(প্রিয়.কম) দলে নেই তারকা ক্রিকেটারের ছড়াছড়ি, নামডাক ওয়ালা বিদেশি ক্রিকেটারদেরও দেখা যাচ্ছে না চিটাগং ভাইকিংসে। ঘরের ছেলে তামিম ইকবাল এবার নাম লিখিয়েছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সে। তবুও শিরোপার দৌড়ে টিকে থাকার লড়াইয়ে আত্মবিশ্বাসী চিটাগং। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) আগের দুই আসরে একই দলের হয়ে খেলা এনামুল হক বিজয়ের কণ্ঠেও থাকল সাধারণ দল নিয়েই লড়াই করার প্রত্যয়।

বিপিএলের পঞ্চম আসর মাঠে গড়াবে আগামী চার নভেম্বর। গত দুই আসরে ভালো দল গড়েও চিটাগং ছিটকে পড়েছে শিরোপার লড়াই থেকে। পুরনো সেই দুঃখ এবার ভুলতে চান উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান বিজয়। অনুশীলনে নামার আগে সংবাদ মাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘গত দুইবার খুব ভালো একটা দল ছিল আমাদের। তবুও আমরা শিরোপা জিততে পারিনি। এবার চেষ্টা থাকবে সবাই মিলে চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইট দেওয়ার।’

তারুণ্য নির্ভর এক দল গড়েছে চিটাগং। আইকন ক্রিকেটার হিসেবে খেলবেন জাতীয় দলের বাঁহাতি ওপেনার সৌম্য সরকার। এ ছাড়াও আছেন তাসকিন আহমেদ, সানজামুল ইসলাম, আল আমিন জুনিয়র, নাঈম হাসানের মতো তরুণ ক্রিকেটাররা। বিদেশিদের তালিকায় আছেন লুক রনচি, জীবন মেন্ডিস, সিকান্দার রাজারা।

অভিজ্ঞতা ও শক্তির বিচারে বাকি দলগুলো থেকে পিছিয়ে থাকলেও লড়াই করার জন্য মানসিকভাবে তৈরি চিটাগং। বিজয় বলেন, ‘প্রত্যাশা আসলে ভাল খেলা। বিপিএল দেশি কিংবা বিদেশি খেলোয়াড়দের জন্য দারুণ একটা মঞ্চ। আমাদের চেষ্টা থাকবে ভালো কিছু করার। দলগতভাবে চিন্তা থাকবে ফাইনাল খেলার। সবাইকে ভালো ক্রিকেটও উপহার দিতে চাই।’

প্রতি বছরই কিছু তরুণ ক্রিকেটারদের তুলে আনে বিপিএল। সেখানে দেশি তরুণ ক্রিকেটারদের জন্য কঠিন চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে বলে দাবি করেছেন দীর্ঘদিন ধরে জাতীয় দলের বাইরে থাকা বিজয়। বলেন, ‘স্থানীয়দের জন্য অবশ্যই চ্যালেঞ্জ হবে। একেকটা দলে জাতীয় দলের চার-পাঁচজন ক্রিকেটার থাকেই। যারা জাতীয় দলে খেলেনি তাদের মধ্যে থেকে দুই একজন হয়তো সুযোগ পাবে। সবকিছু মিলিয়ে দেশি খেলোয়াড়দের জন্য এবার কঠিন পরিস্থিতি অপেক্ষা করছে।’

চার টেস্ট, ৩০ ওয়ানডে ও ১৩ টি-টোয়েন্টি খেলা বিজয়ের ব্যক্তিগত লক্ষ্য বিপিএলে নিজেকে প্রমাণ করা, ‘এটা আমার জন্য অনেক বড় একটা চ্যালেঞ্জ। আগের বছর ভালো খেলেছিলাম। এবার ভালো কিছু করে দলকে কিছু দিতে পারলে ভালো লাগবে। ১২টা ম্যাচ আছে গ্রুপপর্বে। সবগুলো ম্যাচেই সুযোগ আছে নিজেকে প্রমাণ করার।’

প্রিয় স্পোর্টস/কামরুল