পানি বেড়ে যাওয়ায় নৌকা দিয়ে চলাচল করছেন সিলেটের লোকজন। ছবি: সংগৃহীত

সিলেটে টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

সারী নদীর পানি স্বাভাবিকের চেয়ে বিপদসীমার দশমিক ৫৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

শেখ নোমান
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ১৩ জুন ২০১৮, ১৯:৫৫ আপডেট: ১৮ আগস্ট ২০১৮, ০৮:৪৮


পানি বেড়ে যাওয়ায় নৌকা দিয়ে চলাচল করছেন সিলেটের লোকজন। ছবি: সংগৃহীত

(ইউএনবি) সিলেটের জৈন্তাপুর উপজেলায় মঙ্গলবার থেকে টানা বর্ষণ ও ভারতের মেঘালয় রাজ্য থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট আকস্মিক বন্যায় উপজেলার সীমান্তঘেষা ইউনিয়ন নিজপাট, জৈন্তাপুর ও চারিকাটা ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

সারী নদীর পানি স্বাভাবিকের চেয়ে বিপদসীমার দশমিক ৫৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আকস্মিক পাহাড়ি ঢলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চলের পরিবারগুলো। সবচেয়ে বেশি ক্ষতির শিকার হয়েছে নিম্ন আয়ের দিনমজুর ও শ্রমিক পরিবারগুলো।

পাহাড়ি ঢলের ফলে তাদের পরিবারগুলোতে ঈদের আনন্দ ম্লান হয়ে পড়েছে। কোনোভাবে নিম্ন আয়ের মানুষেরা পবিত্র ঈদুল ফিতর পালনের প্রস্তুতি নিলেও আকস্মিক বন্যায় বাড়ি-ঘর তলিয়ে যাওয়ার কারণে তাদের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। ঈদ আনন্দ থেকে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। 

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সীমান্তবর্তী তিনটি ইউনিয়নের পানিবন্দী পরিবারগুলোর মধ্যে ইফতার সামগ্রী কিংবা শুকনো খাবার উপজেলা প্রশাসন থেকে সরবরাহ করা হয়নি।

বন্যায় আটকে পড়া পরিবারের লোকজনকে নিজ উদ্যোগে নৌকা অথবা ভেলায় করে ইফতার সামগ্রী সংগ্রহ করতে বাজারের দিকে ছুটে আসতে দেখা যায়। বন্যায় ক্ষয়ক্ষতি ও পরিবারগুলোর খোঁজখবর নিতে বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিদর্শন করেন জনপ্রতিনিধিরা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিরা। 

প্রিয় সংবাদ/শান্ত 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
রাজধানীতে ৪০৯টি ঈদ জামাত
আবু আজাদ ১৯ আগস্ট ২০১৮
শিক্ষার্থীদের জামিন মিললেও শঙ্কায় অভিভাবকরা
আমিনুল ইসলাম মল্লিক ১৯ আগস্ট ২০১৮
গুজব-মিথ্যাচার শক্ত হাতে দমন করা হবে: ইনু
জানিবুল হক হিরা ১৯ আগস্ট ২০১৮
ট্রেন্ডিং