ইন্টারনেট ও ওয়েব: এক জিনিস নয়

ওয়েব হলো বিশাল তথ্য ভাণ্ডার, আর এই তথ্যকে শেয়ার করার একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে ইন্টারনেট।

তৌহিদুর রহমান মাহিন
লেখক (প্রযুক্তি)
১৪ মার্চ ২০১৮, সময় - ১১:৩৭

ইন্টারনেট ও ওয়েবের মধ্যে পার্থক্যটা অনেকেই জানেন না। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) আমরা বেশিরভাগ সময় ইন্টারনেট এবং ওয়েব শব্দ দুটিকে একই অর্থে ব্যবহার করি। তবে প্রযুক্তিগতভাবে এগুলো পুরোপুরি আলাদা। একইভাবে টেকনিক্যালি শব্দ দুটির মানেও ভিন্ন।

ইন্টারনেট হল মূলত কোটি কোটি তথা প্রচুর কম্পিউটার এবং হার্ডওয়্যার ডিভাইস এর সঙ্গে সংযুক্ত একটি বিশাল নেটওয়ার্ক। আর এই বিশাল নেটওয়ার্কে একটি ডিভাইস অন্য আরেকটি ডিভাইস এর থেকে যতই দূরে থাকুক না কেন, ইন্টারনেট ব্যবহার করে তারা সহজেই কানেক্ট হতে পারে। সহজভাবে বলতে গেলে, ইন্টারনেট হলো রেস্টুরেন্ট আর ওয়েব হলো সেই রেস্টুরেন্টের খাবারের মেনু।  

ইন্টারনেট: হার্ডওয়্যার দিয়ে তৈরি এক মাকড়াসার জাল

পৃথিবীর নানা প্রান্তে নানা জায়গায় ছড়িয়ে থাকা কোটি কোটি কম্পিউটার এবং ডিভাইস তার, ওয়্যারলেস সিগন্যালের মাধ্যমে যে বিশাল এক নেটওয়ার্কের সাথে যুক্ত আছে তাকে বলা হয় ইন্টারনেট। বৃহৎ মেইনফ্রেম কম্পিউটার/সার্ভার, ডেক্সটপ বা পার্সোনাল কম্পিউটার, স্মার্টফোন,স্মার্ট হোম গ্যাজেটস,ল্যাপটপ,ট্যাবলেট ইত্যাদি ডিভাইস এর সাথে যুক্ত বিশাল এই নেটওয়ার্ক মানুষের ব্যক্তিগত,সামাজিক,সরকারি,প্রাতিষ্ঠানিক নানা কার্যক্রমে প্রত্যক্ষভাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। 

১৯৬০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের করা আরপানেট নামক একটি এক্সপেরিমেন্ট থেকে ইন্টারনেটের জন্ম। এই আরপানেট ব্যবহার করে কম্পিউটার যুক্তকরণ এর মাধ্যমে শুরুর দিকে মিলিটারি অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ রক্ষা করা হত। তবে কিছু সময় পর গবেষণার কাজ চালানোর জন্য, এই আরপানেটকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এর মেইনফ্রেম কম্পিউটারগুলোর সাথে যুক্ত করা হয়। এরপর থেকে ১৯৮০ থেকে ১৯৯০ সাল এর মধ্যে বহু পার্সোনাল কম্পিউটার এই নেটওয়ার্ক এর সাথে যুক্ত হয়। আর এটিই ছিল ইন্টারনেট তথা এক বিশাল নেটওয়ার্ক পরিকাঠামো তৈরির সূচনা। বর্তমান সময়ে এই ইন্টারনেট পুরোপুরিভাবে উন্মুক্ত এবং মাকড়সার জালের মতো বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে থাকা একটি নেটওয়ার্ক। 

মহাকাশে থাকা স্যাটেলাইটও এই নেটওয়ার্কের অন্তর্ভুক্ত। ব্যক্তিগত, ব্যবসায়িক, প্রাতিষ্ঠানিক, সরকারি নানা কাজে মানুষ এই বিশাল নেটওয়ার্কের সাথে যুক্ত তার অথবা ওয়্যারলেস সিগন্যালের মাধ্যমে। যেহেতু ইন্টারনেট বহু সংযুক্ত ডিভাইস এর সংমিশ্রণ ব্যতিত আর কিছুই নয়, তাই কোন প্রতিষ্ঠান, ব্যক্তি বা সরকার এই ইন্টারনেটের মালিকানা দাবি করতে পারে না।  

ওয়েব: ইন্টারনেটের প্রাণ 

যেখানে ইন্টারনেট গঠিত কোটি কোটি কম্পিউটার এবং ডিভাইস নিয়ে, সেখানে ওয়েব গঠিত কোটি কোটি ওয়েবপেজ নিয়ে। আর ইন্টারনেটের এসব ওয়েবপেজগুলো এক্সেস করতে হয় ওয়েব ব্রাউজার নামক সফটওয়্যার দ্বারা।  ইন্টারনেটের অন্যতম বিষয়বস্তু হল ওয়েব, তবে কখনোই ওয়েব মানে ইন্টারনেট নয়। ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েবে থাকা যেকোন কনটেন্ট এক্সেস করতে হলে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হয়। ইন্টারনেটে জুড়ে থাকা এই টেক্সট, ভিডিও, অডিও, এনিমেশন, গেমস এসব জিনিসের সম্ভারই হল ওয়েব। কনটেন্ট সমৃদ্ধ একেকটি ওয়েবপেজ, পরস্পরের সাথে সংযুক্ত থাকে হাইপার টেক্সট ট্রান্সফার প্রোটোকল এর মাধ্যমে। এখানে বিদ্যমান কোডিং ল্যাংগুয়েজ এর ফলে কোন লিঙ্কে ক্লিক করলে বা কোন ইউআরএল চাপলে সেই ওয়েবপেজে নিয়ে যায়। এই ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব ব্যবস্থাটি আবিষ্কৃত হয় ১৯৮৯ সালে। এরপর থেকে ইন্টারনেট ব্যবহারে এক ব্যাপক বিপ্লব সূচিত হয়।  

যাইহোক, নিঃসন্দেহে ওয়েব এক বিশাল তথ্য ভাণ্ডার। আর এই তথ্যকে শেয়ার করার একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে ইন্টারনেট। ইন্টারনেট কেবল ওয়েব এক্সেস এর জন্যই নয়, মেসেজিং, ইমেইল, ফাইল ট্রান্সফারসহ আরও নানাবিধ কাজে ব্যবহৃত হয়। সুতরাং পরবর্তী সময় থেকে মনে রাখতে হবে, ইন্টারনেট এবং ওয়েব কখনোই এক জিনিস নয়। ওয়েব কেবল ইন্টারনেটের একটি অংশ মাত্র।  

[প্রকাশিত লেখা ও মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। প্রিয়.কম লেখকের মতাদর্শ ও লেখার প্রতি শ্রদ্ধাশীল। প্রকাশিত মতামতের সঙ্গে প্রিয়.কম-এর সম্পাদকীয় নীতির মিল নাও থাকতে পারে।]

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
জনপ্রিয়