প্রতীকী ছবি

‘ফুফুর সঙ্গে কথা বলায়’ বাংলাদেশিকে হত্যা করল রোহিঙ্গা যুবক

নিহত বাংলাদেশি ব্যক্তির নাম আবদুল জব্বার (৩৫)। নিহত জব্বার খুনিয়াপালং এলাকার বশীর ফকিরের ছেলে।

আবু আজাদ
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ২৮ অক্টোবর ২০১৭, ২১:০৬ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ০০:৩২
প্রকাশিত: ২৮ অক্টোবর ২০১৭, ২১:০৬ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ০০:৩২


প্রতীকী ছবি

(প্রিয়.কম) কক্সবাজারের রামু উপজেলায় ফুফুর সঙ্গে কথা বলতে দেখে এক বাংলাদেশিকে কুপিয়ে হত্যা করেছে রোহিঙ্গা যুবক। ২৭ অক্টোবর শুক্রবার গভীর রাতে উপজেলার খুনিয়াপালং এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনায় রোহিঙ্গা যুকবকে আটক করেছে পুলিশ।

খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আবদুল মাবুদ সংবাদমাধ্যমকে এ সব জানান। তিনি বলেন, নিহত বাংলাদেশি ব্যক্তির নাম আবদুল জব্বার (৩৫)। নিহত জব্বার খুনিয়াপালং এলাকার বশীর ফকিরের ছেলে।

আবদুল মাবুদ জানান, তার ইউনিয়নের হেডম্যানপাড়ার শামসুল আলমের স্ত্রী দিলারা বেগম একজন রোহিঙ্গা। দিলারার সাথে ওই এলাকার জব্বারের পরকীয়া ছিল। গত ২৭ অক্টোবর শুক্রবার গভীর রাতে দিলারা লুকিয়ে জব্বারের সাথে কথা বলছিল। সেটা দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে দিলারার দুঃসম্পর্কের ভাতিজা জিয়াবুল হক জব্বারকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। পরে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল এবং পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে নেওয়ার পথে জব্বারের মৃত্যু হয়। ঘটনার মাত্র দুই মাস আগেই জিয়াবুল হক মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আসার পর ফুফু দিলারার বাসায় উঠেছিল।  

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে রামু থানা পুলিশের উপপরিদর্শক ছানাউল্লাহ জানান, আটক জিয়াবুল হক মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের ফকিরা বাজার এলাকার মীর আহমদের ছেলে। দুই মাস আগে রাখাইনে সেনা অভিযান শুরু হলে সে পালিয়ে বাংলাদেশে এসে ফুফু দিলারা বেগমের বাসায় আশ্রয় নেয়। ঘটনার পরপরই স্থানীয়রা জিয়াবুলকে আটক করে পুলিশে দেয়। অন্যদিকে ময়নাতদন্তের জন্য জব্বারের লাশ কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

প্রিয় সংবাদ/শান্ত 

 

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...