গুজবে বেক্সিমকোর শেয়ারে ঊর্ধ্বগতি

বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের সঙ্গে এই প্রতিষ্ঠানের অংশীদারিত্ব রয়েছে, এমন গুজব ছড়ানোর পরপরই শেয়ারে এই পরিবর্তন এসেছে।

ফারজানা মাহাবুবা
সহ-সম্পাদক
১৬ এপ্রিল ২০১৮, সময় - ১০:০৭

বেক্সিমকোর শেয়ারের ঊর্ধ্বগতির গ্রাফ। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) বেক্সিমকো লিমিটেডের শেয়ারের মূল্য ১০ কার্য দিবসে প্রায় ৪০ শতাংশ বেড়েছে। বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের সঙ্গে এই প্রতিষ্ঠানের অংশীদারিত্ব রয়েছে এমন গুজব ছড়ানোর পরপরই শেয়ারে এই পরিবর্তন এসেছে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের বরাত দিয়ে ডেইলি স্টারের খবরে বলা হয়, গত ২৮ মার্চ বেক্সিমকোর প্রতি শেয়ারের মূল্য ছিল ২২ টাকা যা ১১ এপ্রিল বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩১ টাকা। আর গত সাত দিনে প্রতিষ্ঠানটি টার্নওভার চার্টের শীর্ষে রয়েছে।

১ এপ্রিল থেকে ১৫ এপ্রিলের মধ্যে বেক্সিমকোর ১২.২৪ কোটি টাকার শেয়ার ডিএসইতে হাতবদল হয়েছে। যার বাজারদর ৩৭৪.৮৭ কোটি টাকা।

তবে গত ৮ এপ্রিল বেক্সিমকোর শেয়ার দর এই অস্বাভাবিক হারে বাড়ার কারণ অনুসন্ধানে ডিএসই কর্তৃপক্ষ তদন্তের আলোকে প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, শেয়ার দর বাড়ার মতো অপ্রকাশিত কোন মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই। 

সম্প্রতি নিউইয়র্কের বাংলাদেশ কনস্যুলেটে আয়োজিত বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) এক সংবাদ সম্মেলনকে কেন্দ্র করে এক গুজবের সৃষ্টি হয়। বিভিন্ন গণমাধ্যমের উপস্থিতিতে সেখানে জানানো হয়, স্যাটেলাইট সিগন্যাল ফ্রিকোয়েন্সি বরাদ্দের দায়িত্বে থাকবে দুটি প্রতিষ্ঠান। বেক্সিমকো গ্রুপ ও বায়ার মিডিয়া টিভি চ্যানেল ফ্রিকোয়েন্সি বরাদ্দ ও সিগন্যাল বিকিকিনির পুরো ব্যবসায়িক দিকটি উপভোগ করবে। এদের ছাড়া অন্য কোনো কোম্পানি এখানে ডিটিএস প্রযুক্তির ব্যবসায় নামতে পারবে না।

তবে এ বিষয়ে বেক্সিমকো ডেইলি স্টারকে জানিয়েছে, প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের কোন সম্পর্ক নেই, এটি সম্পূর্ণ সরকারের মালিকানাধীন।

ব্রোকারেজ হাউসগুলোর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে, অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির পেছনে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের অসঙ্গতিপূর্ণ গুজব ছড়িয়ে পড়াকে কারণ হিসেবে অভিহিত করা হয়। 

বেক্সিমকো ১৯৮৯ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। প্রতিষ্ঠানটি বর্তমানে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে অবস্থান করছে। ২০১৭ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত সমাপ্ত হিসাব বছরে প্রতিষ্ঠানটি পাঁচ শতাংশ নগদ ও পাঁচ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছে।

ওই সময় শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে এক টাকা ২৯ পয়সা এবং শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য (এনএভি) হয়েছে ৭৬ টাকা ২৫ পয়সা। ওই সময় কর-পরবর্তী মুনাফা করেছে ১০২ কোটি ৬২ লাখ ১০ হাজার টাকা। ৩০ জুন ২০১৬ পর্যন্ত সমাপ্ত ১৮ মাসে ১৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ দিয়েছে।

বেক্সিমকো গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি খাত বিষয়ক উন্নয়ন উপদেষ্টা। 

প্রিয় সংবাদদ/গোরা 

জনপ্রিয়
আরো পড়ুন