ছবি সংগৃহীত

পানির নিচে কৃষকের স্বপ্ন

এখন পর্যন্ত জেলায় ২৩ হাজার ২৭০ হেক্টর জমির ফসলহানি হয়েছে।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ০৮ এপ্রিল ২০১৭, ০৩:৪১ আপডেট: ১৯ আগস্ট ২০১৮, ০২:৪৯
প্রকাশিত: ০৮ এপ্রিল ২০১৭, ০৩:৪১ আপডেট: ১৯ আগস্ট ২০১৮, ০২:৪৯


ছবি সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) কিশোরগঞ্জের হাওরজুড়ে এখন কেবলই হাহাকার। ফসল হারানোর শোকে ঘরে ঘরে কান্না। চৈত্রের টানাবর্ষণ আর পাহাড়ি ঢলে সর্বস্বান্ত লাখো কৃষক। প্রত্যন্ত হাওরের তিন উপজেলা ইটনা, অষ্টগ্রাম ও মিঠামইনের বেশিরভাগ ফসলের মাঠই এখন পানির নিচে। 

৮ এপ্রিল শনিবার দৈনিক মানবজমিনে প্রকাশিত ‘পানির নিচে কৃষকের স্বপ্ন’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

কৃষকের ঘাম ঝরানো ফসলের মাঠে বিস্তীর্ণ জলরাশি। কোথাও বুক পরিমাণ আবার কোথাওবা তার চেয়ে বেশি। হাওরজুড়ে থাকা সবুজ ফসলের মাঠ সপ্তাহের ব্যবধানে উধাও হয়ে গেছে। চোখের সামনে জমির কাঁচা ধান তলিয়ে যাওয়ার দুঃসহ দৃশ্য দেখে বুক চাপড়াচ্ছেন কৃষক। অনেকেই একমাত্র ফসল হারিয়ে বাকরুদ্ধ। ধান পাকার আগেই এমন ফসলহানির শিকার নিকট অতীতে আর হননি হাওরবাসী।

জেলা কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত জেলায় ২৩ হাজার ২৭০ হেক্টর জমির ফসলহানি হয়েছে।

প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ইটনা, অষ্টগ্রাম ও মিঠামইন এই তিন উপজেলায় মোট আবাদি জমির পরিমাণ ছিল ৬৮ হাজার ১৭৭ হেক্টর। এর মধ্যে অষ্টগ্রাম উপজেলায় সর্বোচ্চ ১১ হাজার ৯৬৫ হেক্টর, ইটনায় ৫ হাজার ৮০ হেক্টর ও মিঠামইনে ৪ হাজার ৮৪০ হেক্টর জমি তলিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

তবে স্থানীয় কৃষকেরা কৃষি বিভাগের এই হিসাব মানছেন না। তারা বলছেন, ক্ষতির পরিমাণ আরো অনেক বেশি। ইটনা, অষ্টগ্রাম ও মিঠামইন এই তিনটি উপজেলায় আবাদি জমির বেশিরভাগই তলিয়ে গেছে। সে হিসাবে অন্তত এখন ৪০ হাজার হেক্টর জমির ফসলহানি হয়েছে। এসব জমিতে উৎপাদিত হতো অন্তত ৮০ লাখ মণ ধান, যার প্রাথমিক মূল্য পাঁচশ কোটি টাকারও বেশি।

এ ছাড়া তলিয়ে যাওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে এখন পর্যন্ত অক্ষত হাওরগুলোও। কৃষকেরা নিজ উদ্যোগে এসব হাওরের বাঁধে মাটি ফেলে ফসল রক্ষার শেষ চেষ্টা করে চলেছেন। শুক্রবার আবহাওয়া তুলনামূলক ভালো থাকলেও পানি কমেনি। এ পরিস্থিতিতে কৃষক ফসলহানির আশঙ্কা থেকে আধাপাকা ধান কাটা শুরু করে দিয়েছেন। তবে শ্রমিক সংকটের কারণে এসব ধান কাটতে গিয়েও বিপাকে রয়েছেন কৃষক।

প্রিয় সংবাদ/ইতি/কামরুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...