(প্রিয়.কম) প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদা বলেছেন, আসন্ন রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের প্রয়োজন নেই।

৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন উপলক্ষে জেলার বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় মিলনায়তনে আইন-শৃংখলা ও নির্বাচন সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয়ে আলোচনা সভা শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

সিইসি বলেন, নির্বাচনে সব প্রার্থী সমান সুযোগ পাবে এবং চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। নির্বাচনী আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি অত্যন্ত ভালো। তাই এ নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের কোনো প্রয়োজন নেই।

নুরুল হুদা বলেন, ২১ ডিসেম্বরের রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি প্রায় শেষ। নির্বাচন, সুষ্ঠু, অবাধ ও গ্রহণযোগ্য করতে আমরা সব প্রস্তুতি নিয়েছি। প্রতিটি কেন্দ্রে ২২ থেকে ২৩ জন নিরাপত্তা বাহিনীর সশস্ত্র সদস্য দায়িত্বে থাকবেন। 

তিনি আরও বলেন, অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ৩৩ জন ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন মাঠে। কালো টাকা দিয়ে ভোট কেনাবেচা বন্ধে গোয়েন্দা নজরদারিও জোরদার করা হয়েছে। 

সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নির্বাচন কমিশনের সচিব হেলাল উদ্দিন আহমেদ, বিভাগীয় কমিশনার কাজী হাসান আহমেদ, ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফরুখ। জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহেদুজ্জামান ছাড়াও বিজিবি, পুলিশ, আনসার, বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন। 

উল্লেখ্য, বিকেলে রংপুর জিলা স্কুল অডিটরিয়ামে সিটি নির্বাচনে মেয়র, কাউন্সিলর ও নারী কাউন্সিলর প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন সিইসি।

প্রিয় সংবাদ/শান্ত