(প্রিয়.কম) শনিবার বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পঞ্চম আসরের পর্দা উঠতে যাচ্ছে। প্রতিবারের মতো, এবারও শুরুতেই বিতর্ক বুকে টেনে নিয়েছেন বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় এই ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টটি। মূল একাদশে পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটার খেলানোর মতো সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে আগেই। টুর্নামেন্ট গড়ানোর আগে ইস্যুটি নতুন মাত্রা পেয়েছে। জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার মতে, দেশি ক্রিকেটারদের সুযোগ নষ্ট করা হচ্ছে এই উদ্যোগে। 

এই মুহূর্তে বিপিএলের দলগুলো অবস্থান করছে সিলেটে। সেখানকার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামেই শুরু হতে যাচ্ছে এবারের আসরের প্রথম দিককার ম্যাচ। এরপর টুর্নামেন্ট ফিরবে ঢাকাতে।

শুক্রবার গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে টুর্নামেন্ট ও নিজের দল নিয়ে আলাপকালে কথা প্রসঙ্গে উঠে আসে মূল একাদশে পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটার খেলানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে মাশরাফি কি ভাবছেন সেটা। উত্তরে মাশরাফি বলেছেন, 'এটা নিয়ে বলা মন্তব্য করা কঠিন। বাংলাদেশি একজন খেলোয়াড় কম খেলাতে পারায় আমি বলবো স্যরি। তাদের জন্য একটা জায়গা নষ্ট হওয়া মানে সুযোগ নষ্ট হওয়া।'

রংপুর রাইডার্সের অধিনায়ক মাশরাফি এমন সিদ্ধান্তের বিপক্ষে বললেও, ‘সুবিধা’ দেখছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তার মতে, বিদেশি ক্রিকেটার বাড়ানোর কারণে দলগুলোর শক্তি বেড়েছে। 

তিনি বলেন, 'একটা জায়গা কমে গেল কিন্তু আটটা টিম যদি হয়, ওই সংখ্যক সমমানের প্লেয়ার নাই। যেটা হতো তখন একটা টিম বেশি স্ট্রং থাকতো আরেকটা টিম কম থাকত। পাঁচজন বিদেশি হওয়াতে সবগুলো টিম সমানভাবে স্ট্রং হবে। ছয়জন করে খেলছে প্রায় ৪০-৪২ দেশি প্লেয়ার যারা সবাই কম্পিটেটিভ ক্রিকেট খেলার মতো। আমার কাছে মনে হয় কম্পিটিশনটা বেশি হবে। ৫০-৬০ জন প্লেয়ার থাকল কিন্তু আপনার সব কোয়ালিটি প্লেয়ার না থাকলে আসলে ওই টিমগুলোর জন্য হয়তো ভাল না।'

এর আগে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল থেকে জানানো হয়, দুইটি ফ্র্যাঞ্চাইজি বাদে সবাই মূল একাদশে পাঁচজন বিদেশি খেলানোর আবেদন জানিয়েছে। তারই ভিত্তিতে নতুন এই নিয়ম করা হয়। যদিও বলা হয়েছে, চাইলে পাঁচজনের কম বিদেশি ক্রিকেটারও খেলানো যাবে মূল একাদশে। তবে অন্তত তিনজন খেলানো বাধ্যতামূলক।