অ্যাপভিত্তিক ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী স্টার্টআপ মেডিটরের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম খান। ছবি: নূর/প্রিয়.কম

ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবায় নতুন প্রযুক্তি নিয়ে আসবে মেডিটর

অ্যাপটিতে থাকছে ডিজিটাল পেসক্রিপশন, ভিডিও স্ট্রিমিং, ভার্চুয়াল হেলথ অ্যাসিস্ট্যান্স, হোম মনিটরিং সিস্টেমের মতো নতুন সব প্রযুক্তি।

আরিফ আরমান বাদল
সহ-সম্পাদক, বিজনেস এন্ড টেক
প্রকাশিত: ২১ আগস্ট ২০১৭, ২০:০১ আপডেট: ১৯ আগস্ট ২০১৮, ২২:৪৮
প্রকাশিত: ২১ আগস্ট ২০১৭, ২০:০১ আপডেট: ১৯ আগস্ট ২০১৮, ২২:৪৮


অ্যাপভিত্তিক ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী স্টার্টআপ মেডিটরের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম খান। ছবি: নূর/প্রিয়.কম

(প্রিয়.কম) মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান নতুন কিছু নয়। তবে মার্কেটে টিকে থাকতে সম্পূর্ণ নতুন কিছু প্রযুক্তির সংযোজনে হাজির হচ্ছে অ্যাপভিত্তিক ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী স্টার্টআপ মেডিটর। অ্যাপটিতে থাকছে ডিজিটাল পেসক্রিপশন, ভিডিও স্ট্রিমিং, ভার্চুয়াল হেলথ অ্যাসিস্ট্যান্স, হোম মনিটরিং সিস্টেমের মতো নতুন সব প্রযুক্তি। সম্প্রতিপ্রিয়.কমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব তথ্য জানিয়েছেন মেডিটরের প্রধান নির্বাহী জাহাঙ্গীর আলম খান। 

জাহাঙ্গীর বলেন, আমাদের এই প্লাটফর্মটি অ্যাপ এবং ওয়েবসাইট দুই মাধ্যমেই চলবে। বর্তমানে অ্যাপটির বেটা সংস্করণ গুগল প্লেতে পাওয়া যাচ্ছে। বেটা সংস্করণ দিয়ে প্রাথমিকভাবে ডাক্তারদের সাথে যোগাযোগ করা যাচ্ছে। ঈদের পরে অ্যাপটিতে ডিজিটাল প্রেসক্রিপশন সুবিধা চালু করা হবে। এরপরে ধারাবাহিকভাবে ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্স এবং হোম মনিটরিং সিস্টেম চালু করা হবে। 

ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্স এবং হোম মনিটরিং সিস্টেমের জন্য ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির নিজ শিক্ষকের সাথে গবেষণায় জড়িত থাকার কথা জানান জাহাঙ্গীর। তিনি বলেন, আমরা আশা করছি গবেষণাগুলো ২০১৮ সালের মধ্যেই শেষ হবে। পরবর্তীতে ২০১৮ সাল থেকে বাণিজ্যিকভাবে অ্যাপটির কাজ শুরু হবে।

মেডিটর অ্যাপ

মেডিটর অ্যাপ। ছবি: মেডিটর 

ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্স স্বয়ংক্রিয়ভাবে গ্রাহককে ওষুধ খাওয়ার সময় মনে করিয়ে দেবে। অন্যদিকে ডিজিটাল প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী ওষুধের সম্ভাব্য দামও জানিয়ে দেবে ডিজিটাল অ্যাসিস্ট্যান্স। তা ছাড়া গ্রাহকের চিকিৎসার যাবতীয় তথ্যাদি সংগ্রহে রাখবে এই ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্স সুবিধা। 

হোম মনিটরিং সার্ভিসের মাধ্যমে রোগীর টাকা সাশ্রয় হবে বলে মনে করেন জাহাঙ্গীর। তিনি বলেন, অনেক সময় দেখা যায়, রোগী দেখার পর ডাক্তাররা ১৫ দিন পর তাকে আবার দেখা করতে বলেন। সেসময় একবার দেখে ভালো-মন্দ জিজ্ঞাসা করে রোগীকে বিদায় করে দেওয়া হয়। ফলে শুধুমাত্র জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাক্তারকে ফি দেওয়া লাগে। এই হোম মনিটরিং সার্ভিসের মাধ্যমে চেম্বারে বসেই রোগীকে দেখতে বা কথা বলতে পারবেন ডাক্তাররা। তার জন্য অ্যাপ ব্যবহার করে আগে থেকে সময় ঠিক করে নিতে হবে। অ্যাপে থাকা স্ট্রিমিং সাইট ব্যবহার করে ডাক্তারের সাথে লাইভ কথা বলা যাবে। তা ছাড়া যেখানে ইন্টারনেট সংযোগ ভালো নয় সেখানে রোগীর সাথে ফোনে কথা বলতে পারবেন কর্তব্যরত ডাক্তার।

মেডিটর আইসিটি ডিভিশন আয়োজিত স্টার্টআপ প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে। স্টার্টআপটি বিজয়ী হওয়ার কারণে স্বভাবতই যশোরে নির্মাণাধীন হাইটেক পার্কে ব্যবসা করার সুযোগ পাবে। তবে জাহাঙ্গীর জানান, ঢাকা থেকে অনেক দূর হয়ে যাওয়ায় ব্যবসা করতে উৎসাহ পাচ্ছেন না তিনি।

 প্রিয় সংবাদ/কামরুল