ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সে প্রায় ২০ বছর ধরে অস্থায়ী (ক্যাজুয়াল) হিসেবে কর্মরত রয়েছে প্রায় ১৪শ’ শ্রমিক। বিমানের শ্রমিক সংগঠন সিবিএ’র অবহেলায় বছরের পর বছর এসব শ্রমিক বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 

এ পদে কর্মরত একজন শ্রমিক দিন হাজিরায় ৫০০ টাকা মজুরি পান। ছুটিতে বা কর্মস্থলে হাজির না থাকলে কোনো মজুরি নেই। স্থায়ী শ্রমিকদের মতো নেই কোনো সুযোগ-সুবিধাও। তবে অস্থায়ী হলেও স্থায়ী শ্রমিকদের চেয়ে তাদের কাজ বেশি। এছাড়া দিন হাজিরা স্থায়ী শ্রমিকদের মতো ব্যাংক থেকে তুলতে হয়। 

অস্থায়ী শ্রমিকদের অভিযোগ, বিমানের শ্রমিক সংগঠন সিবিএ নেতাদের আশ্বাসে স্থায়ী পদের জন্য কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মামলা কিংবা আন্দোলন করেননি তারা। অথচ আদালতে মামলা ও আন্দোলন করে ১৪শ’ সিভিল এভিয়েশন কর্মী স্থায়ী পদে যোগ দিতে পেরেছেন। 

সম্প্রতি বিমানের কর্মচারীদের অত্যাবশ্যকীয় ঘোষণা দিয়ে শ্রম মন্ত্রণালয় গেজেট প্রকাশ করেছে। বিমানের সব ধরনের সেবাকে জরুরি ঘোষণা করা হয়। এত কিছুর পরও সিবিএ নেতারা বলছেন, অস্থায়ী শ্রমিকদের স্থায়ীকরণ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা অব্যাহত রয়েছে। 

তারা জানান, বিমান থেকে তাদের তিন বছরের জন্য আইডি কার্ড দেওয়া হলেও চাকরি স্থায়ীকরণে কর্তৃপক্ষের কোনো গরজ নিই। এ নিয়ে অস্থায়ী শ্রমিকদের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে ক্ষোভ। বাংলা নববর্ষে স্থায়ী শ্রমিকরা বৈশাখী ভাতা পেলেও অস্থায়ী শ্রমিকদের ভাগ্যে কিছুই  

অস্থায়ী শ্রমিকদের এসব অভিযোগ মানতে রাজি নন সিবিএ নেতারা। সিবিএ সভাপতি মুশিকুর রহমান বলেন, বিমানের ১৪শ’ অস্থায়ী শ্রমিকের স্থায়ীকরণ বিষয়ে বিমান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা অব্যাহত রয়েছে। জনবল কাঠামো পাস হলে স্থায়ী পদ পাবেন অস্থায়ী এসব শ্রমিক। 

সূত্র: সমকাল  

প্রিয় সংবাদ/ ইতি /মিজান