বল হাতে মুমিনুল হক। ফাইল ছবি

চার বছর পর বোলার মুমিনুল

মুমিনুল হক টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান হলেও কাজ চালানোর মত বোলিং করতে পারেন। ২৪ টেস্টের ক্যারিয়ারে বল করেছেন প্রায় ৬২ ওভার।

জুবায়ের আহমেদ তানিন
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ০১ অক্টোবর ২০১৭, ১৯:৪৭ আপডেট: ১৫ আগস্ট ২০১৮, ১২:০০


বল হাতে মুমিনুল হক। ফাইল ছবি

(প্রিয়.কম) মুমিনুল হক টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান হলেও কাজ চালানোর মত বোলিং করতে পারেন। ২৪ টেস্টের ক্যারিয়ারে বল করেছেন প্রায় ৬২ ওভার। এই ৬২ ওভার থেকে তিন ওভার পেছনে গেলে বোলার মুমিনুলের দেখা মিলবে। কারণ এর আগে ৫৮ ওভার হাত ঘুরিয়ে উইকেটের দেখা পেয়েছেন মাত্র একটি। ২০১৩ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে সাদা পোশাকে প্রথম উইকেট শিকার করেন বাঁ-হাতি এই স্পিনার। সেই টেস্ট মুমিনুলের কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে তার খেলা ১৮১ রানের অনবদ্য ইনিংসটির জন্য। যা এখনও তার টেস্ট ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ। সেই মুমিনুল দ্বিতীয় টেস্ট উইকেটের দেখা পেলেন চার বছর পর। 

পচেফস্ট্রুমে চলছে বাংলাদেশ-দক্ষিণ আফ্রিকা দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট। এই টেস্টে ২৩০ রানের লিড নিয়ে চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করে প্রোটিয়ারা। দিনের প্রথম সেশনেই হাশিম আমলাকে ফিরিয়ে দেন বাঁ-হাতি পেসার মুস্তাফিজুর রহমান। আমলার পর উইকেটে যান অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি। তেম্বা বাভুমার সঙ্গে গড়েন ১৪২ রানের জুটি। ইনিংসের ৪৯তম ওভারে মুমিনুলের হাতে বল তুলে দেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। সেই ওভারের পঞ্চম বলে ডু প্লেসিকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন মুমিনুল।

অফ স্টাম্পের বাইরে পিচ করা সেই ডেলিভারিটা সুইপ করতে গিয়ে ব্যর্থ হন ডু প্লেসি। জোরালো আবেদনের মুখে তাকে আউট ঘোষণা করেন অনফিল্ড আম্পায়ার ক্রিস গাফানি। আম্পায়ারের সেই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে রিভিউ নেন প্রোটিয়া অধিনায়ক। টিভি রিপ্লেতে দেখা যায় ব্যাটের সঙ্গে বলের কোনও সংযোগ ঘটেনি এবং সেই ডেলিভারি টার্ন করে মিডল স্টাম্পে যাচ্ছিল। টিভি আম্পায়ারের কাছ থেকে নিশ্চিত হয়ে ব্যক্তিগত ৮১ রানে মাঠ ছাড়েন ডু প্লেসি। এরই সঙ্গে মুমিনুল পকেটে পুরেন তার দ্বিতীয় টেস্ট উইকেট। এর পরের ওভারেই নামে বৃষ্টি।

৪৮ মিনিট খেলা বন্ধ থাকার পর আবারও খেলা মাঠে গড়ায়। বৃষ্টির পর আবারও মুমিনুল ম্যাজিক! সেঞ্চুরির পথে হাঁটতে থাকা তেম্বা বাভুমাকে সাজঘরে ফেরান তিনি। ৫১তম ওভারের শেষ বলে মুমিনুলকে প্যাডল সুইপ করতে যান ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। ব্যাট বলের কোনও সংযোগ ঘটার আগেই বামে সরে যান উইকেটরক্ষক লিটন দাস। দুর্দান্ত রিফ্লেক্সে ধরেছেন দারুণ এক ক্যাচ। মুমিনুল পেয়েছেন চলতি টেস্টে তার দ্বিতীয় উইকেট।

এখানেই শেষ নয়! লিটন-মুমিনুল যুগলবন্দীতে ষষ্ঠ উইকেট হারিয়েছে প্রোটিয়ারা। মুমিনুলের ব্যক্তিগত পঞ্চম ওভারের তৃতীয় বলে স্টাম্পিং হয়েছেন কুইন্টন ডি কক। চলতি টেস্টে তৃতীয় উইকেটের দেখা পেয়েছেন ২৬ বছর বয়সী মুমিনুল। দ্বিতীয় ইনিংসে ছয় ওভার বল করে ২৭ রান দিয়ে তিন উইকেট পেয়েছেন তিনি। যা টেস্টে তার ক্যারিয়ার সেরা বোলিং। 

এর আগে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চট্টগ্রামে বিজে ওয়াটলিংকে আউট করে প্রথম টেস্ট উইকেট নেন মুমিনুল। সেই টেস্টের প্রথম ইনিংসে মুমিনুলের বল খেলতে উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে আসেন ওয়াটলিং। গুড লেন্থের সেই বল শেষ মুহূর্তে টার্ন করে জমা পড়ে উইকেটরক্ষক মুশফিকের হাতে। স্টাম্পিং হয়ে মাঠ ছাড়েন ওয়াটলিং। 

প্রিয় স্পোর্টস/ শান্ত মাহমুদ

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
স্পন্সরড কনটেন্ট
ট্রেন্ডিং