(প্রিয়.কম) ছোটবেলায় নানা দখিল উদ্দিনের কাছ থেকে শুনতেন মুক্তিযুদ্ধের গল্প। মুক্তিযুদ্ধের সেই গৌরবগাঁথাই দেশসেবার স্বপ্ন দেখতে উদ্বুদ্ধ করে পাপিয়াকে। যোগ দেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশে (বিজিবি)। আর বাহিনীটির ইতিহাসে নারীদের যোগ দেওয়ার পর তৃতীয়বারেই সেরা সৈনিক নির্বাচিত হয়েছেন কুষ্টিয়ার এই নারী।

কুষ্টিয়ার জেলখানা মোড়ের পিয়ারাতলা গ্রামের কৃষক আব্দুল ওহাব আর গৃহিণী লাভলী আক্তার দম্পতির মেয়ে পাপিয়া আক্তার। এই দম্পতির বড় মেয়ে পাপিয়া বিজিবিতে যোগ দেওয়ার আগে কুষ্টিয়া সরকারি কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে অনার্সে ভর্তি হয়েছিলেন। তার ছোট ভাই তাজমির হোসেন পিয়াস ৮ম শ্রেণির ছাত্র।

বিজিবির ৯০ তম রিক্রুট ব্যাচের প্রশিক্ষণে যোগ দেওয়া ৪৩৩ জনের মধ্যে সব বিষয়ে সেরা নির্বাচিত হয়েছেন পাপিয়া আক্তার। সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক প্রতিক্রিয়ায় এই সৈনিক জানিয়েছেন তার প্রত্যয়ের কথা। বলেছেন, ‘আমার মাধ্যমে যদি দেশের এক টুকরো মাটি রক্ষিত হয় তাতেই আমি গর্বিত। জীবন দিয়ে হলেও দেশ রক্ষায় আমি সর্বদা প্রস্তুত থাকব।’

গতকাল ১৬ জুলাই চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার বায়তুল ইজ্জত এ অনুষ্ঠিত সমাপনী কুচকাওয়াজে পুরস্কৃত হন এই নারী। তিনি বলেন, ‘এই প্রশিক্ষণে সিনিয়রদের কথা মনোযোগ দিয়ে শুনেছি, চেষ্টা করেছি। এই শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ ব্যবহার করে দেশের জন্য ভালো কিছু করতে পারলেই আমি নিজেকে গর্বিত মনে করব।

প্রিয় সংবাদ/শান্ত