(প্রিয়.কম) সিলেটে শুরু হয়েছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পঞ্চম আসরে। উদ্বোধনী ম্যাচে সিলেট সিক্সার্সের বিপক্ষে মাঠে নামে  ঢাকা ডায়নামাইটস। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে সাত উইকেটে ১৩৬ রান করেছে গেল আসরের চ্যাম্পিয়নরা। সিলেটের বোলারদের তোপে তারকা সমৃদ্ধ দল নিয়েও সংগ্রাম করতে দেখা গেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের।

টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্তটা যথার্থ প্রমাণ করার জন্য সিলেট সিক্সার্সের অধিনায়ক নাসির হোসেন বেছে নেন প্রথম ওভারকে। প্রথম ওভারের শেষ বলে মেহেদী মারুফকে ফেরান এই অফস্পিনার। দ্বিতীয় উইকেটে ৫৪ রানের জুটি গড়ে শুরুর এই ধাক্কা সামলান ঢাকার দুই বিদেশি ক্রিকেটার এভিন লুইস ও কুমার সাঙ্গাকারা। বড় হতে থাকা এই জুটিতে ছন্দপতন হয় নাসিরের স্পিন ঘূর্ণিতে। ২৪ বলে তিন চার ও এক ছয়ে ২৬ রান করে নাসিরের বলে সাজঘরে ফেরেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান লুইস। চার ওভার বলে করে ২১ রান দিয়ে দুই উইকেট নেন নাসির।

এর ঠিক দশ রান পর সাঙ্গাকারাকে ফেরান লিয়াম প্ল্যাঙ্কেট। ডানহাতি এই ইংলিশ পেসারকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে মিড অফে ক্যাচ দেন সাঙ্গাকারা। ২৪ বলে ৩২ রান করেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। আবারও দশ রানের ব্যবধানে উইকেট হারায় ঢাকা। এবার সাকিবের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউটের শিকার হন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

সতীর্থদের আসা যাওয়ার মিছিলে সিঙ্গেল-ডাবলসে ভর করে রানের চাকা সচল রাখার চেষ্টা করেন সাকিব। তাতে একটু গতি পায় ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যান কাইরন পোলার্ড যোগ দেওয়ার পর। ক্রিসমার সান্টোকিকে ছয় মেরে তার ইঙ্গিতও দেন ডানহাতি এই মারকুটে ব্যাটসম্যান। আবুল হাসানকে লং অফের উপর দিয়ে উড়িয়ে মারতে গিয়ে নাসিরের হাতে ক্যাচ দেন তিনি।

দলীয় রান যখন ১১৪ তখন ডাউন দ্য ট্র্যাকে প্ল্যাঙ্কেটকে মারতে যান সাকিব। ঠিক ব্যাটে বলে না হওয়ায় বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান মিড অফে ক্যাচ দেন সিলেটের আইকন ক্রিকেটার সাব্বির রহমানের হাতে। ২১ বলে ২৩ রান করে সাজঘরে ফেরেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। ১১৯ রানের মাথায় আদিল রাশিদকে ফিরিয়ে নিজের দ্বিতীয় উইকেট তুলে নেন সিলেটের লোকাল বয় আবুল হাসান।

দুটি করে উইকেট পেয়েছেন আবুল হোসেন ও প্ল্যাঙ্কেট। চার ওভার বলে করে যথাক্রমে ২০ ও ২৪ রান দিয়েছেন তারা। তিন ওভার বল করে ২৭ রান দিয়েও উইকেটশুণ্য থেকেছেন শুভাগত হোম। সান্টোকি সর্বোচ্চ ৩৬ রান দিয়েও উইকেট পাননি।  

প্রিয় স্পোর্টস/ শোভন