সংগৃহীত ছবি

‘ইহুদিদের টাকায় এদেশে আন্দোলন করেছে নাস্তিকরা’

‘দুই দলের মধ্যে আস্থাহীনতা এই পর্যায়ে পৌঁছেছে যে তারা এখন সবাই সবার মৃত্যু কামনা করছে। একদল বাঘের পিঠে সওয়ার হয়েছে। নামতেই এখন ভয় পাচ্ছে। আরেক দল বাঘের পেছনে উঠতে চাচ্ছে।’

সজিব ঘোষ
সহ-সম্পাদক, নিউজ এন্ড কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স
প্রকাশিত: ০৮ জুলাই ২০১৭, ১৮:১০ আপডেট: ১৯ আগস্ট ২০১৮, ১৬:০০
প্রকাশিত: ০৮ জুলাই ২০১৭, ১৮:১০ আপডেট: ১৯ আগস্ট ২০১৮, ১৬:০০


সংগৃহীত ছবি

(প্রিয়.কম) ইহুদিদের টাকায় এদেশে বাম এবং নাস্তিকরা আন্দোলন করেছে বলে মন্তব্য করেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশিদ। তিনি বলেন, ‘ইসলামকে রাষ্ট্রধর্ম করার কারণে ইহুদিরা মনক্ষুণ্ন হয়েছিল। তাদের টাকায় বামরা আন্দোলন করেছে। ষড়যন্ত্রের কারণে এরশাদকে ক্ষমতা ছাড়তে হয়েছিল।’

৮ জুলাই শনিবার দুপুরে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনে বাংলাদেশ ইসলামিক ফ্রন্টের বর্ধিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন। ইসলামিক ফ্রন্ট এরশাদের নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত জাতীয় জোটের প্রধান শরিক।

কাজী ফিরোজ রশিদ বলেন, ‘রাজনীতির খেলা আবার জমে উঠেছে। বিএনপি বিদেশি খেলোয়ার ভাড়া করায় ব্যস্ত। অন্যদিকে, আওয়ামী লীগ রাম-বাম-নাস্তিকদের নিয়ে আবার দল গোছাচ্ছেন। কিন্তু আওয়ামী লীগের নৌকায় এখন এতো বাম-নাস্তিক আর হাইব্রিড নেতা, তারা নৌকা তীরে ভেড়াতে পারবে কি না আমার সন্দেহ আছে।’

ঢাকা থেকে নির্বাচিত জাতীয় পার্টির এই সংসদ সদস্য বলেন, ‘দুই দলের মধ্যে আস্থাহীনতা এই পর্যায়ে পৌঁছেছে যে তারা এখন সবাই সবার মৃত্যু কামনা করছে। একদল বাঘের পিঠে সওয়ার হয়েছে। নামতেই এখন ভয় পাচ্ছে। আরেক দল বাঘের পেছনে উঠতে চাচ্ছে।’

ফিরোজ রশিদ বলেন, ‘এই দুই দল দেশকে জাহান্নামে নিয়ে গিয়েছে। এখন খবরের কাগজ খুললেই খুন আর গুম। এরশাদের সময় দেশে কোনো গুম ছিল না। যারা কথায় কথা চেতনা আর মুক্তিযুদ্ধের কথা বলেন, তারা এ নিয়ে কিছু বলছেন না। শাহবাগে এখন আর কেউ মোমবাতি জ্বালাচ্ছে না। পুলিশ-র‌্যাব না থাকলে তাদের মোমবাতি জনগণ উড়িয়ে দিবে।’

বাংলাদেশ ইসলামিক ফ্রন্টের চেয়ারম্যান আল্লামা এম এ মান্নানের সভাপতিত্বে বর্ধিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন দলের মহাসচিব আল্লামা এম এ মতিন, প্রেসিডিয়াম সদস্য আলহাজ্জ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী হারুন, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা অধ্যক্ষ এম এ মতিন ও পীরে তরিকত নঈম উদ্দিন আল কাদরী। 

প্রিয় সংবাদ/শান্ত 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...