(প্রিয়.কম) এ সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের নামকরা ডিপার্টমেন্ট স্টোর রিটেইল চেইন মেসিস, ডিলার্ডস, কোলস এবং জেসিপেনির মোট শেয়ার ছিল মাত্র ১৫ শতাংশ। কদিন আগেই এ কোম্পানিগুলো তাদের প্রান্তিক বিক্রির নিন্মগামিতার কথা জানিয়েছিল। দেশটিতে মধ্যবিত্ত শ্রেনি কমার প্রভাবেই এসব হচ্ছে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। 

এসব রিটেইলারে বিনিয়োগকারীরা ইতোমধ্যেই যেসব ইঙ্গিত দিচ্ছেন তাতে বোঝা যাচ্ছে, মধ্যবিত্তদের টার্গেট করে দীর্ঘদিন ধরে এসব রিটেইলারগুলো যে ব্যবসা করেছে, এখন অার সেই দিন নেই।

বিনিয়োগকারীরা এখন বরং ওয়ালমার্ট, অ্যামাজন কিংবা টিজেড ম্যাক্সের মতো প্রতিষ্ঠানগুলোর দিকে বেশি ঝুঁকে পড়ছে, যারা ভিন্ন ক্রেতা গ্রুপকে টার্গেট করে আসছে। 

বরাবরই যুক্তরাষ্ট্রের অধিকাংশ রেটেইলারগুলোর প্রধান টার্গেট ছিল মধ্যবিত্ত শ্রেণি।

রিটেইল ইন্ডাষ্ট্রি বিশেষজ্ঞ ডাগ স্টিফেন্স চলতি বছরের শুরুর দিকে বিজনেস ইনসাইডারকে বলেছিলেন, ‘দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে ১৯৭০-এর দশকের শেষভাগ পর্যন্ত কোম্পানিগুলো মিড-টায়ার রিটেইলার (কোম্পানির আকার ও গুরুত্ব অনুসারে মাঝামাঝি পর্যায়ে) হতে চাইত। সবাই তখন এভাবেই উন্নতি করছিল। কিন্তু ১৯৮০ সালের পর থেকে এমন সবগুলো রিটেইলারের অবস্থানই নড়ে গেল কারণ তখন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবিত্ত শ্রেণি হারিয়ে যেতে শুরু করেছে, এমন চিত্র পরিষ্কার হয়ে উঠছিল।’

তীব্র অর্থনৈতিক মন্দার পর মাঝারি আকারের রিটেইলারগুলো আরও কিছু সমস্যার মুখে পড়ল। ভোক্তারা বেশি অর্থ খরচ করা কমিয়ে দিলো এবং একই সাথে পোশাক ও অন্যান্য আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র কেনার পেছনে কম অর্থ ব্যয় করা শুরু করল তারা।

মানুষ জিনিসপত্র কেনার পেছনে অর্থ ব্যয় না করে সে অর্থ অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ ও রেস্টুরেন্টে ব্যয় করছে। একই সাথে মানুষ এখন অতিরিক্ত খরচ এড়িয়ে সে অর্থ প্রযুক্তি ও স্বাস্থ্যসেবার পেছনে ব্যয় করছে।

ক্রেতাদের শপিং অভ্যাস যেমন পরিবর্তন হচ্ছে, একই সাথে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবিত্ত শ্রেণিও হ্রাস পাচ্ছে। পিউ রিসার্স সেন্টারের এক জরিপে দেখা গেছে, ২০০০ সাল থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ২২৯ টি মেট্রোপলিটন এলাকার মধ্যে অন্তত ২০৩ টি মেট্রোপলিটন এলাকায় মধ্যবিত্তের সংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। 

এ কারণে যুক্তরাষ্ট্রের বড় বড় ও ডিসকাউন্ট রিটেইলারগুলো উন্নতি করছে, কিন্তু মধ্যবিত্ত শ্রেণিকে টার্গেটকারী মেসিস, সিয়ার্স এবং জেসিপেনির মতো রিটেইলারগুলো তাদের শত শত স্টোর বন্ধ করে দিতে বাধ্য হচ্ছে।  

সূত্র: বিজনেস ইনসাইডার

প্রিয় বিজনেস/মিজান