(প্রিয়.কম) মালয়েশিয়ায় এক বাবা নিজের ১৩ বছরের মেয়েকে মক্কায় উমরাহ পালন করতে নিয়ে গিয়ে সেখানে ধর্ষণ করেন। ধর্ষণের দায়ে ওই বাবাকে ২৪ ঘা বেত্রাঘাতের নির্দেশসহ ৪৮ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

৮ সেপ্টেম্বর শুক্রবার মালয়েশিয়ার পেটালিং জায়া নগরীর শিশু যৌন নির্যাতন প্রতিরোধকারী একটি বিশেষ আদালতের বিচারক জং জারিদা সাজালি এ রায় ঘোষণা করেন।

আদালতে রায় ধর্ষকের সামনে পড়ে শোনানো হয়। সে সময় তিনি চুপ ছিলেন। পরিচয় গোপন রাখতেই ধর্ষকের নাম প্রকাশ করা হয়নি।

মামলার তদন্ত রিপোর্টে বলা হয়, ২০১৩ সালের ৩ এপ্রিলে ওই ধর্ষক বাবা মেয়েকে নিয়ে মক্কায় উমরাহ পালন করতে নিয়ে সেখানেই তিনি ১৩ বছরের মেয়েকে প্রথমবার ধর্ষণ করেন। এরপর দেশে ফিরে তিনি নিজের মেয়েকেই বারবার ধর্ষণ করেছেন। 

মামলার নথির বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, ৩৬ বছর বয়সী ধর্ষক ওই ব্যক্তি তিন সন্তানের বাবা। আর ধর্ষণের শিকার মেয়েটি তার বড় সন্তান। ২০১৫ সালে ওই ব্যক্তির সঙ্গে তার স্ত্রীর ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। এরপর থেকে ছোট দুই মেয়ে মায়ের কাছে থাকত। আর বড় মেয়েকে নিজের কাছে রাখেন ওই ধর্ষক।

এছাড়া কিশোরী মেয়ের জবানবন্দি থেকে জানা যায়, মূলত ভয় ও লোভ দেখিয়ে ধর্ষণ করতেন ওই ব্যক্তি। কিশোরী মেয়েটিকে বিকৃত যৌনকাজেও বাধ্য করতেন তিনি।

দুই বছর পর ধর্ষক বাবা বাকি দুই মেয়েকেও নিজের কাছে নিয়ে রাখতে চান। তখন বড় মেয়ে মায়ের কাছে পুরো ব্যাপারটি খুলে বলে। এরপর ধর্ষকের বিরুদ্ধে মামলা করেন তার স্ত্রী।

মালয়েশিয়ার নারী, পরিবার ও কমিউনিটি উন্নয়নমন্ত্রী দাতুক সেরি রোহানি আবদুল কারিম বলেন, এই রায় শিশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে সচেতনতা বাড়াবে।

সূত্র: নিউ স্ট্রেইটস টাইম

প্রিয় সংবাদ/শিরিন