মেয়েটি আই লাভ ইউ বলাতে রেগে গিয়েছিলাম: জাফরউল্লাহ শারাফাত

‘মেয়েটি কমেন্ট্রি বক্সের পাশ দিয়ে খুব ঘোরাঘুরি করছিলেন এবং সরাসরি এসে আমাকে বলেন যে, আই লাভ ইউ। একটু পরে এসে বলেন, আমি তোমাকে বিয়ে করব।’

শিবলী আহমেদ
সহ-সম্পাদক
১৬ জানুয়ারি ২০১৮, সময় - ১৩:২৫

ধারাভাষ্যকার চৌধুরী জাফরউল্লাহ শারাফাত। ছবি: সংগৃহীত।

(প্রিয়.কম) বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনের জনপ্রিয় ধারাভাষ্যকার চৌধুরী জাফরউল্লাহ শারাফাত। বাচনভঙ্গির জন্য শ্রোতাদের কাছে আলাদাভাবে পরিচিত তিনি। ধারাভাষ্য ছাড়াও বিভিন্ন বিজ্ঞাপনে মডেল হয়েছেন, রয়েছে লেখালেখির অভ্যাসও। 

সোমবার ব্যক্তিগত জীবনের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রিয়.কমের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা বলেন শারাফাত। তাঁর ভাষ্য, ভীষণ পরিচ্ছন্ন জীবনযাপনে অভ্যস্ত তিনি। আদর্শ মানুষ হিসেবে চলতে চান তিনি। তবে তার চোখের সামনে খারাপ কিছু ঘটলে তা মুখের ওপরই বলে দিতে পছন্দ করেন। সে ক্ষেত্রে তিনি কখনো কখনো একটু রেগে গিয়েই বলেন যে, আপনার তো এটা করা ঠিক হয়নি।

বাজে কোনো অভ্যাস আছে কি না জানতে চাইলে চৌধুরী জাফরউল্লাহ বলেন, আমার বদ গুণের কথা যদি জিজ্ঞাসা করেন, তাহলে বলব, আমি রেগে যাই। কেন এটা করবেন? এটা তো করা উচিত না- এসব বলি। প্রতিবাদ করি আর কি। এটাই আমার বদ গুণ বলতে পারেন।

চৌধুরী জাফরউল্লাহ শারাফাত। ছবি: সংগৃহীত।

মুঠোফোনে আলাপকালে রাগ নিয়ে একটি ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে জাফরউল্লাহ শারাফাত বলেন, ‘১৯৯৯ সালে বাংলাদেশ যখন প্রথমবার বিশ্বকাপে অবতীর্ণ হয়, তখন প্রথমবারের মতো পাকিস্তানের মতো একটি টেস্ট প্লেয়িং কান্ট্রির বিরুদ্ধে জয়লাভ করে। স্বাভাবিকভাবেই বাংলাদেশ যখন জিতে যাচ্ছে, এত বড় একটি দলকে পরাজিত করছে, আমার কথার মধ্যেও তখন একটা উত্তেজনা ছিল। ঠিক সেই সময় বাংলাদেশি ব্রিটিশ এক ইয়ং মেয়ে, পরনে ছিল জিন্স প্যান্ট ও গেঞ্জি, আমি যখন কমেন্ট্রি করছিলাম, মেয়েটি কমেন্ট্রি বক্সের পাশ দিয়ে খুব ঘোরাঘুরি করছিলেন এবং সরাসরি এসে আমাকে বলেন যে, ‘আই লাভ ইউ’। একটু পরে এসে বলেন, ‘আমি তোমাকে বিয়ে করব।’ তখন আমি আসলে বাংলাদেশের বিজয় উদযাপনে মগ্ন। সেই সময় এ কথাগুলো আমার ভালো লাগেনি। তখন আমি একটু রেগে গিয়ে, উত্তেজিত হয়ে তাকে দু-একটি কথা বলে ফেলেছিলাম। মেয়েটি ‘আই লাভ ইউ’ বলাতে আমি রেগে গিয়েছিলাম। পরে আমি ফিল করি যে আমার আসলে ওভাবে বলা ঠিক হয়নি। এই ঘটনাটি আমার মনে খুব দাগ কাটে। আর কোনোদিন তার সঙ্গে দেখা হয়নি।’’

‘আপনি তখন সেই তরুণীকে কী উত্তর দিয়েছিলেন?’-প্রিয়.কমের এমন প্রশ্নের জবাবে চৌধুরী জাফরউল্লাহ বলেন, আমি তাকে বলেছিলাম যে, আমার বাবা-মা, ভাই ও বোন তো দেশে থাকে। আমি আগে দেশে যাই, গিয়ে তাদের সঙ্গে কথা বলে তোমাকে জানাব। কিন্তু আমি আর কোনোদিনই জানাইনি, আমার সঙ্গে তার আর কোনোদিন কোনো যোগাযোগও হয়নি। এ ঘটনাটি আমাকে অনেক পীড়া দেয়, এভাবে আমার বলা ঠিক হয়নি।

‘আপনি কি প্রায়শই রাগান্বিত হয়ে ওঠেন?’ 

 সাধারণত আমি শান্ত থাকি। একজন ভালো মানুষ হিসেবে যত ধরনের গুণাবলী থাকা দরকার, সেগুলো আমি মেনে চলি’, ‍উত্তরে বলেন শারাফাত

প্রিয় বিনোদন/সিফাত বিনতে ওয়াহিদ

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


স্পন্সরড কনটেন্ট
জনপ্রিয়
আরো পড়ুন