জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের সভাপতি, অধ্যাপক ড. রশিদুন্ নবী। ছবি: প্রিয়.কম

দুই দেশ থেকে ‘নজরুল পুরস্কার’ পাচ্ছেন রশিদুন্ নবী

‘প্রতি বছর নজরুল-সাহিত্য-গবেষণা ও সংগীতে অবদানের জন্য দুজনকে নজরুল পুরস্কারে সম্মানিত করা হয়।’

প্রদীপ দাস
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৩ মে ২০১৮, ১৯:১১ আপডেট: ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১১:৩২
প্রকাশিত: ২৩ মে ২০১৮, ১৯:১১ আপডেট: ১৬ আগস্ট ২০১৮, ১১:৩২


জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের সভাপতি, অধ্যাপক ড. রশিদুন্ নবী। ছবি: প্রিয়.কম

(প্রিয়.কম) বাংলাদেশভারত থেকে ‘নজরুল পুরস্কার’ পাচ্ছেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. রশিদুন্ নবী। নজরুল গবেষণায় বিশেষ অবদানের জন্য তিনি এই পুরস্কার পাচ্ছেন।

বাংলাদেশের কবি নজরুল গবেষণা ইনস্টিটিউট এবং ভারতের নজরুল একাডেমি নজরুল পুরস্কারের জন্য এই অধ্যাপককে মনোনীত করেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে রশিদুন্ নবী প্রিয়.কমকে বলেন, ‘ভারতের নজরুল একাডেমি থেকে পুরস্কার নিতে ২৬ মে সকাল ৮টা ২০ মিনিটের একটি ফ্লাইটে আমি ভারত যাচ্ছি। বিমানবন্দর থেকে অনুষ্ঠানে যোগ দিব এবং পুরস্কার গ্রহণ করব। তবে আমাদের দেশের নজরুল গবেষণা ইনস্টিটিউটের পুরস্কার তুলে দেওয়ার দিন এখনো নির্ধারিত হয়নি।’

নজরুল একাডেমির চিঠিতে বলা হয়, ‘‘জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৯তম জন্মদিন উপলক্ষে আগামী ২৬ মে থেকে ১ জুন কবিতীর্থ চুরুলিয়ায় সাত রাত ধরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আলোচনা ও মেলা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নজরুল বিষয়ে গবেষণামূলক বিশেষ অবদানের জন্য নজরুল একাডেমি আপনাকে (রশিদুন্ নবী) নজরুল পুরস্কার প্রদানে মনোনীত করেছে। আশা করি আপনি ২৬ মে কবির জন্মভিটায় উপস্থিত থেকে সম্মানসূচক ‘নজরুল পুরস্কার’ গ্রহণ করবেন।’’

কবি নজরুল ইনস্টিটিউটের সচিব মো. আব্দুর রহিমের দেওয়া চিঠিতে বলা হয়, ‘‘প্রতি বছর নজরুল-সাহিত্য-গবেষণা ও সংগীতে অবদানের জন্য দুজনকে নজরুল পুরস্কারে সম্মানিত করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় কবি নজরুল ইনস্টিটিউট ট্রাস্টি বোর্ড নজরুল গবেষণায় অনন্য অবদানের জন্য আপনাকে (রশিদুন্ নবী) ‘নজরুল-পুরস্কার ২০১৭’ প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।’’

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, রশিদুন্ নবী ১৯৮৯ সালে নজরুল ইনস্টিটিউটে গবেষণা কর্মকর্তা হিসেবে যোগ দেন। প্রতিষ্ঠানটির গবেষণা বিভাগ ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি তিনি নজরুল সংগীতের খণ্ডকালীন জ্যেষ্ঠ প্রশিক্ষক হিসেবে প্রায় ২২ বৎসর নজরুল একাডেমি, বুলবুল ললিতকলা একাডেমি (বাফা) ও নজরুল পরিষদের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। তিনি ২০০৭ সালের ২৭ সেপ্টেম্বরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক পদে যোগ দেন। বর্তমানে তিনি বিভাগের অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কর্মরত আছেন।

বাংলাদেশ ও ভারতে এ পর্যন্ত প্রকাশিত সর্বাধিক সংখ্যক অর্থাৎ ৩ হাজার ১৭৪টি নজরুল সংগীতের সংকলন-গ্রন্থ ‘নজরুল সংগীত সংগ্রহ’-এর সম্পাদক অধ্যাপক ড. রশিদুন্ নবী। এ ছাড়া তিনি ‘আদি রেকর্ড-ভিত্তিক নজরুল সংগীতের নির্বাচিত বাণী সংকলন’, ‘নজরুল সংগীত স্বরলিপি সংগ্রহ’, ‘নজরুলের নির্বাচিত ছোটগল্প’, ‘নজরুলের উপন্যাস সংগ্রহ’, ‘নজরুলের নির্বাচিত কিশোর সাহিত্য’, ‘নজরুলের কাব্যানুবাদ’, ‘নজরুলের নির্বাচিত প্রবন্ধ’, ‘আদি গ্রামোফোন রেকর্ডের তালিকা’, ‘হাজার বছরের বাংলাগান সংগ্রহ’সহ মোট ১৪টি বই সম্পাদনা করেছেন।

নজরুল ইনস্টিটিউট ও নজরুল একাডেমি থেকে নজরুল সংগীতের পাঁচটি প্রামাণ্য স্বরলিপিও প্রকাশিত হয়েছে রশিদুন্ নবীর। তিনি বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের নজরুল সংগীতশিল্পী, সংগীত পরিচালক এবং ‘নজরুল সংগীত অডিশন বোর্ড’-এর একজন সদস্য।

প্রিয় সংবাদ/হাসান/আজহার

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...