(প্রিয়.কম) নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলায় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির গঠনকে কেন্দ্র করে প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকসহ অন্তত ১২ জন আহত হয়েছেন। তারা কিশোরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেসহ স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

১২ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার রণচন্ডি কুঠিপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাঙ্গণে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে দশ জনের পরিচয় জানা গেছে। তারা হলেন- ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ভুপেন চন্দ্র (৬০), জুয়েল মিয়া (৩০), তপন রায় (৩২), ভরত চন্দ্র রায় (৫০), গোপাল চন্দ্র রায় (১৯), ক্ষিরোত চন্দ্র (২৬), সহকারী শিক্ষক জোগেস চন্দ্র রায় ( ৫৫), সুবাশ চন্দ্র রায় (৬০), সুনিল চন্দ্র রায় (৪৫) ও শোকেশ চন্দ্র রায় (৪৮)।

জানা গেছে, রণচন্ডি কুঠিপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি নির্বাচনের জন্য একজন বিদ্যুৎসাহী সদস্য ও একজন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কমিটিতে অন্তর্ভূক্ত করা নিয়ে প্রধান শিক্ষক ভুপেন চন্দ্র রায় ও সহকারী শিক্ষক জোগেস চন্দ্রের মধ্যে কথাকাটাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। সে সময় উভয়পক্ষের অন্তত ১২ জন আহত হয়।

কিশোরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বজলুর রশীদ প্রিয়.কম-কে বলেন, ‘ওই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি গঠন নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। আহতরা কিশোরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেসহ স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।’

প্রিয় সংবাদ/শিরিন