(প্রিয়.কম) দেশের জনপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব। ২০১১ সালে বিয়ে করেন নাজিয়া হাসান অদিতিকে। সেই থেকে তাদের সংসার শুরু। এরপর ২০১৪ সালের ২৭ জুন অপূর্বের জন্মদিনেই তার স্ত্রী নাজিয়া এক পুত্র সন্তানের জন্ম দেন। তার নাম রাখা হয় আয়াশ। পুত্র আয়াশ পৃথিবীতে আসার পর থেকেই বদলে যেতে থাকে তাদের সংসার। মানে সুখে পরিণত হয় এই দম্পতি। বর্তমানে সেই সন্তানের বয়স এখন তিন বছরে পা রেখেছে। হয়েছে স্কুলেও ভর্তি।

তবে মূলকথা হচ্ছে অপূর্ব ও মেহজাবিন অভিনীত গেল ঈদের বিশেষ নাটক মিজানুর রহমান আরিয়ানের রচনা ও পরিচালনায় ‘বড় ছেলে’ বেশ আলোচিত হয় সারা বাংলাদেশে। বিশেষ করে অনলাইনের দুনিয়াতে। সেই সূত্র ধরে অপূর্বের স্ত্রীও একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন ফেসবুকে। ‘বড় ছেলে’ নাটকের বেশ কয়েকটি দৃশ্যের ছবি দিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘আমার ‘নিউজ ফিড’ ভর্তি শুধু আপনি আর আপনি। গর্বে আমার বুক ভরে যায়। আরো অনেক অনেক ভালোবাসা জিতুন।’

তার দেয়া এই স্ট্যাটাসের সূত্র ধরেই প্রিয়.কম যোগাযোগ করে অপূর্বের স্ত্রী নাজিয়ার সঙ্গে। তিনি প্রিয়.কমকে বলেন, ‘‘বড় ছেলে’ আমি ঈদের সময়ই টেলিভিশনে দেখেছি। আর ইউটিউবেও দেখেছি। সত্যি কথা বলতে অপূর্ব গুণী একজন অভিনেতা। নাটকটি দেখার পর আমি অপূর্বকে কল দিয়ে বলেছিলাম খুব ভালো হয়েছে অভিনয়। তাছাড়া আমার স্বামীর অভিনীত নাটক দেখে যখন তার অজস্র ভক্ত ভালোবাসা জানাচ্ছে তখন দেখি আমার টাইম লাইনও ভরে যাচ্ছে তার ভক্তদের ভালোবাসায়। এ জন্যই আমার স্ট্যাটাসটি দেওয়া।’
অভিনেতা অপূর্ব ও তার স্ত্রী নাজিয়া এবং সন্তান আয়াশ। ছবি: সংগৃহীত। 

প্রিয়.কম থেকে আবারও তাকে প্রশ্ন করা হয়। আপনি কী নিয়মিত অভিনেতা অপূর্বের নাটক দেখেন? উত্তরে তিনি বললেন, ‘আসলে সব নাটকতো দেখা হয় না কারণ ও তো অনেক নাটকে অভিনয় করে। তবে অপূর্ব যখন আমাকে বলে ওই নাটকটি অনেক ভালো হয়েছে তখন নাটকটি দেখি। আমি মনে করি অপূর্ব একজন ভালো এবং তুখোর অভিনেতা। এর আগেও অপূর্ব অভিনীত অনেক ভালো নাটক রয়েছে। তাকে নিয়ে যদি ভালো গল্প ও চরিত্রে দিয়ে নাটক নির্মাণ করা হয়ে থাকে তাহলে সে খুব ভালো করবে। ‘বড় ছেলে’ নাটকটি তার প্রমাণ। আমি নাটকটি দেখে যখন ওর কান্না দেখলাম তখন আমার খুব মন খারাপ হয়েছিল।’

প্রিয় বিনোদন/গোরা