(প্রিয়.কম) সকালে বিভিন্ন কাজের চাপে অনেকেই নাশতা তৈরির সময় পান না। কেউ পাউরুটি দিয়ে, ফ্রোজেন পরোটা সেঁকে কাজ চালিয়ে নেন, কেউ বা মোড়ের দোকানের খাস্তা পরোটা কিনে নেন। হোটেলের এই কমদামি পরোটা যারা খান, তারাই জানেন এর স্বাদে কী যেন এক জাদু আছে! বাড়িতে তৈরি করা বা ফ্রোজেন পরোটার স্বাদটা কখনোই তেমন হয় না। হবে কী করে? হোটেলের এই পরোটার যে আছে এক গোপন রেসিপি! সবাই জানেন না এই তথ্য। সেলিনা রহমান একজন পরোটার কারিগরের থেকে সংগ্রহ করেন সেই গোপন রেসিপি, আর তা নিয়েই আজকে আমাদের আয়োজন। 

সেলিনা রহমানের ভাষায় ঘটনাটা এই রকম-  

“ঢাকার ফার্মগেটে আনন্দ সিনেমা হলের উল্টো পাশে একটা রেঁস্তোরা আছে। ইন্দিরা রোডের বাসিন্দা হবার ফলে ওখানকার আশেপাশের প্রায় সমস্ত হোটেলগুলোর সকাল বিকালের নাস্তা খাওয়া হয়েছে। একবার ফার্মগেটের ওই হোটেলটিতে পরোটা ভাজার সময় কারিগরকে জিজ্ঞেস করি, কী এমন দেয় যে এই পরোটা এত মজা? প্রথমে উত্তরে বললো, ‘কিছু না আফা বেশি বানাই তাই হয়তো।‘ আমি নাছোড়বান্দা আবার জানতে চাই। তখনও বলতে চায় না। পরে ইমোশনাল আক্রমণ করে বলি, ‘ভাই আমি বিদেশে থাকি, দেশের এই পরোটা খুব খেতে মন চায়, কিন্তু হয় না। একটু বলেন খুব উপকার হবে। আজীবন আপনাকে মনে রাখবো, যতবার বানাবো আর দুআ করবো।‘ লোকটা তারপর বললো, ‘আপা আপনে টেবিলে বসেন ম্যানেজার শুনলে আমারে বকা দিবো, আমি আপনেরে কাগজে লেইখা দেই।‘ কাগজে উপকরণ হিসেবে বিস্কুট লেখা দেখে মনে হলো লোকটা মশকরা করলো আমার সাথে! জিজ্ঞেস করলাম, ‘ভাই পরোটায় বিস্কুট ক্যান??’ উত্তরটা ছিলো.. ‘আফা এইটা দিলে পরোটায় একটা গুড়ি গুড়ি দানা আসে আর স্বাদ-গন্ধ খুব মিষ্টি হয়। আপনে বানাইয়েন তাইলে ক্যান বুঝতে পারবেন।‘

 ভদ্রলোকের আন্তরিকতায় মুগ্ধ হয়ে কিছু বখশিশ দিয়েছিলাম। সেদিনের পর থেকে আমি সবসময় তাকে স্মরণ করি যখনই এই পরোটা খাই। হোক বাসায় কি দোকানে। ঘটনা ২০১৫ এর। আপনারাও ওই লোকটার সাথে সাথে আমাকেও মনে রাখবেন প্রত্যাশা করছি।“

পরোটা

দারুণ কৌতূহল হচ্ছে তো? চলুন দেখে নিই সেই গোপন রেসিপি, সাথে রইল রেসিপির ভিডিওটি।

উপকরণ

- দেড় কাপ ময়দা

- আধা কাপ গ্লুকোজ বিস্কুট গুঁড়ো

- সিকি কাপ গুঁড়ো দুধ

- ২ টেবিল চামচ চিনি

- আধা চা চামচ লবণ

- খামির তৈরির জন্য গরম পানি প্রয়োজনমত

- তেল প্রয়োজনমত

প্রণালী

১) শুকনো উপকরণগুলো একটি পাত্রে মিশিয়ে নিন। এরপর এতে দেড় টেবিল চামচ তেল দিয়ে দিন। কিছুক্ষণ মাখিয়ে নিন। এরপর মাঝখানে গর্ত করে হালকা গরম পানি দিন। নরম নরম করে একটা খামির তৈরি করে নিন। একটু সময় নিয়ে যত্ন করে খামির করুন। ঢেকে ১০ মিনিট রেখে দিন। 

২) পরোটা বেলে নেবার জন্য ময়দা ও তেল রাখুন পাত্রে আলাদা করে। ১০ মিনিট হয়ে এলে আবার একটু মাখিয়ে নিন পিঁড়িতে তেল মাখিয়ে। এরপর সমান কয়েক ভাগে ভাগ করে কেটে নিন। পুরো সময়টাতে খামিরটা ঢেকে রাখুন, এতে তা শুকনো হয়ে যাবে না। 

৩) পিঁড়িতে তেল মাখিয়ে এতে পাতলা রুটির মত করে বেলে নিন। এরপর এর ওপরে তেল ও ময়দা দিয়ে একটা পাতলা স্তর তৈরি করে নিন। এরপর ভিডিওতে দেখানো উপায়ে কোনের মতো করে রুটিটাকে পাকিয়ে নিতে পারেন। এভাবে পাকানো শেষ করে তা আবার বেলে নিতে হবে। 

৪) ভাজার সময়ে বেশী করে তেল ব্যবহার করতে হবে। মিডিয়াম আঁচে একটু একটু করে তেল দিয়ে ভেজে নিন সবগুলো পরোটা। এরপর পরোটাগুলোকে একটু চাপড়ে নিতে পারেন, এতে তা দেখতে একেবারেই হোটেলের পরোটার মতই হবে। 

তৈরি হয়ে গেলো একদম হোটেলের মতো মুচমুচে, খাস্তা পরোটা। পরিবেশন করতে পারেন পছন্দের কোনো তরকারির সাথে। দেখে নিন পুরো প্রণালীর ভিডিওটি-