(প্রিয়.কম) বৃষ্টির কারণে ম্যাচের দৈর্ঘ্য ৫০ ওভার থেকে নেমে আসে ৩২ ওভারে। আগের দুই ম্যাচে জয় পাওয়া বাংলাদেশকে ১৮৮ রানের লক্ষ্য দেয় ভারত অনূর্ধ্ব-১৯ দল। মালয়েশিয়ায় চলমান যুব এশিয়া কাপে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে বাংলাদেশ এই লক্ষ্য ছুঁয়েছে হাতে আট উইকেট ও চার ওভার রেখে। নিজেদের সবগুলো ম্যাচ জিতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সাইফ হাসান-আফিফ হোসেন ধ্রুবরা পা রেখেছে যুব এশিয়া কাপের সেমিফাইনালে।

রয়েল সেলানগর ক্লাবে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৩৭ রানেই দুই ওপেনারকে হারায় ভারত। শুরুর দিকে নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ভারতকে চাপে রাখেন নাঈম হাসান-রবিউল ইসলামরা। মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় ১৮৭ রানের বড় সংগ্রহ পায় ভারত। তবে বাংলাদেশি যুবাদের ব্যাটিংয়ে এই লক্ষ্য বড় মনে হয়নি। দুই উইকেট হারিয়েই  লক্ষ্য পেরিয়ে যায় যায় বাংলাদেশ। 

১৮৮ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে উড়ন্ত সূচনা হয় বাংলাদেশের। দুই ওপেনার পিনাক ঘোষ ও নাইম শেখ গড়েন ৮২ রানের জুটি। নাইমকে ফিরিয়ে বড় হয়ে ওঠা এই জুটি ভাঙেন মনদ্বীপ সিং। ২৬ রানের ব্যবধানে অধিনায়ক সাইফ হাসানকেও প্যাভিলিয়নের রাস্তা দেখান ডানহাতি এই পেসার। সাইফের বিদায়ের পর উইকেটে গিয়েই তাণ্ডব চালান আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান তাওহীদ হৃদয়। ম্যাচের ২৮তম ওভারে দুই ছয় ও এক চার হাঁকিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন তিনি। ৩২ বলে ৪৮ রান করেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। ৮১ রানে অপরাজিত থাকেন পিনাক ঘোষ।

আগে ব্যাট করতে নামা ভারতের হয়ে ৩৪ রান করেন অনুজ রাওয়াত। টপ অর্ডারের প্রথম তিন ব্যাটসম্যান ব্যর্থ হলে দলের হাল ধরেন তিনি। শেষদিকে সালমান খানের ৩৯ ও টেল এন্ডারদের ছোট ছোট ইনিংসে লড়াকু সংগ্রহ পায় ভারত। দুটি করে উইকেট পেয়েছেন নাইম ও আফিফ হোসেন ধ্রুব। সর্বোচ্চ তিন উইকেট নেন রবিউল।

বৃহস্পতিবার প্রথম সেমিফাইনালে বিগ্রুপের রানার আপ পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ। শুক্রবার দ্বিতীয় সেমিফাইনালে আফগানিস্তানের প্রতিপক্ষ নেপাল। 

প্রিয় স্পোর্টস/শান্ত মাহমুদ