মুক্তিপিন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের একাংশ । ছবি : প্রিয়.কম।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রিয় মুক্তিপিন

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত স্থান ও ঘটনাসমূহকে ডিজিটাল ভাবে সংরক্ষণে শিক্ষার্থীদের তথা তরুণ প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করতে প্রিয়.কম দেশব্যাপী কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

রাকিবুল হাসান
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৮ জানুয়ারি ২০১৮, ১৯:৫৯ আপডেট: ১৯ আগস্ট ২০১৮, ০৪:০০
প্রকাশিত: ২৮ জানুয়ারি ২০১৮, ১৯:৫৯ আপডেট: ১৯ আগস্ট ২০১৮, ০৪:০০


মুক্তিপিন অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের একাংশ । ছবি : প্রিয়.কম।

(প্রিয়.কম) 'মুক্তিপিন গাঁথো, যুদ্ধকে জানো' এই স্লোগানকে সামনে রেখে বাংলাদেশের মানচিত্রে মুক্তিযুদ্ধের ডিজিটাল আর্কাইভ গড়ার লক্ষ্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রিয় মুক্তিপিন কর্মসূচি।

২৮ জানুয়ারি রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে এ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন ও বিচার ডিসিপ্লিন প্রধান অধ্যাপক ড. ওয়ালিউল হাসানাত। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন আইন ও বিচার ডিসিপ্লিনের প্রভাষক পূনম চক্রবর্তী। অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন আইন ও বিচার ডিসিপ্লিনের প্রভাষক তালুকদার রাসেল মাহমুদ

মূল অনুষ্ঠানের শুরুতে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের গল্প শোনান ওয়ালিউল হাসানাত। এরপর সেখানে থাকা প্রজেক্টরে দেখানো হয় প্রিয় মুক্তিপিনের ওপর নির্মিত তথ্যচিত্র। এরপর আটজন শিক্ষার্থী তাদের বাবা ও দাদাদের কাছ থেকে শোনা মুক্তিযুদ্ধের গল্প শোনান। এরপর চলে কুইজ পর্ব। কুইজে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করা হয়। সবশেষ ওয়ালিউল হাসানাতকে প্রিয় মুক্তিপিনের পক্ষ থেকে সম্মাননা স্বারক দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের সহায়তা ও প্রিয় লিমিটেডের আয়োজনে ২০১৭ সালের ১ ডিসেম্বর থেকে ‘প্রিয় মুক্তিপিন’ নামের কর্মসূচি চলছে। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বাংলাদেশের ডিজিটাল ম্যাপে সংরক্ষণে তরুণ সমাজকে উদ্বুদ্ধ করাই এই কর্মসূচির মূল লক্ষ্য।

‘মুক্তিপিন গাঁথো, যুদ্ধকে জানো’ স্লোগানকে সামনে রেখে চলমান কর্মসূচির অংশ হিসেবে মুক্তিপিন আয়োজক দল সারা দেশের বিভাগীয় শহরের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাচ্ছে। সেসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানানোর পাশাপাশি ‍মুক্তিপিন কর্মসূচি সম্পর্কে সচেতন করা হচ্ছে।

প্রিয় সংবাদ