(প্রিয়.কম) মুন্সীগঞ্জে বারেকের ন্যাংটার মাজারে দুই নারীকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। তাদের মধ্যে একজন ওই মাজারের নারী খাদেম ছিলেন বলে জানা গেছে। পুলিশের ধারণা, যৌন ও জমিজমা সংক্রান্ত কারণে এ হত্যাকাণ্ড হতে পারে।

১৩ সেপ্টেম্বর বুধবার উপজেলার কাটাখালির ভিটিশীল মন্দির এলাকার ওই মাজার থেকে নিহত দুই নারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ময়নাতদন্তের জন্য তাদের মরদেহ মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নিহতরা হলেন- মাজারের নারী খাদেম আমেনা বেগম(৬০) এবং তাইজুন খাতুন(৪৮)। আমেনা বেগম সদর উপজেলার আধেরা ইউনিয়নের ঝাপটা গ্রাম এবং তাইজুন নেছা ওই ইউনিয়নের বকচর গ্রামের বাসিন্দা বলে জানা গেছে।

মাজারের খাদেম মো. মাসুম শাহ্ প্রিয়.কম-কে জানান, মঙ্গলবার রাতে এক কক্ষে ঘুমিয়ে ছিলেন আমেনা ও তাইজুন। বুধবার সকাল সাড়ে সাতটার দিকে মাজার পরিস্কার করার জন্য আসেন তিনি। মাজরের মূল দরজার সামনে আসলে ভিতর থেকে বাহিরের দিকে রক্ত প্রবাহিত হতে দেখা যায়। 

পরে তিনি দরজা খুলে ভিতরে ঢুকলে আমেনা ও তাইজুন নেছার মুখ একটি ওরনা দিয়ে ঢাকা অবস্থায় দেখেন। ওরনা সরালে দেখা যায় তাদের দুজনের গলাকাটা ও মুখ রক্তে মাখানো। এ অবস্থা দেখে তিনি সরাসরি এসপি অফিসে নিজে গিয়ে খবর দেন।

তিনি আরও জানান, আমেনার স্বামী বারেকের নামেই এই মাজার চলছে। আমেনা এর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে ছিলেন। ঢাকার বাসিন্দা তাইজুন আমেনাকে খালা বলে ডাকতেন। তিনি মাজারে বেড়াতে এসেছিলেন।

তাইজুন নেছার ভাইয়ের ছেলে মো. বরকতুল্লা প্রিয়.কম-কে বলেন, আমার ফুপু এ মাজারের একজন অন্যতম ভক্ত ছিলেন। আমার ফুপু ঢাকায় থাকেন। সেখান থেকেই আসতেন তিনি।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন প্রিয়.কম-কে জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুজনের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে পাঠান। কে বা কারা এই খুনের সাথে জরিত তাদের কে খুঁজে বের করা হবে। ধারণা করা হচ্ছে, গতকাল মঙ্গলবার রাতের কোনো একসময় দুর্বৃত্তরা এই দুই নারীকে গলা কেটে হত্যা করে পালিয়ে গেছে।

মুন্সীগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মুস্তাফিজুর রহমান প্রিয়.কম-কে বলেন, ‘মাজারের খাদেম আমাদের কে খবর দিলে সকাল দশটার দিকে ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়। পুলিশের ধারণা, যৌন ও জমিজমা সংক্রান্ত কারণে এ হত্যাকাণ্ড হতে পারে। ঘটনাস্থল থেকে খুনের কিছু আলামত পাওয়া গেছে। তদন্তের স্বার্থে তা এখন বলা যাচ্ছেনা।’

এর আগে গত ১৬ আগস্ট বুধবার রাতের নোয়াখালীর সোনাইমুড়ির হাটগাঁও গ্রামের আফজাল পাটোয়ারী মাজারের এক খাদেমকে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

অার ২০১৫ সালের ১০ নভেম্বর রাতে স্থানীয় বাজারে অবস্থিত নিজের ওষুধের দোকান থেকে বাড়ি ফেরার পথে মাজারের খাদেম ও ঔষধ ব্যবসায়ী রহমত আলীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় এবং ঘাড়ে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

প্রিয় সংবাদ/শিরিন