গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের ক্রুদ্ধ ভক্তরা শহর জুড়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে। সংগৃহীত ছবি

ভারতে ধর্ষণে দোষী ধর্মগুরু: নিহত ৩২, সেনা মোতায়েন

গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের ক্রুদ্ধ ভক্তরা শহর জুড়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে।

সজিব ঘোষ
সহ-সম্পাদক, নিউজ এন্ড কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স
প্রকাশিত: ২৫ আগস্ট ২০১৭, ২১:১৭ আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৮, ১০:১৬


গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের ক্রুদ্ধ ভক্তরা শহর জুড়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে। সংগৃহীত ছবি

(প্রিয়.কম) ভারতের জনপ্রিয় ধর্মগুরু ডেরা সাচা সৌদা প্রধান গুরমিত রাম রহিম ধর্ষণের মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর হরিয়ানার পাঁঁচকুুলাসহ বিভিন্ন জায়গায় সহিংসতা শুরু হয়েছে। তার ভক্তরা শহর জুড়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। ইতোমধ্যে ৩২ জন নিহত ও দুই শতাধিক আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যম টাইমস অফ ইন্ডিয়া। 

পত্রিকাটি জানিয়েছে, বিভিন্ন জায়গায় সংঘর্ষের ঘটনায় ৩২ জনের মৃত্যু হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।  

২৫ আগস্ট আদালতে দোষী সাব্যস্ত হন ধর্মগুরু, এর শাস্তি ঘোষণা হবে আগামী ২৮ আগস্ট। কিন্তু তার আগেই শুরু হয়েছে ভক্তদের তান্ডব।

এনডি টিভির খবরে বলছে, হামলাকারীদের মূল লক্ষ্য সংবাদকর্মী। তারা এখন পর্যন্ত বেশ কয়েকটি টেলিভিশনের গাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে। এতে অনেক সাংবাদিক আহত হয়েছেন এবং বেশ কয়েক জন নিখোঁজ রয়েছে। দিল্লিতে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে।  

ভারতে সংঘর্ষ

গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের ক্রুদ্ধ ভক্তরা শহর জুড়ে তাণ্ডব চালাচ্ছে। সংগৃহীত ছবি

ডেরা সমর্থকদের মোকাবেলা করতে জলকামান, কাঁদানে গ্যাস আর গুলিও চালানো হয়েছে। উত্তেজিত সমর্থকরা হরিয়ানার বিভিন্ন জায়গায় ভাংচুর আর অগ্নিসংযোগ করছে।

রাম রহিমকে এখন ভারতীয় সেনাবাহিনীর পশ্চিমাঞ্চলীয় মুখ্য দফতরে রাখা হয়েছে। পরে তাকে হেলিকপ্টারে চাপিয়ে কোনো দূরবর্তী কারাগারে নিয়ে যাওয়া হবে।

পাঞ্জাবের মানসা আর মলোটে বিতর্কিত ধর্মগুরুর ভক্তরা দু’দুটি রেল স্টেশনে আগুন লাগিয়ে দিয়েছেন। ফিরোজপুর জেলায় প্রশাসন কারফিউ জারি করার কথা ঘোষণা করেছে। পাঞ্জাব-হরিয়ানা সীমান্তে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। চলছে কড়া তল্লাশি।

সংবাদ সংস্থা পিটিআই জানাচ্ছে, হরিয়ানার যে পাঁচকুলা শহরের আদালত আজ গুরমিত রাম রহিমকে দোষী সাব্যস্ত করেছে, সেখানে কারফিউ জারি করা হয়েছে।

তাণ্ডব চলছে

হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খাট্টার জানান, আদালতের রায় ঘোষণা হওয়ার জেরে যে কোনো পরিস্থিতি সামলাতে তার সরকার প্রস্তুত। রায় ঘোষণার ২ ঘণ্টা আগে পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাইকোর্ট প্রশাসনকে আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে প্রয়োজনে গুরমিত রাম রহিমের ভক্তদের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করার নির্দেশও দেয়। তবে এত কিছুর পরেও রায় ঘোষণা হওয়া মাত্র রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন ডেরা সাচা সৌদার উন্মত্ত ভক্তরা।

সংবাদমাধ্যমের গাড়িতেও হামলা চলে। পাঁচকুলার একাধিক জায়গায় পুলিশের সঙ্গে তাদের খণ্ডযুদ্ধ বাধে। পরিস্থিতি সামলাতে পুলিশ প্রথমে টিয়ার গ্যাসের শেল ফাটায়। তাতে কাজ না হওয়ায় পাঁচকুলায় কয়েক রাউন্ড গুলি চালায় পুলিশ। 

পঞ্জাবের মালুট রেল স্টেশন এবং পেট্রোল পাম্পেও আগুন ধরিয়ে দেয় ডেরা সমর্থকরা। একই রকম ঘটনার সাক্ষী থাকে ভাটিন্ডা শহর। অবস্থা সামলাতে ভাটিন্ডা, মনসা ও ফিরোজপুরে কারফিউ জারি করে প্রশাসন। অন্যদিকে রাজ্যে আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে টুইটারে আবেদন জানিয়েছেন হরিয়ানার​ মুখ্যমন্ত্রী ​মনোহর লাল খাট্টার এবং পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং।

প্রিয় সংবাদ/রিমন

আরো পড়ুন: কে এই গুরু, কেন এত বিতর্ক?

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন
ছাত্রদলের ৩টি ইউনিটের আংশিক কমিটি গঠন
মোক্তাদির হোসেন প্রান্তিক ২০ আগস্ট ২০১৮
নৃত্যগুরু বজলুর রহমান বাদল আর নেই
সফিউল আলম রাজা ২০ আগস্ট ২০১৮
রাজধানীতে ৪০৯টি ঈদ জামাত
আবু আজাদ ১৯ আগস্ট ২০১৮
ট্রেন্ডিং