(প্রিয়.কম) বিশ্বজুড়ে সমালোচনার তীর এখন ছুটছে শান্তিতে নোবেলজয়ী অং সান সুচির দিকে। রাখাইন অঞ্চলে রোহিঙ্গাদের ওপর চলমান সহিংসতায় তার অবস্থান ধোঁয়াশাপূর্ণ অভিহিত করে নোবেল পুরস্কার ফিরিয়ে নেওয়ার দাবিও উঠেছে জোরেশোরে। এমনটাই বলা হয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স-এর এক প্রতিবেদনে।

৭ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার একটি টিভি সাক্ষাৎকারে রাখাইনের সমস্যা নিয়ে কথা বলেছেন অং সান সুচি। তিনি বলেন, ‘মিয়ানমারের সহিংসতাপূর্ণ রাজ্য রাখাইনে প্রত্যেককে রক্ষার জন্য সরকার তার সামর্থ্য অনুযায়ী সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে।’

রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা ও নিপীড়নের মধ্যে প্রতিদিন হাজার হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢুকছে। জাতিসংঘের দেওয়া তথ্যমতে, সংঘাত শুরুর পর থেকে ৬ সেপ্টেম্বর বুধবার পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে প্রায় এক লাখ ৪৬ হাজার রোহিঙ্গা মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে ঢুকেছে। এর সংখ্যা বেড়ে প্রায় ৩ লাখের কাছাকাছি পৌঁছাতে পারে বলেও আশাঙ্কা প্রকাশ করেছে সংস্থাটি

এশিয়ান নিউজ ইন্টারন্যাশনালের সঙ্গে আলাপের সময় সুচি আরও বলেন, ‘আমাদের নাগরিকদের দেখভাল আমাদের করতে হবে, যারা আমাদের দেশে আছে তাদের প্রত্যেকের দেখভাল আমাদের করতে হবে, তারা আমাদের নাগরিক হোক বা নাই হোক।’

নিজেদের সম্পদের সীমাবদ্ধতা তুলে ধরে মিয়ানমারের এই স্টেট কাউন্সিলর বলেন, ‘আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি, যাতে সবাই আইনের সুরক্ষা পায়।’ এ সময় শান্তিতে নোবেলজয়ী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের এই নেতা রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে পালিয়ে আসার বিষয়ে টুঁ শব্দটি পর্যন্ত করেননি। 

বার্তা সংস্থার খবরে বলা হচ্ছে, রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের শিকার হয়ে রাখাইন থেকে এ পর্যন্ত দেড় লাখেরও বেশি মুসলিম রোহিঙ্গা সীমান্ত পার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এ ছাড়া নাফ নদী পার হয়ে বাংলাদেশে আসতে গিয়ে এ পর্যন্ত নারী-শিশুসহ ৮৫ জনের করুণ মৃত্যু হয়েছে।

সূত্র: রয়টার্স

প্রিয় সংবাদ/শান্ত