দেশের প্রথম কম্পিউটার কারখানার ভেতরে যেমন

১৫ বছর আগেও চিন্তা করা কঠিন ছিল, দেশে কম্পিউটার উৎপাদন করা হবে।

রাকিবুল হাসান
নিজস্ব প্রতিবেদক
১৯ জানুয়ারি ২০১৮, সময় - ১৭:০৪

ওয়ালটনের কম্পিউটার কারখানা । ছবি: প্রিয়.কম/ রাকিব হাসান

(প্রিয়.কম) ১৯৬৪ সাল। ওই সময়ে দেশে পাকিস্তান অ্যাটমিক অ্যানার্জি কমিশনে আইবিএম ১৬৫০ সিরিজের প্রথম কম্পিউটার স্থাপন করা হয়। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, গবেষণা কেন্দ্র এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে কম্পিউটারের ব্যবহারের চল শুরু হয়। ১৯৭৯ সালে বুয়েটে কম্পিউটার সেন্টার স্থাপন করা হয়। তবে দেশে আশির দশকের শেষের দিকে কম্পিউটারের ব্যবহার বৃদ্ধি পেতে শুরু করে।

১৯৮৫ সালে কম্পিউটারের জন্য প্রথম বাংলায় স্ক্রিপ্ট উদ্ভাবিত হয় এবং ১৯৯০ সালের দিকে দেশে ব্যক্তি পর্যায়ে কম্পিউটারের ব্যবহার বৃদ্ধি হতে থাকে। ১৯৯৫ সালে দেশে ইন্টারনেটের ব্যবহার শুরু হলে দেশের সফটওয়্যার খাত আলোর মুখ দেখতে শুরু করে।

এরপর অনেকটা পথ পাড়ি দিয়েছে বাংলাদেশ। কম্পিউটার ইন্ডাস্ট্রিতে আর পেছন তাকাতে হয়নি বাংলাদেশকে। দেশে ব্যবহারকারীদের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ার পাশাপাশি দেশের বাইরে থেকে কম্পিউটারের আমদানির পরিধি বাড়তে থাকে। ১৫ বছর আগেও চিন্তা করা কঠিন ছিল, দেশে কম্পিউটার উৎপাদন করা হবে। তবে ১৮ জানুয়ারি গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটনের কম্পিউটার কারখানার উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে কম্পিউটার উৎপাদনকারী দেশের তালিকায় নাম লেখায় বাংলাদেশ। 

এই ভবনে অবস্থিত ওয়ালটন কম্পিউটার কারখানার একাংশ

ওয়ালটন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, কম্পিউটার কারখানা উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে দেশে নতুন দিগন্তের সূচনা হয়েছে। এতে অনেক কম দামে মানসম্মত কম্পিউটার কিনতে পারবে দেশের তরুণ- ত্রুণীরা।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, কম্পিউটার কারখানা স্থাপনের মধ্য দিয়ে দুঃসাহসিক কাজ করেছে ওয়ালটন।

ওয়ালটনের কম্পিউটার কারখানায় গিয়ে দেখা যায়, ওয়ালটন ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের ভেতরে চারতলা ভবন জুড়ে ওয়ালটনের কম্পিউটার, ল্যাপটপ উৎপাদন বা অ্যাসেম্বলিং করার মূল স্থান। ভবনটির তিনতলায় বাংলাদেশি তরুণ তরুণীদের হাতের কারিগরে তৈরি হচ্ছে ল্যাপটপ, মনিটর, মাদারবোর্ড। আর চারতলায় কাজ চলছে মাদারবোর্ড উৎপাদনের। এই ভবনে রয়েছে আন্তর্জাতিক মানের টেস্টিং ল্যাব, রয়েছে পিসিবি (প্রিন্টেড সার্কিট বোর্ড) প্ল্যান্ট।

ওয়ালটনের কম্পিউটার কারখানায় কীভাবে ল্যাপটপ প্রস্তুত করা হচ্ছে এ নিয়ে প্রিয় টেক'র এ আয়োজন। ছবি তুলেছেন রাকিব হাসান।

গাজীপুরের চন্দ্রায় সম্প্রতি উদ্বোধন হয়েছে দেশের প্রথম কম্পিউটার কারখানার। গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটন ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের মধ্যে তিন লাখ বর্গফুট জায়গাজুড়ে ওয়ালটনের এই কম্পিউটার কারখানা গড়ে উঠেছে।

কারখানাটিতে প্রতি মাসে প্রাথমিকভাবে ৬০ হাজার ল্যাপটপ, ৩০ হাজার ডেস্কটপ পিসি এবং ৩০ হাজার মনিটর উৎপাদনের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে ওয়ালটন।

প্রাথমিক অবস্থায় কারখানাটিতে এসকেডি এবং সিকেডির সংমিশ্রণে কম্পিউটার উৎপাদন করা হবে। এছাড়া কিছু অংশ সিকেডি আর কিছু অংশ এসকেডি।

কারখানাটিতে মাদারবোর্ডের জন্য প্রিন্টেড সার্কিট বোর্ড প্ল্যান্ট স্থাপন করা হয়েছে।

কম্পিউটার ও ল‌্যাপটপ তৈরিতে ৯৪টি উপকরণ (আইটেম) প্রয়োজন হয়। একটি উপকরণের রয়েছে একাধিক সরবরাহকারী। ওয়ালটনের কম্পিউটারের পণ্যগুলো তাইওয়ান, চীন, কোরিয়া ও থাইল্যান্ড থেকে নিয়ে আসা হচ্ছে। এ ছাড়া পিসিবির উপকরণগুলো জার্মানি থেকে আসে।

মাদারবোর্ড তৈরি থেকে শুরু করে, র‍্যাম হার্ডডিস্ক সব কিছু মিলেই প্রাথমিক বিনিয়োগ এক হাজার কোটি টাকা।

কম্পিউটার কারখানাটিতে গুটি কয়েকজন বিদেশি ছাড়া বাংলাদেশি তরুণ-তরুণীরাই কাজ করছেন। ওয়ালটন কর্তৃপক্ষের ভাষ্য, কম্পিউটার কারখানায় এক হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে।

প্রিয় টেক

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


স্পন্সরড কনটেন্ট
জনপ্রিয়
আরো পড়ুন