সংগৃহীত ছবি

(প্রিয়.কম) সুনামগঞ্জে হাওরের বিষাক্ত পানিতে মাছের ব্যাপক ক্ষতি হওয়ার পর এবার হাঁসের মড়ক লেগেছে। সম্প্রতি পাহাড়ি ঢলে ফসলরক্ষা বাঁধ ভেঙে ১৪০টি হাওরের বোরো ধান তলিয়ে গেছে। ধান গাছ পচে সৃষ্টি হওয়া অ্যামোনিয়া গ্যাসে ফসল, মাছ ও হাঁসের ক্ষতির মুখে পড়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন হাওড়াঞ্চলের কৃষকরা।

২০ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সময় টিভি’র এক প্রতিবেদনে এ সব তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মাছের মড়ক সামলে উঠতে না উঠতেই গৃহপালিত হাঁস মরতে শুরু করেছে সুনামগঞ্জের হাওর এলাকায়। মৎস্য বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত ২০টি হাওরে ৪৩ মেট্রিক টন মাছ মারা গেছে। স্থানীয়রা জানান, মাছ মরার পর থেকে পানির রং পাল্টে গেছে। এই পচা পানি এবং মাছ খেলে হাঁসও মরতে শুরু করেছে। এতে পুরো এলাকায় দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়েছে।

তবে, হাঁসের মৃত্যুর কারণ জানতে নমুনা সংগ্রহ করে সিলেটে পাঠানোর কথা জানিয়েছেন জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. বেলাল হাসান।আর সুনামগঞ্জের হাওরে ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণের অনিয়মের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন দুদকের উপ-পরিচালক মো. আব্দুর রহিম।

উল্লেখ্য, জেলায় এবার পাঁচ লাখ ৫২ হাজার ৯০৯ একর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছিল। সম্প্রতি পাহাড়ি ঢলে ফসলরক্ষা বাঁধ ভেঙে ১৪০টি হাওরের বোরো ধান তলিয়ে গেছে। কৃষকদের দাবি, জেলা ৯০ শতাংশ বোরো ধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে কৃষি অফিস বলছে, ক্ষতির পরিমাণ প্রায় তিন লাখ একর।

এ ঘটনায় ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠায় ১৫ এপ্রিল শনিবার পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) সুনামগঞ্জ কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী আফসার উদ্দিনকে প্রত্যাহার করে পাউবোর প্রধান কার্যালয়ে সংযুক্ত করা হয়েছে।

প্রিয় সংবাদ/শিরিন/মিজান