(প্রিয়.কম) মিয়ানমার সেনাবাহিনী রাখাইনে জাতিগত নিধনে নেমেছে। এরই প্রেক্ষাপটে মিয়ানমারকে দেয়া ২০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ সহায়তা স্থগিত করেছে বিশ্বব্যাংক। স্থানীয় সময় শুক্রবার ওয়াশিংটনে এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানায় বিশ্বের শীর্ষ এই ঋণদাতা সংস্থা।

বিবৃতিতে রাখাইনের পরিস্থিতিতে উদ্বেগ জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক। এমনকি রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানের তাগিদও দেওয়া হয়েছে। তবে এর আগে দেশটিতে দেয়া অন্যান্য সহায়তা পুনর্বিবেচনার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্বব্যাংক।

বিবৃতিতে বিশ্বব্যাংক জানায়, ‘সম্প্রতি মিয়ানমারের জন্য অনুমোদিত উন্নয়ন সংক্রান্ত ঋণের সর্বশেষ পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে দেখেছে বিশ্বব্যাংক। সার্বিক বিচারে সংস্থাটির মনে হয়েছে, ওই ঋণের কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিত করতে সেখানকার পরিস্থিতির আরও উন্নতি হওয়া দরকার।’

রাখাইনের পরিস্থিতিতে উদ্বেগ জানিয়েছে বিশ্বব্যাংকের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর সহিংসতা, রাখাইনের ধ্বংসযজ্ঞ এবং তাদের উচ্ছেদ নিয়ে গভীরভাবে উদ্বিগ্ন বিশ্বব্যাংক।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, ‘বৈষম্যহীনকা, সামাজিক অন্তর্ভুক্তি এবং সবার জন্য অর্থনৈতিক সুযোগের মৌলিক নীতির জন্য একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে জাতিসংঘ এবং বৃহত্তর আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে বিশ্বব্যাংক।’

বিবৃতিতে মিয়ানমার সরকারকে রোহিঙ্গা সঙ্কট উত্তরণে তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ নিতে তাগিদও দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। আর রোহিঙ্গা পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য বাংলাদেশকে বিশ্বব্যাংক সাহায্য করবে বলেও জানিয়েছে সংস্থাটি।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা নিধন অভিযান শুরুর পর প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সংখ্যা ইতোমধ্যে ৫ লাখ ২৩ হাজার ছাড়িয়ে গেছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। তবে বেসরকারি হিসাবে এ সংখ্যা ৬ লাখেরও বেশি

এদিকে পালিয়ে আসার হার আগের চেয়ে কিছুটা কমলেও, তা পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে বলার সময় এখনও হয়নি বলে জানান সংস্থাটির মুখপাত্র। জাতিসংঘ আরও জানায়, মিয়ানমার সেনাবাহিনী রাখাইনে জাতিগত নিধনে নেমেছে

প্রিয় সংবাদ/আশরাফ