প্রতীকী ছবি

দ্বিতীয় বিয়ে বাধ্যতামূলক যেখানে

দ্বিতীয়বার বিয়েকে এই গ্রামে শুভ যোগ বলেই মানা হয়।

হাসান আদিল
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২১ মে ২০১৮, ১৭:০৬ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ২১:০০
প্রকাশিত: ২১ মে ২০১৮, ১৭:০৬ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ২১:০০


প্রতীকী ছবি

(প্রিয়.কম) ভারতপাকিস্তান সীমান্তে রাজস্থানের একটি গ্রাম দেরাসর। ওই গ্রামের প্রত্যেক পুরুষের জন্য দুবার করে বিয়ে বাধ্যতামূলক। কিন্তু একটি প্রত্যন্ত গ্রামে কেন এই অদ্ভুত রীতি? কেনই বা দীর্ঘদিন ধরে এটাই রেওয়াজ হিসেবে চলে আসছে?

দেরাসর গ্রামে ৬০০ মানুষের বাস। মুসলিম অধ্যুষিত গ্রামটিতে সব মিলিয়ে রয়েছে ৭০টি পরিবার।

বহু দিন ধরেই চলে আসা এই প্রথা মেনে চলেন সবাই। এ আধুনিক যুগেও এর ব্যতিক্রম হয় না। ইসলাম ধর্মে বহুবিবাহ প্রথার চল রয়েছে। তবে, দেরাসরে জোর করে ছেলেদের দ্বিতীয়বার বিয়ে করতে বাধ্য করে পরিবার। কিন্তু কেন এমন রেওয়াজ?

গ্রামবাসীর ভাষ্য, গ্রামে যতজন পুরুষ বিয়ে করতেন, তাদের কারও প্রথম পক্ষের ঘরে সন্তান হতো না। দ্বিতীয়বার বিয়ের পরেই স্ত্রীর গর্ভে সন্তান আসত। বহুকাল ধরে এমন ঘটনা ঘটে আসছে গ্রামে এবং সেটাকেই রীতি হিসেবে অনুসরণ করেন গ্রামবাসীরা।

সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হলো, এখনো নাকি এমন ঘটনা ঘটে চলেছে গ্রামটিতে।

প্রথম পক্ষের স্ত্রী সতীনের সঙ্গে সুখে সংসার করেন। ছবি: সংগৃহীত

গ্রামবাসীর কথায়, প্রথমবার বিয়ের পর অনেকেই দীর্ঘকাল সন্তানের জন্য অপেক্ষা করেছেন, এরকম উদাহরণ প্রচুর রয়েছে। কিন্তু আশা পূরণ হয়নি। দ্বিতীয়বার বিয়ের পরেই তাদের ঘরে সন্তান এসেছে।

দ্বিতীয়বার বিয়েকে এই গ্রামে শুভ যোগ বলেই মানা হয়। প্রথম পক্ষের স্ত্রীও সতীনের সঙ্গে সুখে সংসার করেন। সতীনের সন্তানদের নিজের সন্তান মনে করেই বড় করে তোলেন।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

প্রিয় সংবাদ/গোরা