মধ্যে ভাই-বোন হারানোর সেই আতঙ্ক, শোক ও ভয় আর নেই। ব্রুক নিঃসন্দেহে প্রথিবীর সেরা বড় বোন। দুই বোনের দায়িত্ব সে একাই পালন করে। এই ঘটনার মাধ্যমে অনেক কিছু শিখতে পেরে ব্রুক অনেকটাই আনন্দিত।

সূত্র: পিপল