বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ফাইল ছবি

আইন কী বলে?

আদালত মনে করলে তাদের পছন্দ মতো মেডিকেল টিম গঠন করে দিবেন। তারপর চিকিৎসার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দেবেন আদালত

আমিনুল ইসলাম মল্লিক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১ এপ্রিল ২০১৮, ১৩:২৩ আপডেট: ১৯ আগস্ট ২০১৮, ১৭:৪৮


বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ফাইল ছবি

(প্রিয়.কম) জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে থাকা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ‘অসুস্থ’। বিএনপি ও কারা কর্তৃপক্ষ এমনটাই দাবি করেছে। এখন তার চিকিৎসা কোথায় করানো হবে তা নিয়ে চলছে নানামুখী কথাবার্তা।

বিএনপি চিকিৎসার জন্য জামিনের দাবি করছে। আর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনে দেশের বাইরে পাঠানো হবে।’

এ বিষয়ে আইন কী বলে? -এই প্রশ্নের উত্তর জানতে সুপ্রিম কোর্টের বিশিষ্ট কয়েজন আইনজীবীর সঙ্গে কথা হয় প্রিয়.কমের।

জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এবিএম নুরুল ইসলাম প্রিয়.কমকে বলেন,‘বাংলাদেশের আদালতের আদেশ অনুযায়ী খালেদা জিয়া দেশের ভেতরে বন্দি আছেন। তাকে চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যেতে হলে আদালতের অনুমতি লাগবে। এবং এটিই হলো ভদ্রতা। আদালতের অনুমতির পাশাপাশি সরকারেরও অনুমতি নিতে হবে। কারণ পাসপোর্ট ও ভিসার ক্ষেত্রে সরকারের হাত রয়েছে।’

‘কারো বিরুদ্ধ মামলা চলমান থাকলে তিনি আদালতে নিয়ন্ত্রণে থাকেন। এ জন্য বিচার চলমান অবস্থায় দেশের বাইরে যাওয়ার প্রয়োজন হলে খালেদা জিয়াকে আদালতের অনুমতি নিয়ে দেশের বাইরে যেতে হবে,’ বলেন নুরুল ইসলাম। 

খালেদা জিয়ার আইনজীবী আমিনুল ইসলাম প্রিয়.কমকে বলেন, ‘বিধান অনুযায়ী কারান্তরীণ কোনো আসামি জামিন ছাড়া দেশের বাইরে চিকিৎসার জন্য যেতে পারবেন না।’

আমিনুল বলেন, ‘দেশের বাইরে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার প্রয়োজন হলে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ থেকে খালেদা জিয়াকে জামিন নিতে হবে ‘

‘খালেদা জিয়া অসুস্থ এ জন্য তার চিকিৎসার প্রয়োজন আছে। চিকিৎসার জন্য কারা কর্তৃপক্ষ উদ্যোগ নেবে।প্রয়োজনে মেডিকেল টিম গঠন করবে। মেডিকেল টিম বিধান অনুযায়ী ঢাকা মেডিকেল, পিজি হাসপাতালসহ বিশেষায়িত হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা করাতে পারবে। খালেদা জিয়ার জামিনের বিষয়টি যেহেতু আপিল বিভাগে বিচারাধীন, তাই দেশের বাইরে যাওয়ার প্রয়োজন হলে তাকে আপিল বিভাগের অনুমতি নিতে হবে,’  বলেন আমিনুল।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে ওবায়দু্ল কাদেরের মন্তব্য অযৌক্তিক বলে দাবি করেন এই আইনজীবী। তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে নিতে হলে সরকারের দুইটি কাজ করতে হবে। প্রথমত, তাকে যে দেশে নেওয়া হবে সেই দেশের সরকার প্রধানের অনুমতি লাগবে। দ্বিতীয়ত, তার নিরাপত্তার বিষয়ে চিন্তা করতে হবে। বিমান ভাড়ার সকল খরচ সরকারকে বহন করতে হবে। যেহেতু খালেদা জিয়া আদালতের রায়ে কারাগারে রয়েছেন, তাই তাকে আদালতের অনুমতি নিয়ে দেশের বাইরে যেতে হবে। সরকারের এখানে কোনো হাত নেই।’ 

জানতে চাইলে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ফজলুর রহমান খান প্রিয়.কমকে বলেন, ‘খালেদা জিয়া যেহেতু আদালতের রায়ে কারাগারে, তাই দেশের বাইরে যেতে হলে তাকে কারাগারের অনুমতি বা জামিন নিতে হবে। আইন অনুযায়ী, সরকার তাকে দেশের বাইরে নিতে পারেন না।’ 
ফজলুর রহমান বলেন, ‘সরকার কোর্টের বিষয়ে হস্তক্ষেপ করতে পারে না। ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান একরাম হত্যা মামলার অন্যতম আসামি বিএনপি নেতা মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী মিনার কারাগারে থাকা অবস্থায় অসুস্থ ছিলেন। তিনি চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যেতে অনেক চেষ্টা করেছেন। কিন্তু আদালত তাকে অনুমতি দেয়নি, জামিন দেয়নি এ জন্য দেশের বাইরে চিকিৎসার জন্য যেতে পারেননি।’  

রাষ্ট্রপক্ষের এই আইনজীবী আরও বলেন, ‘খালেদার চিকিৎসকরা মেডিকেল টিম গঠন করে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করবেন। মেডিকেল টিমের প্রতিবেদন অনুযায়ী চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যাওয়ার প্রয়োজন হলে আদালতের অনুমতি নিয়ে দেশের বাইরে যাওয়া যাবে। আদালত মনে করলে তাদের পছন্দ মতো মেডিকেল টিম গঠন করে দিবেন। তারপর চিকিৎসার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দেবেন আদালত। সরকারের এখানে হাত নেই।’
প্রিয় সংবাদ/মহিউদ্দিন /রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
আমলনামার ভিত্তিতেই নির্বাচনে মনোনয়ন: ওবায়দুল
জানিবুল হক হিরা ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
চাকরি স্থায়ী হচ্ছে কারিগরির ৩০০ শিক্ষকের
প্রিয় ডেস্ক ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
১০ দিন বয়সী নবজাতকের লাশ পুকুরে
মো. ইমাম জাফর ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন পুনর্বিবেচনার দাবি টিআইবির
জানিবুল হক হিরা ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
স্পন্সরড কনটেন্ট
ট্রেন্ডিং