(প্রিয়.কম) প্রজেরিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে মুখের ও শরীরের চামড়া ঝুলে বৃদ্ধের মতো দেখতে মাগুরার পাঁচ বছর বয়সী শিশু বায়োজিদ গতকাল ১১ ডিসেম্বর সোমবার সন্ধ্যায় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছে।

বায়েজিদের দাদা জানান, ১০ ডিসেম্বর রোববার রাত সাড়ে ১২টার দিকে তার অসুস্থতার মাত্রা বেড়ে গেলে তাকে দ্রুত মাগুরা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। পরবর্তীতে অবস্থার আরও অবনতি হলে ভোর সাড়ে ৫টার দিকে তাকে ফরিদপুর মেডিকেলে নেওয়া হয় ও সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে সে মারা যায়।

মাগুরা সদর হাসপাতালে কর্মরত মিডিসিন কনসালটেন্ট দেবাশিষ বিশ্বাস রোববার রাতে এ বিষয়ে জানান, পুরুষাঙ্গের চামড়া বেড়ে তার প্রসাবের রাস্তা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। এছাড়া শরীরে আরও অনেক সমস্যা প্রকট হয়েছিল। যা তার অবস্থার ক্রম অবনতি ঘটিয়েছে। 

আজ ১২ ডিসেম্বর মঙ্গলবার সকালে মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার খালিয়া নিজ গ্রামে বায়োজিদের দাফন সম্পন্ন হবে।

উল্লেখ্য মাতৃগর্ভ থেকেই ঢিলেঢালা চর্মগত সমস্যা নিয়ে জন্ম নিয়েছিল বায়েজিদ। জন্মের কিছুদিন পরই বয়স্ক মুখে রূপান্তরিত হয় তার মুখাবয়ব। এছাড়া বয়স্ক মানুষের মতোই তার কন্ঠ শোনাতো ও ঝুলে যায় শরীরের চামড়া। মাগুরা সদর হাসপাতালের চিকিৎসকরা এটিকে ক্রোমোজমজনিত সমস্যা উল্লেখ করে প্রজেরিয়া নামে এক ধরনের অসুখকে কারণ হিসাবে উল্লেখ করেন। পরে সরকারী খরচে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য জিনেটিক স্টাডির গুরুত্বের উল্লেখ করে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়।

চিকিৎসকের পরামর্শে গত বছরের জুন মাসে বায়েজিদকে নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যান তার পরিবার। সেখানকার চিকিৎসকদের ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী ওষুধ খেয়ে বেশ কিছুদিন মোটামুটি সুস্থ ছিল বায়েজিদ। পরবর্তিতে চলতি বছরের মার্চ মাস থেকে সে ক্রমশ অসুস্থ হয়ে শয্যাশায়ী হয়ে পড়ে। ৩ মাস আগে চিকিৎসার জন্য আরও এক দফা তাকে ঢাকায় নেয়া হয় কিন্তু ফল হয়নি।

প্রিয় সংবাদ/আশরাফ