(প্রিয়.কম) অমর একুশে বইমেলায় বই বিক্রির টাকা পরিশোধে বাংলা একাডেমির করপোরেট চুক্তি বঙ্গবন্ধু-কন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অপমান করার শামিল বলে মন্তব্য করেছেন অধ্যাপক ড. সাজ্জাদ হোসেন। তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার হাতে ডিজিটাল বাংলাদেশ তৈরি হয়েছে। সেই প্রেক্ষাপটে অনলাইন ব্যবহারের সুযোগ বাড়ছে। সেই সুযোগ যদি আমরা ব্যবহার না করি, তাহলে আমরা পিছিয়ে যাব। দেশ পিছয়ে যাবে।’

১২ ফেব্রুয়ারি সোমবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতির কক্ষের সামনে প্রিয়.কম-এর সঙ্গে কথা বলার সময় এ মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া বাংলা একাডেমি। আমাদের প্রাণের মেলা, অমর একুশে বইমেলা। এ মেলার বই ক্রয় বিক্রয়ে নগদ ও বিকাশের মাধ্যমে টাকা পরিশোধ করতে যে চুক্তি করেছে বাংলা একাডেমি, তা পাঠক সমাজের সঙ্গে অহযোগিতামূলক আচরণ করা হয়েছে।’

বইমেলা উপলক্ষে বিকাশের সঙ্গে এক চুক্তি করে বাংলা একাডেমি। চুক্তি অনুযায়ী, বই কিনতে হলে নগদ বা বিকাশে মূল্য পরিশোধ করতে হবে। এর বাইরে অনলাইন বা অন্য কোনোভাবে মূল্য পরিশোধ করা যাবে না। এ নিয়ে শুরু থেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করছিলেন প্রকাশক ও পাঠকরা। অনলাইনে অর্থ লেনদেনকারী প্রতিষ্ঠান আইপে সিস্টেমস লিমিটেডের মাধ্যমে অর্থ পরিশোধের সুযোগ থাকলেও বাধা দেয় বাংলা একাডেমি। পরে আইপের পক্ষে এ বিষয়ে উচ্চ আদালতে রিট করেন ড. সাজ্জাদ হোসেন।

সাজ্জাদ হোসাইন বলেন, ‘বাংলা একাডেমির এ চুক্তির মাধ্যমে সম্পূর্ণ বিক্রি হয়ে যায় একটি করপোরেট ওয়ার্ল্ডের কাছে। এখানে সবারই একটি সুযোগ থাকা উচিত। আমরা বই কিনতে সঙ্গে টাকা নিয়ে যাব, না কি বই কিনে কোনো অনলাইন সিস্টেমে টাকা পরিশোধ করব? এটি সুষ্পষ্ট করতেই হাইকোর্টে এসেছি। এবং আদালতের কাছে প্রত্যাশিত ফলাফল পেয়েছি।’

‘আমরা আর কারও কাছে বন্দী হয়ে থাকতে চাই না। একটি স্বাধীন দেশে বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া বাংলা একাডেমি এ রকম একটি চুক্তি করেছে যেটি আমার কাছে ন্যাক্কারজনক মনে হয়েছে’, যোগ করেন তিনি।

অধ্যাপক সাজ্জাদ বলেন, ‘আমার স্বাধীনতা, আমার বই কেনার সুযোগ থাকবে না—তা হবে না।’ 

‘আমরা মনে করি বাংলা একাডেমির এমন করপোরেট চুক্তি করা ঠিক হয়নি। পাঠকরা বই কিনবে এবং নিজের সুবিধা অনুযায়ী টাকা পরিশোধ করবে। সেটা নগদ বা অনলাইনে হতে পারে। ডিজিটাল বাংলাদেশের কল্যাণে এখন অনলাইনে পরিশোধ অনেকটাই নিরাপদ নগদ টাকার চাইতে।অনলাইন পরিশোধের জন্য মেলায় অ্যাপভিত্তিক আইপেসহ অনেক প্রতিষ্ঠান আছে। যেগুলোর মাধ্যমে গ্রাহকরা তাদের অর্থ পরিশোধ করতে পারবেন। কিন্তু বাংলা একাডেমি বইমেলায় বই কেনার পর টাকা পরিশোধ করতে শুধু বিকাশ ও নগদে পরিশোধের ব্যবস্থা করেছে। এটি খুবেই বাজে সিস্টেম। তাহলে ডিজিটাল বাংলাদেশ করে লাভ হলো কী?’ প্রশ্ন রাখেন সাজ্জাদ হোসেন।

 

আদালতে সাজ্জাদ হোসেন। ছবি: প্রিয়.কম

বিজ্ঞান বিষয়ক এই লেখক বলেন, ‘আমাদের প্রাণের মেলা, বায়ান্নোর ভাষা আন্দোলনের শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে এই মেলার আয়োজন করা হয়। বাংলা একাডেমির মতো প্রতিষ্ঠানের সবাইকে সহযোগিতা করা উচিত। আমার অনেক ছাত্র, পরিজন-সুধীজন, বন্ধু-বান্ধব আছেন তারা আমার বই কিনবে টাকা পরশোধ করবে অনলাইনের মাধ্যমে। সেখানে সকল অনলাইনের সুযোগ দেওয়া উচিত। কিন্তু তা না করে শুধু বিকাশ আর নগদে টাকা পরিশোধের জন্য যে চুক্তি করেছে বাংলা এডাডেমি তা অসহযোগিতামূলক আচরণ।’

ড. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ‘আমরা চাই এ মেলাটা সুন্দরভাবে চলুক। আমরা চাই যার যার খুশিমতো পেমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে বই কিনে তার অর্থ পরিশোধ করুক। আমি সবাই বই কিনতে আহবান জানাই। সবাই আসুন বই কিনুন। পেমেন্ট করুন বিভিন্ন অনলাইন সিস্টম অনুসরণ করে।’

তিনি জানান, তার লেখা বই ‘অদৃশ্য প্রযুক্তি’ পাওয়া যাচ্ছে। এবারের বইমেলায় ‘একটি ভাষণ একটি দেশ’ নামে তার বন্ধু রাসেল আশেকীরও একটি বই বের হয়েছে।

 

প্রিয় সংবাদ/রিমন