(প্রিয়.কম) ঘটনা গত আসরের। তখনই শাস্তি হিসেবে সাময়িক নিষিদ্ধ করা হয়েছিলো রংপুর রাইডার্সের ম্যানেজার সানোয়ার হোসেন ও তাদেরই ক্রিকেটার জুপিটার ঘোষকে। এবার হয়তো আশায় বুক বেধেছিলেন এ দুজন। কিন্তু তাদের আশার গুড়ে বালি। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের পঞ্চম আসরেও এই তুই ‘অপরাধী’কে নিষিদ্ধ রেখেছে বিপিএলের গভর্নিং কাউন্সিল। 

দুই নভেম্বর থেকে শুরু হতে যাওয়া বিপিএলের পঞ্চম আসরের কোনো কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবেন না বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চোখে ‘দোষী’ এ দু’জন। বিপিএলের চতুর্থ আসর চলাকালীন মাঝরাতে এক নারী অথিতিকে হোটেলে নিয়ে যান জুপিটার। আবার জুপিটারই অভিযোগ করেন, ম্যানেজার সানোয়ার হোসেন তাকে ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব দিয়েছেন। 

এসব বিষয়ের সুরাহা না হলেও এমন বিতর্কিতদের টুর্নামেন্টের সঙ্গে জড়াতে চায় না বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। এছাড়া বিপিএলের প্রথম আসরে ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্সের ফিক্সিংয়ের সাথে নাম ছিলো সানোয়ার হোসেনের। সেবার ঢাকার ম্যানেজারের দায়িত্বে ছিলেন তিনি। তাকে নিয়ে বিতর্ক থাকায় এবারের আসরে তাকে দেখতে চায় না আয়োজকরা। 

সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে জুপিটার-সানোয়ার প্রসঙ্গে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক বলেন, ‘জুপিটার ঘোষের নাম প্লেয়ার্স লিস্টে থাকবে না। আর সানোয়ার ভাইয়ের নাম যেহেতু প্রথম বিপিএলে ফিক্সিংয়ের সময় এসেছিলো তাই তিনি ফ্র্যাঞ্চাইজিদের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকতে পারবেন না।  বিতর্কিত কাউকে আমরা সবসময়ই অনুৎসাহিত করি।’

এই দু‘জনের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের সত্যতা সম্পর্কে জানতে চাইলে বিপিএলের সদস্য সচিব বলেন, ‘একটা ছিলো ডিসিপ্লিনারি ইস্যু, আরেকটা অনৈতিক প্রস্তাব দেওয়া। দুটি অভিযোগের ক্ষেত্রে আমরা দেখেছি জুপিটার ঘোষ ডিসিপ্লিন ব্রেক করেছিলো। অনৈতিক প্রস্তাবের কনক্রিট কোনো প্রমাণ আমরা পেয়েছি, তা কিন্ত নয়। সানোয়ার ভাই প্রথম এডিশনে ঢাকার ম্যানেজার ছিলেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিলো। আমরা চাই না বিতর্কিত কেউ আমাদের বিপিএলের সাথে যুক্ত থাকুক।’